জাপানঃ বিসিসিআইজে নির্বাচন ২০১৫ মনোনয়নপত্র জমা

রাহমান মনিঃ অত্যন্ত আনন্দঘন, সৌহার্দ্যপূর্ণ ও উৎসবমুখর পরিবেশে বণিক শ্রেণির সংগঠন বিসিসিআইজে (বাংলাদেশ চেম্বারস অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ ইন জাপান) নির্বাচনে প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ীগণ তাদের মনোনয়নপত্র জমা দেন। মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার সময় প্রার্থীদের সঙ্গে সমর্থনকারী এবং সমর্থক ছাড়াও সাধারণ সদস্য ও প্রবাসীরা উপস্থিত ছিলেন। অনেকটা বাংলাদেশের নির্বাচনের আদলে প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র জমা দেন। বিসিসিআইজে প্রতিষ্ঠা পাবার পর এই প্রথমবারের মতো নির্বাচন হতে যাওয়ার উৎসাহে যেন ভিন্ন মাত্রা পায়। দুই বছরের জন্য নির্বাচিত কমিটি অনুমোদন পাবে।

১৭ অক্টোবর ২০১৫ টোকিওর কিতা সিটি আকাবানে কাইকানে মনোনয়নপত্র জমা দেয়া হয়।

নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী এই দিন ছিল মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার নির্দিষ্ট দিনক্ষণ। সাত সদস্য বিশিষ্ট নির্বাচন কমিশনের সব সদস্য এই দিন উপস্থিত থেকে বিভিন্ন যাচাই-বাছাইয়ের পর সবার মনোনয়নপত্র জমা নেন। প্রাথমিক যাচাইয়ে সবার প্রার্থিতা বৈধ বলে গণ্য করা হয়। প্রধান নির্বাচন কমিশনার জহির প্রার্থীদের এবং মিডিয়াকে জানান, প্রাথমিকভাবে সবার প্রার্থিতাপত্র বৈধ হিসেবে গ্রহণ করা হয়েছে। আরও খুঁটিনাটি যাচাই-বাছাইয়ের পর পরবর্তী করণীয় বিসিসিআইজে অফিসিয়াল ওয়েবসাইটের মাধ্যমে জানানো হবে এবং মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন পূর্ব ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী ২৫ অক্টোবর যথারীতি বলবৎ থাকবে। এই ব্যাপারে তিনি সবার সহযোগিতা একান্তভাবে কামনা করেন।

মনোনয়নপত্র জমাদানকারী বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, পদ্মা কো. লিমিটেডের কর্ণধার বাদল চাকলাদার ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে নির্বাচন সংক্রান্ত যে কোনো ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দিয়ে বলেন, নির্বাচন কমিশনের তফসিল মেনে আপনাদের প্রতি সম্মান জানিয়ে এবং তফসিল অনুযায়ী আমরা মনোনয়নপত্র জমা দিলাম। একটি সুষ্ঠু নির্বাচন আয়োজনে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে সব ধরনের সহযোগিতাই আপনারা পাবেন।

মনোনয়নপত্র জমাদানকারী বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হাট (HAT) কো. লিমিটেডের ম্যানেজিং ডিরেক্টর হাকিম মো. নাসিরুল বলেন, বিসিসিআইজে প্রতিষ্ঠা পাবার পর থেকে আমাদের বড় অর্জন আগামী ২৭ নভেম্বর প্রথমবারের মতো নির্বাচনের আয়োজন করতে পারা। এই অর্জনকে কাজে লাগাতে হবে। সেই সঙ্গে বাংলাদেশ ও প্রবাসী বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের স্বার্থে আমরা সব ধরনের সহযোগিতাই করব। আমরা চাই নির্বাচিত একটি কমিটি। নির্বাচনে যে-ই জয়লাভ করুন না কেন আমাদের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। একটি সুষ্ঠু নির্বাচন পরিচালনা করতে পারলে আপনারাও বিসিসিআইজে ইতিহাসে অমর হয়ে থাকবেন। স্বর্ণাক্ষরে নাম লেখা হবে।

এ সময় নির্বাচন কমিশনের অন্য সদস্যবৃন্দও উপস্থিত ছিলেন। সব প্রকার স্বচ্ছতার জন্য প্রবাসী মিডিয়াকর্মীদের জন্য মনোনয়নপত্র জমা নেয়া প্রক্রিয়ার দ্বার উন্মুক্ত ছিল।
উল্লেখ্য, ৮ বছর পূর্বে বিসিসিআইজে প্রতিষ্ঠা পাবার পর একটি পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করার জন্য এই প্রথমবারের মতো একটি সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। গোপন ব্যালটের মাধ্যমে সদস্যরা ১১ জনকে বেছে নিবেন তাদের প্রতিনিধিত্ব করার জন্য। এই জন্য জাপান প্রবাসী ব্যবসায়ীদের মধ্যে এক ধরনের উদ্দীপনা কাজ করছে। এর আগে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়া হলেও তা আর আলোর মুখ দেখেনি।

সর্বশেষ ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৫ আকাবানে কাইকানে অনুষ্ঠিত হয় একটি সাধারণ সভা। গঠনতন্ত্র অনুসারে সাধারণ সভা হচ্ছে সংগঠনের সব ক্ষমতার অধিকারী। এখানে গৃহীত প্রতিটি পদক্ষেপই সব সদস্যদের মেনে চলতে হয়। ১৪ সেপ্টেম্বরের সাধারণ সভায় প্রথমবারের মতো নির্বাচন আয়োজনের জন্য সবাই ঐকমত্যে পৌঁছান এবং প্রথম নির্বাচন হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ এবং ভোট গ্রহণ প্রদান ক্ষমতার নিয়মাবলি কিছুটা শিথিল করা হয়। সর্বসম্মতিক্রমেই এই সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এর কারণে সদস্য সংখ্যা ১৮২ থেকে ৩২৩ জনে উন্নীত হয়। অর্থাৎ নিবন্ধনকৃত সব ব্যবসায়ীকেই নির্বাচন সংক্রান্ত কর্মসূচিতে অংশ নেয়ার সুযোগ দেয়া হয়। সংগঠনের স্বার্থে এবং ব্যবসায়ীদের উৎসাহিত করার জন্য এ প্রস্তাব পাস করা হয়।

একটি সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠান পরিচালনার জন্য সাধারণ সভায় ৭ সদস্যবিশিষ্ট একটি নির্বাচন কমিশনও গঠন করা হয় এবং আগামী ২৭ নভেম্বর ২০১৫ নির্বাচনের দিন ধার্য করে ওই দিনই নির্বাচন অনুষ্ঠান আয়োজনের বাধ্যবাধকতা বেঁধে দেয়া হয়।

সাধারণ সভায় মো. জহিরকে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ঘোষণা করা হয়। নির্বাচন কমিশনের অন্য সদস্যরা হলেন জিয়াউল ইসলাম, হাফেজ আলাউদ্দিন, সুনীল রায়, মো. মহসিন, এস রহমান বাবু এবং নন্দী কুমার। উপস্থিত সদস্যদের কাছ থেকে প্রস্তাবের ভিত্তিতেই এই কমিশন গঠন করা হয়।

দায়িত্ব পাবার পর নির্বাচন কমিশন একটি তফসিল ঘোষণা করেন। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে ইচ্ছুকদের ১৫ অক্টোবরের মধ্যে বিসিসিআইজে পরিচালিত নির্দিষ্ট ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ২ লাখ ইয়েন (অফেরতযোগ্য) জমা এবং জমাকৃত অর্থের রসিদ দেখিয়ে ১৭ অক্টোবর মনোনয়নপত্র জমা, ২৫ অক্টোবরের মধ্যে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের সুযোগ এবং ২৭ নভেম্বর নির্বাচনের দিন ধার্য করা হয় এবং প্রতিটি তারিখের সঙ্গে স্থান ও সময় বেঁধে দেয়া হয়।

তফসিল ঘোষণার পর থেকেই জাপান প্রবাসী ব্যবসায়ী সমাজে এক ধরনের উৎসাহ-উদ্দীপনা কাজ করতে থাকে। যা পরবর্তীতে উৎসবমুখর হয়ে ওঠে এবং এর রেশ পড়ে প্রবাসী সমাজেও। প্রায় প্রতিটি আয়োজনেই বিসিসিআইজে নির্বাচন নিয়ে আলাপ আলোচনা হতে থাকে।

নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা যায়, সাধারণ সভায় গৃহীত এবং তাদের ওপর ন্যস্ত দায়িত্ব পালনে তারা পিছ পা হবেন না। কারণ অনেক বাধ্যবাধকতা এই ক্ষেত্রে কাজ করছে। কাজেই অটল না থেকে উপায়ও নেই। ব্যবসায়ীরাও বিভিন্ন সহযোগিতা করছেন তাদের দায়িত্ব পালনে। তাই নীতিগতভাবেই আগামী ২৭ নভেম্বর নির্বাচন আয়োজনে তারা বদ্ধপরিকর। দৈব কোনো কারণ ব্যতিরেকে নির্বাচন তারিখ পরিবর্তনের কোনো সুযোগ নেই।

প্রবাসীদের কাছ থেকে জানা যায়, বিসিসিআইজে নির্বাচন নিয়ে তারাও বেশ উৎফুল্ল। নির্বাচন হোক এবং ব্যবসায়ীবান্ধব কমিটি গঠিত হোক এটাই প্রত্যাশা তাদের।
ভোটারদের সঙ্গে আলাপ প্রসঙ্গে জানা যায় তারা বেশ পুলকিত। একজন ব্যবসায়ী হিসেবে বণিক সমিতির নির্বাচনে ভোট প্রদান তাদের জন্য গৌরবের বলেই মনে করেন। তারা চান তাদের জন্য কাজ করবেন নির্বাচিত প্রতিনিধিরা। জাপানে আরও ৩৮টি দেশের বণিক সমিতি রয়েছে সরকারি হিসেবে। সেই সঙ্গে বাংলাদেশ যোগ হলে বাংলাদেশের মান ও মর্যাদা বৃদ্ধি পাবে। বিসিসিআইজের মাধ্যমে জাপান-বাংলাদেশ বাণিজ্য আরও বৃদ্ধি পাবে, বাংলাদেশে জাপানি প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠবে এটাই তাদের প্রত্যাশা।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply