টঙ্গিবাড়ীতে গ্রামছাড়া হিন্দু পরিবার

ইউপি চেয়ারম্যানের নির্যাতন
মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী উপজেলার যশলং ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আবু ছালাম সেখের নির্যাতনের শিকার হয়ে এক হিন্দু পরিবার গ্রামছাড়া হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় মামলা করা হয়েছে।

সূত্র জানায়, গত ১ অক্টোবর চেয়ারম্যান আবু ছালাম সেখের (৫৫) নেতৃত্বে তাঁর শ্যালক আলমগীর এবং দুই ছেলে শাহ মোয়াজ্জেম ও মোশাররফ যশলং গ্রামের একমাত্র হিন্দু পরিবারটির ওপর হামলা চালায়। এতে ওই পরিবারের নিরঞ্জন বিশ্বাস (৬০), কাজল রাণী (৫২), তাঁদের মেয়ে সুবর্ণা বিশ্বাস (১৮), সুচিত্রা বিশ্বাস (১৫), দিপালী রাণী (২৫) ও মিন্টু বিশ্বাস (৩৫) গুরুতর আহত হন। নিরঞ্জন বিশ্বাস এখনো গুরুতর আহত অবস্থায় মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এ ঘটনায় নিরঞ্জন বিশ্বাসের ছেলে শুভ বিশ্বাস বাদী হয়ে চেয়ারম্যানসহ ছয়জনকে আসামি করে টঙ্গিবাড়ী থানায় মামলা করেন। পরে মামলার পাঁচ আসামি জামিন নিয়ে হুমকিধমকি দেওয়ায় ওই পরিবার এখন আত্মগোপনে রয়েছে। আসামিদের হুমকির কারণে পরিবারটি গৃহপালিত পশুপাখিগুলো নিয়ে যেতে সাহস পাচ্ছিল না। পরে এক নৌচালককে দিয়ে পশুপাখিগুলো নেওয়া হয়।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, পরিবারটির সদস্যদের বসবাসের তিনটি ঘর তালাবদ্ধ। বাড়িতে কোনো লোক নেই। শুভ বিশ্বাস বলেন, ‘চেয়ারম্যান দীর্ঘদিন ধরে আমাদের বাড়িটি জোর করে দখল নিতে চেষ্টা করছিলেন। এ কারণেই তাঁর নেতৃত্বে আমার পরিবারের ওপর হামলা করে। আমার বাবার মাথা ফাটিয়ে পরে তাঁকে পানিতে চুবিয়ে হত্যার চেষ্টা করেন তিনি।’

সূত্র জানায়, নিরঞ্জন বিশ্বাসের বাড়ির পাশের বাড়িটি এক বছর আগে ক্রয় করেন ইউপি চেয়ারম্যান আবু ছালাম। এরপর ছালামের দৃষ্টি পড়ে নিরঞ্জন বিশ্বাসের বাড়ির জমির ওপর। এরপর ছালাম তাঁর শ্যালক আলমগীর হাওলাদারকে থাকতে দেন তাঁর কেনা বাড়িতে। তুচ্ছ বিষয় নিয়ে চলতে থাকে নিরঞ্জন বিশ্বাসের পরিবারের ওপর নির্যাতন। গত ১ অক্টোবর ইট নেওয়া নিয়ে নিরঞ্জনের বাড়িতে গিয়ে পরিবারের সদস্যদের ওপর হামলা চালায় ও মেয়েদের শ্লীলতাহানি করে চেয়ারম্যানের লোকজন।

চেয়ারম্যান আবু ছালাম বলেন, ‘আমার শ্যালকের সঙ্গে পাশের হিন্দু পরিবারটির মারামারি হয়েছে। ওই সময় আমি বাড়ি ছিলাম না।’ টঙ্গিবাড়ী থানার ওসি আলমগীর হোসাইন জানান, মামলার পাঁচ আসামি আদালত থেকে জামিনে রয়েছে। মামলার তদন্ত চলছে।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply