রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেনকে সংবর্ধনা

রাহমান মনি: সম্প্রতি বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক ঘোষিত জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি হিসেবে নিয়োগপ্রাপ্ত জাপানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেনের বিদায় উপলক্ষে জাপান প্রবাসী বাংলাদেশ কমিউনিটির আয়োজনে এক সংবর্ধনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১ নভেম্বর টোকিওর কিতা সিটি তাকিনোগাওয়া কাইকানে আয়োজিত এ সংবর্ধনা সভায় বাংলাদেশ কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ, বিভিন্ন পেশাজীবী, সামাজিক-সাংস্কৃতিক, ব্যবসায়ী, রাজনৈতিক, সাংবাদিক অঙ্গনের বিশিষ্টজনরা দলমত নির্বিশেষে সবাই উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই অতিসম্প্রতি ঢাকায় জাগৃতি প্রকাশনীর কর্ণধার ফয়সল আরেফিন দীপন হত্যাকাণ্ডে ক্ষোভ প্রকাশ ও পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা ও নিহতের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দাঁড়িয়ে ১ মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। এরপর কমিউনিটির পক্ষ থেকে মাসুদুর রহমান মাসুদ ও কাজী এনামুল রাষ্ট্রদূত এবং ববিতা পোদ্দার ও সোমা রোমানা রাষ্ট্রদূত পতœীকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে একে একে ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়ে রাষ্ট্রদূতের প্রতি প্রবাসীদের ভালোবাসা জানানো হয়। ব্যতিক্রম ছিল ওয়ারাবী ওয়েলফেয়ারের সভাপতি আলহাজ আশরাফুল ইসলাম শেলী কর্তৃক শুভেচ্ছা জানানো। তিনি জাপানে ক্রিকেট খেলায় রাষ্ট্রদূতের উৎসাহ প্রদানের একটি ছবি ফ্রেমে বেঁধে রাষ্ট্রদূতকে উপহার হিসেবে রাষ্ট্রদূতের হাতে তুলে দেন।

শুভেচ্ছা বক্তব্যে বক্তারা জাপানে দায়িত্ব পালনকালে রাষ্ট্রদূতের বিভিন্ন উদ্যোগের ভূয়সী প্রশংসা করেন। বিশেষ করে ২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জাপান সফরকালে এ যাবৎ কালের সবচেয়ে বড় অনুদান, আইটি সেক্টরে জাপানের বাজারে বাংলাদেশকে পরিচিত করানো এবং জাপানে বাংলাদেশ দূতাবাস ভবন নির্মাণে রাষ্ট্রদূতের নিরলস প্রচেষ্টার কথা প্রবাসীরা কৃতজ্ঞতা চিত্তে স্মরণ করিয়ে দেন।

বক্তারা বলেন, একজন রাষ্ট্রদূতের মেয়াদকালে (তিন বছর) তাও আবার একই বছর (২০১৪) উভয় দেশের রাষ্ট্রপ্রধান নির্বাহী কর্তৃক উভয় দেশ সফর (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জাপান সফর মে মাসে এবং জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে কর্তৃক বাংলাদেশ সফর সেপ্টেম্বর মাসে) অনন্য এবং বিরল একটি ঘটনা। যেটার কৃতিত্বের দাবিদার রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেনের। উক্ত সফরে দ্বিপক্ষীয় উন্নয়নসহ জাপানে প্রবাসীদের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হয়েছে।

প্রবাসীরা তার বিদায় যাত্রায় শুভ কামনা করে বড় পরিসরে (জাতিসংঘে স্থায়ী প্রতিনিধি হিসেবে) বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বলে কাজের অনুরোধ জানিয়ে তার এবং পরিবারের সবার সুস্বাস্থ্য, সুখী ও দীর্ঘায়ু জীবন কামনা করেন।

প্রবাসীদের ভালোবাসায় সিক্ত বিদায়ী রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন জাপান প্রবাসী কমিউনিটিকে চমৎকার একটি কমিউনিটি অভিহিত করে বলেন, জাপানে দায়িত্ব পালনকালে আপনাদের যে সহযোগিতা পেয়েছি তা ভোলার নয়।

২০১২ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর দূতাবাস মিলনায়তনে আপনাদের সঙ্গে প্রথম বসে যখন আপনাদের কথা শুনেছিলাম তখন একটি রোডম্যাপ করে কাজ শুরু করেছিলাম। এর সঙ্গে যোগ হয় এমআরপি। আজ পর্যন্ত সাড়ে ছয় হাজারেরও বেশি (৬,৬২৩টি) পাসপোর্ট আমরা দিতে পেরেছি। আগামী ২৪ নভেম্বরের আগেই বাকিগুলো সম্ভব হবে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমার ওপর আস্থা রেখে যে দায়িত্ব আমাকে দিয়েছেন আমি যেন সে দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করতে পারি সে দোয়া করবেন। এ বছর ডিসেম্বর মাসের মধ্যে অভিজাত এলাকাতে আপনাদের কাক্সিক্ষত দূতাবাস নিজস্ব ভবন তৈরি হয়ে যাবে এবং মার্চ/এপ্রিল থেকেই কাজ শুরু হবে নিজস্ব ভবনে। তিনি বলেন, আমাকে আপনারা যেভাবে সহযোগিতা করেছেন, আমার স্থলে যিনি আসবেন তাকেও আপনারা একইভাবে সহযোগিতা করবেন।

সংবর্ধনা শেষে রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেনের সৌজন্যে বাংলাদেশ কমিউনিটি আয়োজিত এক নৈশভোজে রাষ্ট্রদূত সস্ত্রীক, দূতাবাসের সব কর্মকর্তা-কর্মচারী সপরিবারে উপস্থিত থেকে অংশগ্রহণ করেন।

rahmanmoni@gmail.com
সাপ্তাহিক

Leave a Reply