‘স্বরলিপি’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

রাহমান মনি: হাঁটি হাঁটি পা পা করে এগিয়ে চলা স্বরলিপি কালচারাল একাডেমি টোকিও শিশু, বাল্যকাল, কৈশোর পেরিয়ে এখন যৌবনে পা দিয়েছে। এরই মধ্যে একে একে পার করেছে ২৩টি বছর। জাপানের মতো দেশে প্রবাস জীবনের ব্যস্ততম সময় পার করার পরও সংগঠন করা এবং সেই সংগঠন ২৩টি বছর চালিয়ে নেয়া সোজা কথা নয়। এ জন্য স্বরলিপিকে বিভিন্ন বন্ধুর পথ পাড়ি দিতে হয়েছে। ২৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে স্বরলিপির প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রধান উপদেষ্টা মুনশী কে. আজাদ তার শুভেচ্ছা বক্তব্যে স্বীকারও করে নিয়েছেন। আর এই কারণেই ২০০৯-২০১৩ এই পাঁচ বছর স্বরলিপি কোনো প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করতে পারেনি।

২৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন উপলক্ষে স্বরলিপি কালচারাল একাডেমি, টোকিও এক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। মনোমুগ্ধকর এই সাংস্কৃতিক সন্ধ্যায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন। শুভেচ্ছা বক্তব্য, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং সবশেষে নাটক দিয়ে ঢেলে সাজানো হয় পুরো অনুষ্ঠানটি।

১১ অক্টোবর টোকিওর কিতা সিটির তাকিনোগাওয়া কাইকান-এ আয়োজিত প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদ্যাপন শুভেচ্ছা বক্তব্য পর্বে বক্তব্য রাখেন একাডেমির প্রিন্সিপাল হাকিম মো. নাসিরুল, প্রধান উপদেষ্টা মুন্শী কে. আজাদ এবং রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন। পরিচালনায় ছিলেন তনুশ্রী গোলদার বিশ্বাস এবং মিজানুর রহমান শাহিন।

স্বরলিপির কাছে জাপান প্রবাসীদের প্রত্যাশাটা একটু বেশিই বলা যায়। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানটি দর্শকদের সেই আশা পূরণ করতে পেরেছে বলেই প্রতীয়মান হয়েছে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে একটু বেশিই দিতে পেরেছে বলে আমার ধারণা। বিশেষ করে সকল সদস্য এবং শিক্ষার্থীদের নিয়ে সমবেত উদ্বোধনী সংগীত, সোমা, রোশনী, কনক এবং নওরিন এর দলীয় নৃত্য (মেঘ কালো, আঁধার কালো গানটির সঙ্গে), তনুশ্রী এবং শাম্মীর কণ্ঠে কবিতা আবৃত্তি (কালো তা সে যতোই কালো হউক), মিষ্টি মেয়ে নওরিন হাকিমের কণ্ঠে গান (ডাকে পাখি, খোলো আঁখি) এবং জাপানি স্ত্রীদের নিয়ে প্রবাসীদের সমবেত গীত। স্ত্রীদের রেখে সমুদ্রে মাছ ধরতে যাওয়া এবং প্রতিকূল আবহাওয়ায় স্বামীদের কল্যাণ কামনায় স্ত্রীদের উৎকণ্ঠায় সৃষ্টিকর্তার কাছে প্রার্থনা (তোর বান্দা যখন হাত তুলেছে) জাপানিদের কণ্ঠে বাংলা গান এবং অভিনয় দর্শক মনে রাখবেন অনেক দিন। যেমনটি মনে রাখবেন বাদলের কণ্ঠে ‘মায়ের কান্দন যাবজ্জীবন’ গানটির কথা। এই সময় দর্শকসারিতে পিনপতন নিঃশব্দতা চলে আসে। অনেককে চোখ মুছতে দেখা গেছে। প্রবাস জীবনে সবচেয়ে বেশি মনে পড়ে প্রিয়জনদের। আর তা যদি হয় মা এবং মাটির কথা তাহলে দর্শকদের মনে রেখাপাত করে। প্রবাস জীবনে অনেকেই তার প্রিয়জনদের হারিয়েছেন স্বদেশে। মায়ের মৃত্যুর সময় কাছে থাকা বা একমুঠো মাটি কবরে দেয়া থেকে বঞ্চিত হয়েছেন অনেকেই। আবার মায়ের অসুস্থতার কথা জেনেও কাছে থেকে সেবা দেয়া থেকে বঞ্চিত থাকেন শত ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও। তাই গানটি দর্শক হৃদয়ে নাড়া দিয়েছে। বাদলও দরদ দিয়ে গানটি গেয়েছেন।

