জয় করেই চলছে পদ্মা সেতু…

সুমিত সরকার সুমন: পদ্মা ভাঙন কবলিত এলাকা এভাবেই রোধ করা হচ্ছে। পদ্মার বুক থেকে তীর সর্বত্র অবিরাম চলছে কাজ। নদীতে এখন অথৈ পানি। ঢেউ এসে আছড়ে পড়ছে তীরে। তীরে এসে ভিড়ছে সেই বালুভর্তি নৌকাগুলো। ছাই রঙের জিও ব্যাগে বালু ভরা বেরিবাধ হচ্ছে নদীতীরে। বেঁধে দেওয়া হচ্ছে পাড়। শত শত শ্রমিকের তুমুল ব্যস্ততা। দিনের আলো ফোটার সঙ্গে সঙ্গে কাজ শুরু হয়ে চলছে আলো নেভার আগ পর্যন্ত। রাতে দিন রাখা দিচ্ছে সতর্ক সিকোরিটি প্রহরা। পদ্মা সেতুর মাওয়া প্রান্তে কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডের পাশে দেখা গেল এই বিপুল কর্মযজ্ঞ। সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় শেষ পর্যন্ত বশ মেনেছে প্রমত্ত পদ্মা।

১২দিনের পর গত রবিবার থেকে নদীভাঙন বন্ধ হয়েছে। আর বৈরী প্রকৃতিকে এভাবেই জয় করে পুরোদমে চলছে পদ্মা সেতুর সব অংশের কাজ। রাজধানীর ঢাকার সঙ্গে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার সকল প্রকার যোগাযোগ। এদিকে উপজেলার মাওয়া ও শরীয়তপুরের জাজিরা পয়েন্টে বাস্তবায়িত হচ্ছে দেশের সবচেয়ে বড় এই অবকাঠামো প্রকল্প। এতে খরচ হবে প্রায় ২৮ হাজার ৬শ কোটি টাকা ধারনা। সাধারণত বর্ষার বৈরিতায় দেশের বিভিন্ন স্থানে অবকাঠামো নির্মাণকাজ ব্যাহত হয়। কিন্তু এই দুই স্থানে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থার কারণে মূল সেতুর পাইলিং, ওয়ার্কশপে পাইপ তৈরি, নদীশাসনের জন্য কংক্রিটের ব্লক তৈরি ও সংযোগ সড়ক নির্মাণের কাজ চলছে বেশ ধুমছে।

ঢাকা থেকে মাওয়ার পথে মাত্র ৩৬ কিলোমিটার দূরে মুন্সীগঞ্জের ঢাকা মাওয়া মহা সড়কের শীনগর উপজেলার দোগাছি বাজার। সেখান থেকে এই পদ্মা সেতুর বিশাল প্রকল্প শুরু। দোগাছি বাজারের উল্টোদিকে ৮৭ হেক্টর জমিতে এরিয়া ১ এর সার্ভিস অবস্থান। গড়ে উঠেছে,এখানে আছে সিএসসি প্রকৌশলীদের অফিস ও বাসস্থান। সেখানে তৈরি করা হয়েছে ২০টি কটেজ । আছে ল্যাবরেটরিও, যেখানে নির্মাণসামগ্রীর মান পরীক্ষার। স্থাপন করা হয়েছে বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র। দোগাছি ব্রিজ পার হতেই মাওয়ারদিকে চোখে পড়ে পদ্মা সেতুর কর্মযজ্ঞ। মহাসড়কের ডানে ও বাঁয়ে চলছে সংযোগ সড়ক নির্মাণের কাজ। ট্রাক ও লরি ভর্তিকরে বালু, পাথর, ইট, সুরকি এনে মেশিনে পাথর ভাঙা হচ্ছে,ও চলছে মাটি সমান করার কাজ। পাশেই তৈরি হচ্ছে টোল প্লাজা। পুলিশ স্টেশন, গ্যাস স্টেশন। ও মাওয়া সংযোগ সড়ক হবে দেড় কিলোমিটার দীর্ঘ।

মূল সেতুর ট্রায়াল পাইলিং চলছে-মাওয়া চৌরাস্তা থেকে সোজা পদ্মাতীরে পাইলিংয়ের কাজ চলছে দেখা যায় । নদীর বুকে কিছো শাড়ী শাড়ী রয়েছে ভারী ক্রেন -জাহাজ, ড্রেজার । গত ২৬ নভেম্বর মূল সেতু নির্মাণের কার্যাদেশ পেয়েছে চীনের রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কম্পানি লিমিটেড। কাজ শেষ করতে হবে ১৪৬০ দিন হিসেবে বা চার বছরের মধ্যে। এর জন্য প্রতিদিনের কর্মপরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ করা হচ্ছে। মাওয়া থেকে দেড় কিলোমিটার পুর্বে শিমুলিয়ায় সরিয়ে নেওয়া হয়েছে (মাওয়া ফেরিঘাট) সেখানে গত বছরের অক্টোবরে। নির্মাণ করা হয়েছে দুই কিলোমিটার নতুন সড়ক। মূল সেতুর নির্মাণকাজ শুরু হয়েছে মাওয়া চৌরাস্তা বরাবর পুরাতন ফেরীঘাট এলাকায় । চীন থেকে আনা যন্ত্রপাতি রাখা হয়েছে কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডে। গত ১মার্চ মূল সেতুর মাওয়া প্রান্তে অ্যাংকর পাইলিং শুরু হয়। ২০ মার্চ একই প্রান্তে শুরু হয়েছে ট্রায়াল পাইলিং বা টেস্ট পাইলিং। চীন থেকে আনা ট্রায়াল বা টেস্ট পাইলের ব্যাস দেড় মিটার।

চূড়ান্ত পিলার তৈরি হচ্ছে মাওয়ার ওয়ার্কশপেই। মূল সেতুর জন্য বিদেশী শ্রমিক আছেন সাড়ে ৩শ, দেশি শ্রমিক সাড়ে ৫শ জন। নদীশাসনের কাজ করছেন ১ শতকের বেসি জন চীনা ও দেড় হাজার দেশি শ্রমিক। সিএসসি আছেন ১শ-৩৫জন। তাঁরা কোরিয়ান-চীন-নেপাল- নিউজিল্যান্ডের, নাগরিক। কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডে আছে ছয়টি ভাসমান ক্রেন, ছয়টি ড্রেজার, পাঁচটি সাধারণ ক্রেন, তিনটি অ্যাংকর। পদ্মা সেতুতে মোট দুটি কনস্ট্রাকশন ট্রায়াল পাইল স্থাপন করা হবে। ও টেস্ট পাইল হবে ১০টি। এরই মধ্যে টেস্ট পাইল বসেছে তিনটি । গত ২১ আগষ্ট থেকে কনস্ট্রাকশন ট্রায়াল পাইল স্থাপনের কাজ চলছে। এর জন্য ২হাজার ৪শটন ওজনের জার্মানী হ্যামার ইনস্টল করা হয়েছে। সেতুর ৭ নম্বর পিলারে।

এর আগে শুরু হয়েছে টেস্ট পাইল,কনস্ট্রাকশন ট্রায়াল পাইল স্থাপন শেষ হবে এ মাসের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে। পদ্মা সেতুর নির্বাহী (মূল সেতু) প্রকৌশলী দেওয়ান আব্দুল কাদের সাংবাদিকদের বলেন, কনস্ট্রাকশন ট্রায়াল পাইল স্থাপনের মধ্য দিয়ে সেতুর কাজ অনেকটাই এগিয়েছে। তিনি আরো জানান, মূল সেতুর ১৩.৫৫ শতাংশ কাজ শেষ হয়ে গেছে। ৪২টি পিলারের ওপর ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ , এ পিলারগুলো ১৫০ মিটার পর পর বসবে। এ ছাড়া দুই পারে দেড় কিলোমিটার করে মোট তিন কিলোমিটার সংযোগ সেতুর জন্য আরো ২৪টি পিলার হবে। মূল সেতুর ৪০টি পিলারে ছয়টি করে ২৪০ এবং দুই পারের ১২টিতে দুটি করে ২৪টি অর্থাৎ সর্বমোট ২৬৪টি পাইল বসাতে হবে। সেতুর কাজ নির্ধারিত কর্মপরিকল্পনা অনুযায়ী ভাঙন প্রতিরোধ করে চলছে । পদ্মা বহুমুখী সেতুর ওপরের তলায় থাকবে চার লেনের মহাসড়ক ও নিচে রেললাইন ট্রেনের গতি হবে ঘণ্টায় ১৬০ কিলোমিটার। থাকবে গ্যাস ও বিদ্যুৎ লাইন। প্রতিরোধ বেষ্টনীতে কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ড।

