মাঠপাড়া, প্রিয় গ্রাম: রাহমান মনি

আজ যে গ্রামটির কথা জানাব তার নাম মাঠপাড়া। স্মৃতিবিজড়িত প্রিয় গ্রাম আমার। মুন্সিগঞ্জ শহরের একেবারে প্রাণকেন্দ্র বললে মোটেও ভুল হবে না। তবে, আমি যে মাঠপাড়ার কথা জানাব তা বর্তমান মানে আজকের মাঠপাড়া নয়। শিশুকাল এবং কৈশোরের মাঠপাড়া। স্বাধীনতা যুদ্ধ এবং যুদ্ধোত্তর মহকুমা শহর মাঠপাড়ার কথা যা আজকে জেলা শহরের রূপ নিয়েছে।

মাঠপাড়া গ্রামটি মুন্সিগঞ্জ শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত বড় দুটি মাঠকে কেন্দ্র করে নামকরণ করা হয়েছে বলে আমার বিশ্বাস। তার একটি হচ্ছে মুন্সিগঞ্জ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের নিজস্ব এবং অপরটি মহকুমা প্রশাসনের যা বর্তমানে জেলা স্টেডিয়ামে রূপান্তরিত।

মাঠের পূর্বপাশেই হরগঙ্গা মহাবিদ্যালয়। আর হরগঙ্গা কলেজ থাকায় অনেকে আবার গ্রামটিকে কলেজপাড়া বলেও অভিহিত করে থাকেন। সরকারি খাতায় মাঠপাড়া খাল ইস্ট-এর একটি অংশ।

পুরাতন কাচারিপুল থেকে একটি রাস্তা সামান্য সামনের দিকে গিয়ে হাতের ডানদিকে সোজা চলে গিয়ে যেখানে গিয়ে শেষ হয়েছে মূলত মাঠপাড়া গ্রাম বলতে তাকেই বুঝানো হয়। অপর রাস্তাটি সোজা সামনের দিকে কলেজ পর্যন্ত গ্রামটির সীমানা। মাঠপাড়ার ভেতর আবার বংশপদবি অনুসারে কিছু নামকরণ রয়েছে। খানবাড়ি, মিয়াজীবাড়ি, খালাসীবাড়ি, মোল্লাবাড়ি এবং দেওয়ানবাড়ি। বিভিন্ন বাড়ি নামকরণ থাকলেও সবই মাঠপাড়ারই অংশ। সবকিছু মিলিয়ে মাঠপাড়া ছিল সবুজে ঘেরা সুন্দর ছায়াশীতল এক গ্রাম।

মাঠপাড়ার পশ্চিম দিকে শহরের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া একমাত্র খাল, জুবিলি খাল। খালের ওপারে মহকুমা প্রশাসন, পুলিশ ব্যারাক, ট্রেজারি এবং হাসপাতাল। উত্তর দিকে মাঠপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়, পুলিশ সুপারের কার্যালয় এবং বাসভবন, কলেজ অধ্যক্ষ ও শিক্ষকদের আবাসন। পূর্ব দিকটাতে কলেজ এবং তারপরই বিস্তীর্ণ ফসলি জমি। দক্ষিণ দিকটা মহকুমা মৎস্য খামার এবং ফসলি মাঠ।

গ্রামটির ভেতরে বড় দুটি মাঠ ছাড়াও রয়েছে মহকুমা আনসার কর্মকর্তার অফিস ও বাসভবন, টেলিফোন ও টেলিগ্রাফ অফিস এবং ক্রীড়া অফিস। এ ছাড়াও ছিল বড় বড় দুটি পুকুর এবং চানমাড়ি (আনসার ও পুলিশ বাহিনীর ফায়ারিং স্পট)। বড়পুকুরটির ছিল শান বাঁধানো দুটি ঘাট। যার একটিতে অন্য গ্রামের, শহরের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের লোকজনও আসত গোসল করতে। অলিখিত নিয়ম হিসেবে একটিতে মহিলারা এবং অপরটি পুরুষরা ব্যবহার করত।

মাঠপাড়া থেকে মাত্র পাঁচ মিনিট পায়ে হাঁটা পথে মুন্সিগঞ্জ হাইস্কুল, গার্লস স্কুল, মহকুমা জেলখানা, মহকুমা প্রশাসকের বাসভবন, আদালত, শহর জামে মসজিদ এবং কাঁচাবাজারের অবস্থান ছিল। দশ মিনিটের পথ ছিল কে কে সরকারি বিদ্যানিকেতন, এ ডি জে এম সরকারি বালিকা বিদ্যালয় এবং সদর থানা।

নাগরিক যত সুবিধা এবং প্রশাসনিক সব ভবন কাছে থাকায় মাঠপাড়ার সুনাম, মর্যাদা এবং বাসযোগ্যতা যে কোনো এলাকার জন্য ঈর্ষণীয় ছিল। অস্থায়ী নিবাসীদের ভাড়া গুণতেও হতো বেশি।

বিকেল হলেই আশপাশ এলাকা থেকে কিশোর এবং যুবকরা ছুটে আসত বড় মাঠে খেলার জন্য। তখন বিকেলবেলা মাঠমুখী হওয়া ছিল স্বাভাবিক একটি ঘটনা। সবাই ব্যস্ত থাকত ক্রীড়াঙ্গনে। বহু দলে বিভক্ত হয়ে বড় মাঠ দুটিতে খেলার প্রচলন থাকলেও মাঠপাড়াবাসীর খেলার জায়গাটি ছিল নির্দিষ্ট। আমরা সমবয়সীরা এবং একধাপ সিনিয়ররা দুই দলে বিভক্ত হয়ে ফুটবল খেলায় মেতে থাকতাম। তখন খেলোয়াড়ের সংখ্যা বেশি হওয়ায় অনেককেই বসে থাকতে হতো মাঠের বাইরে। যার মধ্যে আমিও ছিলাম। কিংবা বদলি খেলোয়াড় হিসেবে স্থান পাওয়া যেত। সমবয়সীদের মধ্যে ইকবাল, কল্লোল, প্রিন্স, মিলন, রকিব, তারিক, শাহ আলম, রহমত, পাল্টু খুব ভালো খেলত। যার জন্য সিনিয়রদের সঙ্গে নিজেদের স্থান করে নিত। আর সিনিয়রদের মধ্যে তারিক কাসেম মুকুল, মুকুল দাস, মিন্টু, ভুট্টু, আইনুল, মিল্টন, রনজু, আলম, মামুন, লিটন, পিনু, আকতার, বাবু, শাহিন, কাজল নিয়মিত প্র্যাকটিস করতেন। এদের মধ্যে তারিক কাসেম মুকুল, বাবু এবং মুকুল দাস ঢাকা প্রথম বিভাগ ফুটবল লীগের বিভিন্ন ক্লাবে নিজেদের স্থান করে নেন।

মাঠপাড়াতে একটি ক্লাব রয়েছে। নাম তার ‘মাঠপাড়া সমাবেশ ক্লাব’। এই ক্লাব থেকে অনেক বড় বড় খেলোয়াড়, কোচ তৈরি হয়েছেন। যারা ঢাকা স্টেডিয়াম তথা দেশ কাঁপিয়েছেন। দেশের দুটি প্রধান দল আবাহনী আর মোহামেডানের নেতৃত্ব দিয়েছেন তারা। হয়েছেন ঢাকা লীগে মৌসুমের সর্বাধিক গোলদাতা। ১৯৭৪ সালে ঢাকা লীগে সর্বোচ্চ গোলদাতা নওশের মাঠপাড়ারই সন্তান। মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের দীর্ঘদিন থাকা ক্যাপ্টেন স্বপন দাস মাঠপাড়ারই সন্তান। এ ছাড়াও আবাহনীতে মুকুল দাস, বাবু, ওয়ারি ক্লাব হয়ে পুলিশে তারিক কাসেম খান মুকুল, ঢাকা লীগের কোচ নজরুল ইসলাম সকলেই মাঠপাড়ার এবং সমাবেশ ক্লাবেই তাদের হাতেখড়ি। এ জন্য মুন্সিগঞ্জের ক্রীড়াঙ্গনের সঙ্গে মাঠপাড়া নামটি ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে রয়েছে।

ফুটবলে মাঠপাড়া সমাবেশ ক্লাবের সঙ্গে অন্য কোনো ক্লাবই পেরে উঠত না। শুধু মুন্সিগঞ্জই নয়, সমাবেশ ক্লাব দেশের বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন টুর্নামেন্টে অংশ নিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েই ফিরত। এর মধ্যে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় শিল্ড টুর্নামেন্ট ‘ভৈরব শিল্ড টুর্নামেন্ট’-এ অংশ নিয়ে একাধিকবার সমাবেশ ক্লাব চ্যাম্পিয়ন হয়েছে।
আর এসব ক্ষেত্রে উৎসাহ দেয়ার জন্য যার নামটি জড়িয়ে আছে তিনি হলেন, আর্শেদ উদ্দিন চৌধুরী। সবাই তাকে ওস্তাদ বলে ডাকতাম। তিনি একজন ভালো সংগঠক। পরবর্তীতে আইন পেশায় ভালো সুনাম করলেও জীবন্ত এই কিংবদন্তি এখনও সমাবেশ ক্লাবকে আগলে রেখেছেন অনেকটা আগের মতোই।

ওস্তাদের অনুপ্রেরণায় সব সময় আমরা বিভিন্ন খেলাধুলা নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটাতাম। ফুটবলের পরই ছিল ক্রিকেট। এ ছাড়াও ভলিবল, ব্যাডমিন্টন এমনকি হাডুডু খেলাও নিয়মিত অনুশীলন হতো। এই নিয়ে মাঠপাড়ার অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিল পার্শ্ববর্তী কোটগাঁও বয়েজ ক্লাব। ক্রিকেটে এগিয়ে ছিল কোটগাঁও বয়েজ ক্লাব।
উন্নয়নের জোয়ারে মাঠপাড়া গ্রামটি নামকরণে থাকলেও আগের মতো আর সুন্দর ছিমছাম নেই। যাকে কেন্দ্র করে মাঠপাড়া নামকরণটি হয়েছিল, সেই মাঠ আর মাঠ নেই। হয়েছে আধুনিক স্টেডিয়াম। ভরাট হয়ে গেছে শান বাঁধানো ঘাটের সেই পুকুর দুটিও। স্টেডিয়ামের সৌন্দর্য বৃদ্ধি ঘটাতেই ভরাট করা হয়েছে পুকুর দুটি।

পশ্চিম দিকের খালটিও নেই। ভরাট করা হয়েছে শহরের ওপর দিয়ে প্রবাহমান খালটি যেটি ধলেশ্বরী এবং রজতরেখা নদী দুটির সংযোগ স্থাপন করেছিল। ভরা মৌসুমে মাঝিমাল্লাদের ভাটিয়ালি গান আর পানিতে বৈঠার আঘাতে ছলাৎ ছলাৎ শব্দ করে বিভিন্ন মালামাল জুবিলি খাল দিয়ে পারাপার ছিল নিত্যদিনের সঙ্গী। চাঁই (মাছ ধরার জন্য একপ্রকার ফাঁদ বিশেষ) পেতে বা ঘের দিয়ে মাছ ধরে জীবিকা নির্ভর করেছেন এমন লোকের সংখ্যাও নেহায়েত কম নয়। আর বর্ষার নতুন পানিতে সাঁতার কেটে এক মাথা থেকে অন্য মাথায় যাওয়ার প্রতিযোগিতা ছিল বন্ধুদের মধ্যে বিশেষ বিনোদন এবং সেই সঙ্গে শারীরিক কসরতও বটে। লঞ্চঘাট (ধলেশ্বরী নদীর মুখ) থেকে মূল শহর হয়ে কাটাখালীবাজার (রজত রেখা নদীর মুখ) পর্যন্ত প্রায় ৪ কিলোমিটার নদীপথ কতবার যে সাঁতরে পাড়ি দিয়েছি তার কোনো হিসাব নেই। সেই খাল ভরাট দেখে যারপরনাই কষ্ট লাগে মনে।

মাঠপাড়ার রাস্তা দিয়ে হাঁটলে সকাল-সন্ধ্যা প্রায় প্রতিটি বাড়ি থেকেই ভেসে আসত শিক্ষার্থীদের পড়ার আওয়াজ। প্রায় প্রতিটি বাড়িতেই একটি করে হলেও টিনচালার ঘর ছিল। সেই সব ঘর থেকেই পড়ার আওয়াজ আসাতে গ্রামটিজুড়েই পড়ার একটা রেশ থাকত। তারও সকালে অনেক বাড়ি থেকেই কোরআন তেলাওয়াত কানে আসত। এখন পুরো রাস্তা দিয়ে হাঁটলেও কোরআন তেলাওয়াত তো দূরের কথা, পড়াশুনার কোনো আওয়াজও আর কর্ণকুহরে প্রবেশ করে না। টিনচালা ঘরও আর তেমনটা চোখে পড়ে না।

দূর-দূরান্ত থেকে লোকজন এসে ফসলি মাঠ ভরাট করে বাড়ি করেছেন। খাদ্যশস্য উৎপাদনের স্থলে গড়ে উঠেছে আবাসন স্থল। যা অট্টালিকায় স্থান নিয়েছে। দুই রোডবিশিষ্ট মাঠপাড়ার ভেতরে এখন বায়ান্ন বাজারের তিপ্পান্ন গলির মতো অবস্থা হয়েছে। যুগের চাহিদায় তা হয়েছে।

কিন্তু সবুজ শ্যামল ছোট্ট ছিমছাম গ্রাম মাঠপাড়া তার আসল রূপ হারিয়েছে। নৌকার বৈঠার ছলাৎ ছলাতের বদলে ক্রিং ক্রিং রিকশা কিংবা পেঁ-পোঁ হর্ন দিয়ে গাড়ি ছোটা, শিশু-কিশোরদের খেলার মাঠ দখল হওয়া স্মৃতির মণিকোঠরে স্থান পাওয়া মাঠপাড়ার সঙ্গে কিছুতেই মিলাতে পারি না। তারপরও মাঠপাড়া, প্রিয় গ্রামটি আমার। আমি তোমাকে অনেক মিস করি, তার চেয়েও বড় বেশি ভালোবাসি।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

2 Responses

Write a Comment»
  1. onek din por srity bijorito ashol math parar bornona shune khub valo laglo.amader math parar gurutto akhon kar bashin da jara tara ashob ke shudhu golpoie mone korbe.our math para is our pride.

    1. Dhonnobad Mr Tofael , Asole Mathparar bornona 1000 shobder moddhe dewa somvob noy , onek sriti , onek kichui likhar chilo , baddobadokotar jonno somvob hoyni / Porobortite kono ek colum e likhar iccha ache

Leave a Reply