শাম্মীর কণ্ঠে রবীন্দ্রসংগীত, মাহ্দি মাসুম হিমুর কণ্ঠে আধুনিক গান ‘তুমি কি দেখেছো কভু’, তানভীর আহমেদের কণ্ঠে ‘কেন দূরে থাকো’ গানগুলোর বাছাই ছিল ভালো এবং দর্শক হৃদয়ে দাগ কেটেছে। কলির কোরিওগ্রাফিতে এবং রেনু আজাদ, তনুশ্রী বিশ্বাস ও সোমা রুমানার পরিচালনায় শিশুদের নৃত্য পরিবেশনাটি ছিল উপভোগ্য। মনে হয়েছে একঝাঁক দেবশিশু কিংবা স্বর্গ থেকে পরীরা দর্শকদের জন্য উপহার নিয়ে এসে এবং তা দিয়ে দর্শক হৃদয় ভরিয়ে দিয়েছে। নতুনত্ব ছিল কলি, তানভীর এবং রানার পরিবেশনাটিও। নৃত্যশিল্পী হিসেবে কলি ইতোমধ্যেই দর্শক হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছেন। এখন শিক্ষিকা হিসেবে তিনি যোগ্যতার স্বাক্ষর রেখে চলেছেন। ২৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীকে তা আরও একধাপ এগিয়ে নিয়েছেন তিনি।

ঢালীবাবু, সোমা, মুহিত, শাম্মী সবসময়ই ভালোটি করে থাকেন। সেই সঙ্গে রোশনী, হিমু, কনক নতুন মাত্রা এনেছে স্বরলিপিতে।

অনুষ্ঠানের তৃতীয় পর্ব অর্থাৎ নাটক পর্বে যাওয়ার পূর্বে অনির্ধারিত একটি পর্বে জাপানস্থ বাংলাদেশ রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেনকে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক অতি সম্প্রতি জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি হিসেবে নিয়োগ ঘোষিত হওয়ায় অভিনন্দন জানিয়ে স্বরলিপির পক্ষ থেকে একটি সম্মাননা স্মারক ও মানপত্র প্রদান করা হয়। মানপত্রটি পাঠ এবং প্রদান করেন প্রিন্সিপাল হাকিম মো. নাসিরুল এবং সম্মাননা ক্রেস্ট রাষ্ট্রদূতের হাতে তুলে দেন প্রধান উপদেষ্টা কে. আজাদ। এ সময় রাষ্ট্রদূতপতœী সোমা জাবিন পাশে ছিলেন। উভয়ে অনুভূতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন। এই পর্বে জুয়েল দর্শকদের অনেকগুলো কৌতুক উপহার দেন।

নাটক পর্বে হাকিম মো. নাসিরুলের রচনা ও নির্দেশনায় সমকালীন ঘটনা নিয়ে রম্য অথচ শিক্ষামূলক ‘ফরমালিন শিল্পীগোষ্ঠী’ নাটকটি মঞ্চস্থ হয়। নাটকে উন্মুক্ত মিডিয়ার প্রভাবে বিভিন্ন আধুনিক এবং উন্নত সংস্কৃতির সঙ্গে মন্দ এবং অপসংস্কৃতি বাংলাদেশের সংস্কৃতিতে প্রভাব ফেলে বর্তমান প্রজন্মকে বিপথে নিয়ে যাওয়া, নিজস্ব সংস্কৃতি বা ঐতিহ্যকে ত্যাগ করে যেকোনো জাতিই সমৃদ্ধ হতে পারে না, সেই দেশাত্ম বোধ এবং নিজস্ব সংস্কৃতির চেতনা বোধ জাগ্রত করার চেষ্টা করেছেন সুচারুভাবে। অনেকেই নাটকটির সঙ্গে হানিফ সংকেতের ইত্যাদিতে মামা ভাগ্নের মিল খুঁজলে পেতেও পারেন। তবে এই নাট্যকারের কিন্তু এটাই প্রথম নাটক নয়। ইতিপূর্বে ২০০৯ সালে সর্বশেষ তিনি ‘মোশি মোশি বিয়ে’ রচনা ও মঞ্চস্থ করে নিজ অবস্থানের কথা জানান দিয়েছিলেন। এবারও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি।

