পাখি: কাঠঠোকরার ছানা

মুজাহিদুল ইসলাম: ভারী বর্ষণের সঙ্গে ছিল ঝোড়ো হাওয়া, আমগাছটার মরা-পচা ডালখানা তাই ভেঙে পড়ল নিচের কাদামাটিতে। বেশ মোটা ওই ডালখানা ঘাড়ে ফেলে বাড়িমুখো রওনা দিলেন গাছটির মালিক। চেলা করে এটার কাঠ দিয়ে অনায়াসে চার দিনের রান্নার কাজ চলে যাবে। কয়েক পা মাত্র ফেলেছেন, তখন তাঁর কানে ভেসে এল গোখরা সাপের ফোঁসফোঁসানি, অমনি চিৎকার দিয়ে ঘাড়ের ডালখানা ফেলে ছিটকে গেলেন পাঁচ-সাত হাত দূরে। হ্যাঁ, ডালখানার ভেতর থেকেই আসছে গোখরার ফোঁসফোঁসানি! ‘সাপ সাপ’ বলে চেঁচামেচি। লাঠিসোঁটা হাতে পাড়াপ্রতিবেশীদের উত্তেজিত আগমন। গ্রামের বৃদ্ধ মাহতাব মোল্লা ভিড় ঠেলে এগিয়ে গিয়ে বললেন, ভয় পাসনে তোরা। কুড়োল আন। সাবধানে ডালখানা ফেড়ে ফেল। তাই করা হলো। ওমা! গর্তের ভেতর দেখি তিনটি কাঠঠোকরার বাচ্চা! মাহতাব মোল্লা বললেন, কাঠঠোকরা আর বসন্তবাউরির বাচ্চারা বিপদ আঁচ করলে বা খাবার মুখে মা-বাবা বাসায় এসেছে বুঝলে ফাঁপা খোলের ভেতরে সম্মিলিত কণ্ঠে যে আওয়াজ তোলে, তাকে মানুষ ও পাখিখেকো বন্য প্রাণীরা গোখরার ফোঁসফোঁসানি বলেই মনে করবে, এটা ছানাদের আত্মরক্ষার একটা কৌশল।

কাঠঠোকরার ছানা। সিরাজদিখান থেকে তোলা ছবি l

এ রকম ফোঁসফোঁসানি আমি জীবনে প্রথম যেবার শুনেছিলাম, তখন গোলাপজামগাছ থেকে পড়ে গিয়েছিলাম ভয়ে। তারপর আরও বহুবার যেমন শুনেছি, তেমনি দেখেছি ওরকম অনেক ঘটনা। বছর কয়েক আগে মুন্সিগঞ্জ জেলার সিরাজদিখানের একটা গ্রামে দেখেছিলাম একটি মাত্র কাঠঠোকরার ছানাকে, গাছটির ডাল কেটে ফেলেছিেলন গাছের মালিক। পাঁচটি ছানার চারটিই ডালপতনের ধাক্কায় অক্কা পেয়েছিল। বেঁচে যাওয়া ছানাটিকে আমরা ওই কাটা ডালের অবশিষ্টাংশে বসিয়ে দিয়েছিলাম। অবাক হয়ে দেখলাম, মা-বাবা পাখি এদিক-ওদিক উড়ে-বসে বারবার ছানাটিকে পালানোর সংকেত দিচ্ছিল। ছানাটি তো উড়তে শেখেনি তখনো। মা-বাবা পাখি অতঃপর ওখানেই এসে ছানাটিকে খাওয়ানো শুরু করল।

এই কাঠঠোকরার নাম চিত্রিতগলা কাঠঠোকরা বা সবুজ ডোরা কাঠঠোকরা। ফকিরহাট অঞ্চলে এটিকে কেউ কেউ ‘শালিক কাঠকুড়ুল্লে’ বলে। ইংরেজি নাম Streaked-throated woodpecker। বৈজ্ঞানিক নাম picus xanthopygacus। শরীরের মাপ ৩০ সেন্টিমিটার। ওজন ১০০ গ্রাম। এদের মাথা পিঠ হলুদাভ সবুজ। বুক-পেট ও গলা বাদামি ডোরা ও ছিট-ছোপে চিত্রিত। ডানার প্রান্তের পালক সাদা-কালো রঙে চিত্রিত। পুরুষটির মাথার চাঁদি লাল, মেয়েটির বেলায় কালো। ধূসরাভ পা, হলুদাভ ঠোঁট। চোখের ওপর দিয়ে যেন চন্দনের তিলকরেখা টানা।

এদের প্রিয় খাদ্য উইপোকার ডিম। অন্যান্য পোকামাকড় খায়, গাছের বাকলে লুকানো রসাল পোকা এবং ওদের শূককীট-মূককীট খায়। ঠোঁট দিয়ে গাছ ফুটো করে ফেলে। খাবারের সন্ধানে মাটিতেও নামে। তাল-খেজুরের রস এদের অতি প্রিয় পানীয়।

গাছের খোঁড়লে-কোটরের বাসায় ডিম পাড়ে তিন থেকে ছয়টি। দুজনেই পালা করে তা দেয় ডিমে। বাচ্চা ফোটে ১২-১৫ দিনে। শুধু কাঠঠোকরা প্রজাতিরা নয়, কোটরবাসী সব ধরনের পাখিই বাসা বাঁধার সংকটে ভুগছে প্রবলভাবে। বড় বড় গাছ বিক্রি হয়ে যাচ্ছে। আজকাল আর মরা তাল-খেজুর-নারকেলগাছ দেখাই যায় না বলতে গেলে; তারপরে গাছবিক্রেতা ও ক্রেতারা যদি বেচাকেনা ও কাটার আগে একটু পরখ করে নেন যে, গাছের কোটরে কোনো পাখির ডিম-ছানা আছে কি না, তাহলে বড়ই উপকার হয় পাখিদের।

এই প্রজাতির দেখা দেশের সব জায়গায়ই মেলে। তবে সংখ্যায় কম।

প্রথম আলো

Leave a Reply