ওসি লাঞ্ছিতর ঘটনায় ২৪ ঘন্টায়ও নাহিদ গ্রেফতার হয়নি

মোহাম্মদ সেলিম: ২৪ ঘন্টায়ও টঙ্গীবাড়ীর শীর্ষ ত্রাস যুবলীগ নেতা নাহিদ খানকে পুলিশ গ্রেফতার করতে পারেনি। তাকে টঙ্গীবাড়ীর কোথাও খুঁজে পুলিশ পায়নি। টঙ্গীবাড়ী থানার ওসি (তদন্ত) মেহেদী হাসানের ওপর শনিবার হামলার ঘটনায় মেহেদী হাসান বাদী হয়ে নাহিদ খানের বিরুদ্ধে টঙ্গীবাড়ী থানায় মামলা দায়ের করেছেন। টঙ্গীবাড়ীতে পুলিশের ওপর হামলা ঘটনায় এখানে প্রতি মুহূর্তে নাটকীয় ঘটনা ঘটছে।

পুলিশ নাহিদের খুঁজে টঙ্গীবাড়ী উপজেলা আ’লীগের সভাপতি জগলুল হালদার ভুতুর বাড়িতে হানা দিয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। এ বিষয়টি ভুতুর ইজ্জতে কালিমা পড়েছে বলে অনেকেই মনে করছে। এ কারণে টঙ্গীবাড়ীর পুলিশদের বদলি করতে ভুতু ঢাকায় অবস্থান করছেন বলে খবর চাউর হচ্ছে। টঙ্গীবাড়ীর সাংসদ হচ্ছেন সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি। তিনি বর্তমানে দেশের বাহিরে রয়েছেন। এর ফলে টঙ্গীবাড়ীর বিষয় নিয়ে ভুতু মুন্সীগঞ্জ ৩ আসনের সাংসদ মৃণাল কামিত্ম দাসের সাথে দেখা করেছেন বলে অনেকেই মনে করছেন।

রবিবার নাহিদের বৌভাত অনুষ্ঠান ছিল। এ ঘটনায় সেই অনুষ্ঠান পন্ড হয়ে গেছে।

টঙ্গীবাড়ী থানার ভেতরে শনিবার দুপুরে এক সালিশি বৈঠক চলাকালে যুবলীগ নেতার হাতে ওসি (তদন্ত) লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনায় তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ ঘটনার জের হিসেবে শনিবার রাতভর স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের বাড়ি বাড়ি পুলিশের সাড়াশি অভিযান চলে।

এ সময় উপজেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক কামরম্নল হাসান ওরফে মুক্তার খান, তার ভাগিনা যুবলীগ নেতা নাহিদ খান ও নাহিদের শ্বশুর আব্দুল আজিজের বাড়িতে পুলিশ ব্যাপক ভাঙচুর করে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শনিবার গভীর রাতে অভিযান চালানো হয় টঙ্গীবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জগলুল হালদার ভুতুর বাড়িতেও। বর্তমানে টঙ্গীবাড়ীতে অঘোষিত কারফিউ অবস্থা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রেনের লÿÿ বিভিন্ন স্থানে পুলিশের চেক পোস্ট বসানো হয়েছে।

এদিকে হট্টোগোলের মধ্যে ওই যুবলীগ নাহিদ খান চলে যাওয়ার পর ছাত্রলীগের এক নেতাকে মারধর করে পুলিশ। এ নিয়ে টঙ্গীবাড়ীর থানার পুলিশ ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ-ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা তীব্র উত্তেজনা জমে উঠে। টঙ্গীবাড়ী উপজেলা সদরে বর্তমানে থমথমে ভাব বিরাজ করছে।