সেতু এলাকার প্রায় দুই কিলোমিটার দূওে রয়েছে কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ড । এ ইয়াডে আছে প্রায় এক কিলোমিটার লম্বা ১টি ওয়ার্কশর্প, সেখানে তৈরি হচ্ছে পাইল। গতকাল সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডে গত ২৪আগষ্ট থেকে থেমে থেমে ৯দিনের মাথায় নদীভাঙন বন্ধ হয়েছে। গত শুক্রবার পদ্মার পানি ছিল স্থিতিশীল। পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, সহসা পানি বাড়ার আশঙ্কাটাও নেই। পানি বাড়লেও আর ভাঙন দেখা দেবে না। কারণ এবার শক্ত প্রতিরোধব্যবস্থা গড়ে তোলা হচ্ছে। গত বৃহস্পতিবার থেকে কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডের দক্ষিণ ও পশ্চিম অংশে বালুভর্তি জিও ব্যাগ ফেলা হয়েছে। জানাগেছে ৬৮ হেক্টর জমির ওপর কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডটি নির্মাণ করা হয়েছে। ভাঙন রোধে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। সব মিলিয়ে সাড়ে পাঁচ লাখ বালুভর্তি জিও ব্যাগ ফেলার কাজ হাতে নেওয়া হয়েছে।

এ পর্যন্ত সাড়ে তিন লাখ ব্যাগ ফেলা হয়েছে। নতুন করে আর কোনো ভাঙন দেখা দেয়নি। তবে এটি খুব বড় ভাঙন নয়। এতে সেতুর মূল কাজে কোনো বাধার সৃষ্টি হয়নি। মূল কাজ শিডিউল অনুযায়ীই এগিয়ে চলছে। এ পর্যন্ত মূল সেতুর ১৩.৫৫ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে জেলা প্রশাসক মোঃ সাইফুল হাসান বাদল বলেন, নদীভাঙন একটি প্রাকৃতিক বিষয়। তা প্রতিরোধ করা হচ্ছে। বর্ষার পর নদীশাসনের মূল কাজ শুরু হবে গত বছরের ১১ নভেম্বর চীনা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সিনো-হাইড্রো করপোরেশনকে নদীশাসনের কার্যাদেশ দেওয়া হয়। এতে খরচ হবে আনুমানিক আট হাজার ৭০৭ কোটি ৮১ লাখ টাকা। মাওয়া ও জাজিরা অংশে সাড়ে ১৩ কিলোমিটার অংশে নদীশাসনের কাজ করবে তারা।

গত বছরের ১৩ অক্টোবর প্রকল্পের মূল সেতু ও নদীশাসনের কাজ তদারকির জন্য পরামর্শক প্রতিষ্ঠান হিসেবে দক্ষিণ কোরিয়া প্রতিষ্ঠান কোরিয়ান এক্সপ্রেসওয়ে করপোরেশনকে নিয়োগ করা হয়েছে। সিনো-হাইড্রোর প্রকৌশলীদেও তথ্য মতে, মাওয়া ও জাজিরায় প্রাথমিক কাজ এগিয়ে রাখা হয়েছে। ১৫ সেপ্টেম্বরের পর নদীশাসনের মূল কাজ শুরু হবে। জাজিরায় ব্লক তৈরির কাজ চলছে জিও ব্যাগও আনা হয়েছে। প্রাথমিক কাজ শেষ করা হয়েছে, বর্ষার পর দৃশ্যমান হবে অগ্রগতি।

মন ভাঙবে না, কাজ চলবে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘পদ্মার ভাঙনে মূল সেতু নির্মাণে ক্ষতির কোনো আশঙ্কা নেই। এই ভাঙন আমাদের কাজের ধারাকে ব্যাহত করতে পারবে না। আমাদের মনও ভাঙতে পারবে না। কাজ যথারীতি চলবে। কাজের শিডিউল ভেঙে পড়ার কোনো আশঙ্কা নেই।

মন্ত্রী গত সোমবার নদীভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত লৌহজং উপজেলার কুামারভোগ কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ড পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন নির্ধারিত কর্মপরিকল্পনা অনুসারেই কাজ চলছে। ভাঙন ঠেকানোর ব্যবস্থা জোরদার করা হচ্ছে। ইতি মধ্য মাওয়া এলাকায় দুই কিলোমিটার নদীশাসন করা হবে।

বিডিলাইভ

Leave a Reply