স্টেডিয়াম: ইডেন গার্ডেনকে চ্যালেঞ্জ জানাতে পদ্মাপাড়ে তৈরি হচ্ছে

ভারতের কলকাতার গঙ্গাপাড়ের ইডেন গার্ডেনকে চ্যালেঞ্জ জানাতে তৈরি হচ্ছে মানিকগঞ্জে পদ্মাপাড়ের স্টেডিয়াম। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাংলাদেশের সাফল্য এখন অনেক কিন্তু সেই হারে উন্নতি ঘটেনি অবকাঠামোগত ব্যবস্থাপনায়। বিশ্বের অনেক দেশেই দৃষ্টিনন্দন ক্রিকেট স্টেডিয়াম থাকলেও সেক্ষেত্রে অনেকটা পিছিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ। তবে ক্রিকেটে এবার নজর দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

পাকিস্তানের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় ওয়ান ডে ম্যাচ দেখতে তিনি স্টেডিয়ামে গিয়েছিলেন। পরদিন মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে তিনি মানিকগঞ্জের একটি স্টেডিয়াম করার ঘোষণা দেন।

ঢাকা থেকে প্রায় ৬০ কিলোমিটার দূরে মানিকগঞ্জে ক্রিকেট স্টেডিয়াম নির্মাণের স্বপ্ন দেখেছিলেন বাংলাদেশের প্রথম টেস্ট অধিনায়ক নাঈমুর রহমান দুর্জয়। তিনি এখন সংসদ সদস্য। তার স্বপ্ন এখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনারও স্বপ্ন। শুধু স্বপ্ন নয়, পদ্মাপাড়ে ক্রিকেট স্টেডিয়াম গড়ার স্বপ্নও এখন বাস্তবায়ন হতে যাচ্ছে।

সম্প্রতি যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ে ক্রিকেট স্টেডিয়াম নির্মাণের পাওয়ারপয়েন্ট প্রেজেন্টশন দিয়েছে চীনের স্টেট কন্সট্রাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং কর্পোরেশন লিমিটেড (সিএসসিইসি)।

গত বৃহস্পতিবার ঘুরে দেখেছেন চীনের একটি প্রতিনিধিদল। চায়না স্টেট কনস্ট্রাকশন ইঞ্জিনিয়ার করপোরেশনের ১০ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল মানিকগঞ্জের আরিচা ও পাটুরিয়া ঘাটের ৫টি সম্ভাব্য স্থান ঘুরে দেখেন। প্রতিষ্ঠানটির উপদেষ্টা শাও ঝেন ঝং প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন।

এ সময় স্থানীয় সংসদ সদস্য জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক ও ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক এ এম নাঈমুর রহমান দুর্জয়, শিবালয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

নাঈমুর রহমান জানান, আন্তর্জাতিক মানের ক্রিকেট স্টেডিয়াম করার জন্য প্রাথমিকভাবে জায়গা নির্বাচন করা হয়েছে। এখন প্রধানমন্ত্রী সম্মতি দিলেই কাজ শুরু হবে। চীনা দলটি ক্রিকেট স্টেডিয়ামসহ আরিচা ঘাটে ইকোনমিক জোনের জন্য কাজ করতে আগ্রহী।

এদিকে মানিকগঞ্জের পদ্মাপাড়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম নির্মাণে উৎফুল্ল জেলাবাসী। নিজ জেলায় ক্রীড়াঙ্গনের এত বড় অর্জন এখন আলোচনার প্রধান বিষয়। মানিকগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম সুলতানুল আজম আপেল বলেন, মানিকগঞ্জে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম স্থাপিত হলে, এটা অবশ্যই আমাদের অনেক বড় প্রাপ্তি।

ক্রিকেট বোর্ডের মানিকগঞ্জ ডিস্ট্রিক কোচ মো. সাইমুম মিয়া উচ্ছ্বাসের সুরে বললেন, এটা মানিকগঞ্জবাসীর অনেক দিনের আশা। মানিকগঞ্জে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম হলে তা হবে আগামী প্রজন্মের ক্রিকেটারদের জন্য মাইলফলক।

মানিকগঞ্জ জেলা প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি ও বিশিষ্ট ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব সাইফুদ্দীন আহমেদ নান্নু বলেন, মানিকগঞ্জের পদ্মাপাড়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম নির্মিত হলে বিশ্ব দরবারে মানিকগঞ্জ পাবে নতুন পরিচিতি। এটা আমাদের গর্বের বিষয়।

শিবালয় উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আলী আকবর বলেন, মানিকগঞ্জের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম হলে, আমাদের জেলার ক্রিকেটাররা অনুপ্রাণিত হবে এবং ভাল খেলে দু একজন খেলোয়ার হয়তো একসময় জাতীয় দলের জার্সি গায়ে জড়াবে।

ঢাকার ডেফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মানিকগঞ্জের মিতরা গ্রামের মো. উজ্জল হোসেন নিজ জেলায় স্টেডিয়াম নির্মাণের খবরে আনন্দ প্রকাশ করে বলেন, বিশ্বের নামীদামি খেলোয়াড়রা আমাদের জেলার স্টেডিয়ামে এসে খেলবে এটা ভাবতেই বুকটা ভরে যায়।

আর ঘরের পাশেই মাঠে বসে বাংলাদেশসহ বিশ্ব ক্রিকেট দলসমূহের খেলা উপভোগের কল্পনায় বিভোর ঘিওরের বানিয়াজুরী এলাকার গৃহবধূ লতা খানম ইতি।

স্টেডিয়ামটি তৈরি হবে প্রায় ১২ একর জমির উপরে আর দর্শক ধারণ ক্ষমতা হবে সব মিলিয়ে ২৫ হাজার। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, প্রকল্পটি পাশ হলেই এর প্রাক্কলিত ব্যয় নির্ধারিত হবে।

এ প্রসঙ্গে নাঈমুর রহমান দুর্জয় এমপি বলেন, সব মিলিয়ে গঙ্গাপাড়ের ইডেনকে চ্যালেঞ্জ জানাতে তৈরি হচ্ছে পদ্মাপাড়ের স্টেডিয়াম। এর জন্য চীনা কোম্পানি সিএসসিইসি’র সঙ্গে কথা বলা হয়েছে। তারা তাদের পরিকল্পনা আমাদের সামনে তুলে ধরবে। সবকিছু ঠিক থাকলে বাংলাদেশের সরকারের সঙ্গে চীনা সরকারের (জিটুজি) প্রাথমিক চুক্তি হবে। আশা করছি আগামী বছর নাগাদ স্টেডিয়াম নির্মাণের কাজ শুরু হবে।

তিনি অারো বলেন মানিকগঞ্জে পদ্মাপাড়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম নির্মাণের নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়। আশা করছি সবকিছু সঠিকভাবে এগোলে আগামী বছরই পদ্মাপাড়ে শেখ হাসিনা আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম নির্মাণ কাজ শুরু করা যাবে।

লেটেস্টবিডিনিউজ

Leave a Reply