যদিও নাট্যকার, নির্দেশক, অভিনেতা, অভিনেত্রী সবাই শৌখিন, কেউ পেশাদার নয় বলে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখার জন্য অনুরোধ জানিয়ে ছিলেন। কিন্তু নাটকটি দেখার পর কোনোভাবেই মনে হয়নি যে তাতে কোনো সত্যতা ছিল। সবাই খুব ভালো করেছেন। বিশেষ করে দেলোয়ার মোল্লা, শেখ রানা, নাজমুল রতন, শেখ বাদল, সোমা রুমান, জুয়েল, শাহীন, আসলাম হিরা খুব ভালো করেছেন। বরিশালের আঞ্চলিকতার টানে কিছুটা দুর্বল থাকলেও সার্বিকভাবে তানভীরও ভালো করেছেন। অন্যান্য চরিত্রে অভিনয় করেছেন শাম্মী ও হিমু। দর্শকরা খুব উপভোগ করেছেন নাটকটি। সাম্প্রতিককালে বাংলাদেশে বিভিন্ন চ্যানেলে প্রচারিত অনেক নাটক থেকেই ফরমালিন শিল্পগোষ্ঠী নাটকটি যথেষ্ট উন্নতমানের বলে দর্শকসারি থেকে আওয়াজ শোনা গেছে, এখানেই সার্থকতা।

তনুশ্রী বিশ্বাসের সম্পাদনায় একটি স্মরণিকা প্রকাশিত হয়েছে ২৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ২০১৫ উপলক্ষে। স্মরণিকাটি আগের যেকোনো স্মরণিকা থেকে অনেক উন্নতমানের হলেও এখনও অনেক দুর্বলতা রয়ে গেছে। যেমন মুদ্রণজনিত এবং ছবি প্রকাশে। স্থান পাওয়া ছবিতে নিজেকেই নিজে চিনতে পারেননি অনেকেই। আর নামের ভুল কিন্তু একটি মারাত্মক ভুল। অনেক ঘাঁটাঘাঁটি করে এবং আকিকা কিংবা অনুষ্ঠানের মাধ্যমে নামের ঘোষণা দেয়া হয়ে থাকে। সেই ক্ষেত্রে কাজী আসগর আহমেদ সানি যদি আজগর আলী সানি হয়ে যায়, তা অমার্জনীয়। আর তিনি যদি হন প্রতিষ্ঠাতা সদস্য এবং প্রাক্তন সভাপতি সেই ক্ষেত্রে কষ্ট পাওয়া ছাড়া আর কিছুই করার থাকে না ভুক্তভোগীর।

ধন্যবাদ প্রদান কিংবা কৃতজ্ঞতা স্বীকার পর্বে স্বরলিপি বরাবরের মতোই উদাসীন। দিন দিন তা আরও প্রকট হয়ে উঠছে। অনেকটা গ্রাম্য প্রবাদের মতো ‘বয়স বাড়ার সাথে সাথে দোষও বাড়ছে।’ এবার যেন ধন্যবাদ প্রদান স্বরলিপির নিজ সদস্যদের মধ্যেই ভাগাভাগি করে নেয়া হয়েছে। স্মরণিকা থেকে ধন্যবাদ প্রদান পর্ব সবক্ষেত্রেই স্বরলিপি সদস্যদেরই প্রাধান্য দেয়া হয়েছে। অনেকটা আমরা আমরা-ই’র মতো।

বড় একটি অনুষ্ঠানে ভুলত্রুটি থাকবে এটাই স্বাভাবিক। ভুল সুধরে ভবিষ্যতে স্বরলিপি এগিয়ে যাবে এটাই প্রত্যাশা। সার্বিকভাবে স্বরলিপি সুন্দর, সার্থক এবং উপভোগ্য একটি অনুষ্ঠান উপহার দিতে পেরেছে এই জন্য স্বরলিপি অবশ্যই ধন্যবাদ পাবার যোগ্য। ধন্যবাদ স্মরলিপিকে। আরও ভালো’র প্রত্যাশায়।
rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply