শ্রীনগরে শিক্ষিকাকে পিটিয়ে শিক্ষক শ্রীঘরে

আরিফ হোসেন: শ্রীনগরে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক শিক্ষিকাকে পিটিয়ে শ্রীঘরে গেছেন অপর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক শিক্ষক। ওই শিক্ষক ও শিক্ষিকা সম্পর্কে স্বামী-স্ত্রী। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার কামার গাও এলাকায়। পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, কামারগাও চৌধুরী বাড়ি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক দুলাল মৃধা (৩৮) চার বছর আগে পারিবারিক ভাবে পাশ্ববর্তী আ: বারী খা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা জাকিয়া সুলতানা (৩১) কে বিয়ে করে। বিয়ের পর তাদের কোল জুড়ে জাইফা (২) নামে এক কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। সন্তান জন্মের পরপরই দুলাল মৃধা বিভিন্ন সময় জাকিয়ার কাছে যৌতুকের জন্য চাপ দিতে থাকে।

এনিয়ে দুলাল মৃধা বিভিন্ন সময় জাকিয়াকে শারীরীক ভাবে নির্যাতন করে। প্রায় সাত মাস পূর্বে জাকিয়া নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে তার বাবার বাড়ীতে চলে আসে। পরে উপজেলা শিক্ষক নেতারা উপজেলা শিক্ষা অফিসে বসে সালিশ মিমাংসা করে জাকিয়াকে তার স্বামীর সংসারে ফেরত পাঠান। তিন মাস আগে দুলাল মৃধা যৌতুকের দাবীতে ফের বেপরোয়া হয়ে উঠে। সর্বশেষ পাচ দিন আগে রাতের বেলা দুলাল মৃধা জাকিয়াকে পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। গুরুতর অবস্থায় জাকিয়াকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

পরে জাকিয়া সুলতানা তার স্বামী, শাশুড়ীসহ ৬ জনকে আসামী করে শ্রীনগর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। গত পরশু দিন শ্রীনগর থানা পুলিশ দুলাল মৃধাকে গ্রেপ্তার করে আদালতে প্রেরণ করে। জাকিয়া সুলতানার ভাই জুয়েল অভিযোগ করেন, দুলালকে গ্রেপ্তারের পর থেকে এরপর উপজেলা শিক্ষক সমিতির কয়েকজন নেতা ও স্থানীয় প্রভাবশালী কয়েকজন তাদেরকে মামলা উঠিয়ে নেওয়ার জন্য চাপ দিচ্ছেন। অন্যথায় জাকিয়া কিভাবে চাকুরী করে তা তারা দেখে নিবেন বলে হুমকি দিচ্ছে।

Leave a Reply