টঙ্গীবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক মুক্তার খান জানান, শনিবার দুপুরে যশলংয়ের একটি বিরোধপূর্ণ বাড়ির ঝামেলা নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে ওসি (তদন্ত) মেহেদী হাসানের রুমে সালিশ বৈঠক বসে। এ সময় সেখানে উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান রাহাত খান রুবেল ও টঙ্গীবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি বাচ্চু মাঝি উপস্থিত ছিলেন। ওই দুই নেতার ছত্রছায়ায় বৈঠকে ওসি (তদন্ত) মেহেদী হাসান এক পক্ষকে কথা বলার সুযোগ না দিলে সেখানে হট্টগোলের সৃষ্টি হয়। পরে শনিবার বিকেল ৪টার দিকে ওসি আলমগীর ও ওসি (তদন্ত) মেহেদী হাসানের নেতৃত্বে ৩০-৪০ জনের একদল দাঙ্গা পুলিশ তার বাড়িতে ঢুকে ভাঙচুর চালায়। এরপর আবার রাত সোয়া ৯টার দিকে পুনরায় প্রবেশ করে বাড়িতে তান্ডব চালায়। এ সময় তার ছোট ভাই সোহেল খানকে পুলিশ আটক করে থানায় নিয়ে যায়। পরে আজ রোববার সকালে পুলিশ তাকে ছেড়ে দেয়।

তিনি আরও জানান, শনিবার রাত ১১ টার দিকে পুলিশ তার ভাগিনা যুবলীগ নেতা নাহিদ খানের বাড়িতে ঢুকে ভাঙচুরসহ বাড়িরঘর তছনছ করে। আজ রোববার নাহিদের বৌভাত ছিল। এরপর একই রাতে পুলিশ পুরাপাড়ায় নাহিদের শ্বশুর আব্দুল আজিজ দেওয়ানের বাড়িতে ঢুকে ভাঙচুর চালায়। গভীর রাতে তারা উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি জগলুল হালদার ভুতুর বাড়িতে অভিযান চালায়।

তিনি আরও বলেন, ওসি (তদন্ত) তদন্তের নামে এলাকার লোকজনকে থানায় এনে ফয়সালার নামে পক্ষ নিয়ে অর্থ আদায়সহ নানাভাবে হয়রানি করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

আহত ছাত্রলীগ নেতা জীবন কান্তি জানান, শনিবার দুপুরে টঙ্গীবাড়ী থানার অভ্যন্তরে জমি সংক্রান্ত শালিশ বৈঠক চলাকালে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) মেহেদী হাসান পক্ষালম্বন করায় প্রতিবাদ করেন যুবলীগ নেতা নাহিদ খান। এ তর্কবির্তকের এক পর্যায়ে ওসি (তদন্ত) ও যুবলীগ নেতা নাহিদ খানের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।

তিনি আরো জানান, যুবলীগ নেতা পুলিশের হাতে লাঞ্ছিত হওয়ার খবর পেয়ে টঙ্গীবাড়ী থানার কাছে গেলে এস আই ইব্রাহিম তার উপর অর্তকিত হামলা চালায়। টাকার বিনিময়ে ওসি (তদন্ত) বিচার পক্ষপাতিত্ব করেছে বলে শুনেছি।

ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা জানান, বিকেলে পুলিশের হাতে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জীবন কান্তি প্রহৃত হওয়ায় প্রতিবাদে যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা টঙ্গীবাড়ী উপজেলা সদরের পৃথক স্থানে প্রতিবাদ মিছিল করেছে।

টঙ্গীবাড়ী থানার এসআই সাখাওয়াত হোসেন জানান, যুবলীগ নেতা নাহিদ খান থানার ওসি (তদন্ত) মেহেদী হাসানকে মারধর করে দৌঁড়ে পালিয়ে যায়।

টঙ্গীবাড়ী থানার সেকেন্ড অফিসার নারায়ন চন্দ্র দাস জানান, এ ঘটনায় নাহিদকে আসামী করে ওসি (তদন্ত) মেহেদী হাসান বাদি হয়ে মামলা করেছেন।

পুলিশ সুপার বিপ্লব বিজয় তালুকদার জানান, আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। পুলিশের হামলার ঘটনা আমার জানা নেই।

বিক্রমপুর সংবাদ

Leave a Reply