বিস্তীর্ণ খাসজমি প্রভাবশালীদের দখলে!

মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া উপজেলায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশের বিস্তীর্ণ খাসজমি প্রভাবশালী মহল দখল করে নিয়েছে। এসব জমি মাটি দিয়ে ভরাটও করা হচ্ছে। দখলদারদের মধ্যে একাধিক পত্রিকার মালিকও রয়েছেন। এ কারণে তাঁদের বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষেরা কথা বলতে সাহস পাচ্ছেন না।

গতকাল সোমবার বেলা ১১টার দিকে মুন্সিগঞ্জ জেলা প্রশাসকের সভাকক্ষে জেলা আইনশৃঙ্খলা রক্ষা কমিটির মাসিক সভায় মুন্সিগঞ্জ-৩ আসনের সাংসদ মৃণাল কান্তি দাস এসব কথা বলেন।

সভায় সাংসদ মৃণাল কান্তি বলেন, ‘ভূমিদস্যুরা সরকারি জমি (খাসজমি) দখল ছাড়াও জনগণের কাছ থেকে জোর করে জমি নিয়ে নিচ্ছে বলে আমার কাছে অনেকে অভিযোগ করেছেন।’

কমিটির সদস্যদের দেওয়া বক্তব্যের প্রেক্ষাপটে মাদক বিস্তার সম্পর্কে সাংসদ বলেন, ‘মাদক বিক্রেতা ও অবৈধ দখলবাজ যে-কেউ হোক না কেন, তার বিরুদ্ধে পুলিশ ও প্রশাসন ব্যবস্থা গ্রহণ করলে এ সভার মাধ্যমে প্রতিজ্ঞা করছি, আমি অন্তত এসবের পক্ষ নেব না।’

এ ছাড়া সিপাহীপাড়া চৌরাস্তাসহ জেলা শহরে বিভিন্ন স্থানে সরকারি জমি দখলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কমিটির সদস্যরা অনুরোধ করেন। শহর রক্ষা বাঁধকে দখলমুক্ত করে সেখানে বিনোদনকেন্দ্র গড়ে তোলার জন্যও দাবি জানান তাঁরা।

অতিরিক্ত জেলা হাকিম এ কে এম শওকত আলম মজুমদারের সভাপতিত্বে সভায় অন্যদের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন সিভিল সার্জন শহিদুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবদুল হালিম, মুন্সিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র এ কে এম ইরাদত, মিরকাদিম পৌরসভার মেয়র শহীদুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি তোফাজ্জাল হোসেন, জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক কুতুবুদ্দিন আহমেদ, জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক নাসিমা আক্তার প্রমুখ।

কারা খাসজমি দখল করে নিয়েছে, এ বিষয়ে কারও না উল্লেখ করেননি সাংসদ। তবে গতকাল বিকেলে মুঠোফোনে জানতে চাইলে গজারিয়া উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ফারজানা জামান বলেন, উপজেলার বালুয়াকান্দি এলাকায় একটি টিস্যু তৈরির কারখানা কর্তৃপক্ষ ৩৫ শতাংশ সরকারি জমি দখল করেছে। ওই জমি ছেড়ে দিতে প্রায় দুই মাস আগে তিনি কারখানা কর্তৃপক্ষকে নোটিশ পাঠান। কিন্তু এখন পর্যন্ত ওই নোটিশের কোনো জবাব দেওয়া হয়নি। দখল করা জমি ছেড়েও দেয়নি। এই প্রেক্ষাপটে শিগগিরই উচ্ছেদ অভিযান শুরু করা হবে বলে জানান ফারজানা জামান।

প্রথম আলো

Leave a Reply