পদ্মাপাড়ের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত

শেখ মো. রতন: হাইকোর্টের নির্দেশে শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি নৌ-রুটের পদ্মার তীরে গড়ে ওঠা বেড়িবাঁধ ও মাছের ঘেরসহ সব ধরনের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

গত ১০ নভেম্বর হাইকোর্ট থেকে এসব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে মাদারীপুর ও মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারকে আগামী ১৩ ডিসেম্বর আদালতে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

হাইকোর্টের ওই নির্দেশনা পেয়ে শিবচর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সানজিদা খানমের নেতৃত্বে কাওড়াকান্দি-শিমুলিয়া নৌরুটের পদ্মা নদীতে মঙ্গলবার বিকেলে পুলিশ অভিযান চালায়। ওই অভিযান এখনো চলছে।

মুন্সীগঞ্জের লৌহজং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জাকির ও মাদারীপুরের শিবচর থানার ওসি জাকির হোসেন জানান, ১০ নভেম্বর হাইকোর্টের আদেশের কপি হাতে পাওয়ার পর ওই দিন বিকেলে শিবচরের সহকারী কমিশনার সানজিদা খানমের নেতৃত্বে কাওড়াকান্দি-শিমুলিয়া নৌ-রুটের পদ্মা নদীতে অভিযান শুরু হয়। ওই দিন ঘটনাস্থল থেকে শফিকুল ইসলাম মাঝি (৫১), দীন ইসলাম (২২) ও হাবিুর রহমানকে (৩৫) গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এই দুই ওসি আরো জানান, এ সময় ১০০ মিটার কারেন্ট জাল ও ২৫টি মাছের ঘের তৈরির বাঁশ জব্দ করা হয়।

মুন্সীগঞ্জ ও মাদারীপুরের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে মুন্সীগঞ্জের মৎস্য অধিদপ্তরের জ্যেষ্ঠ সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান জানান।

এদিকে, মাছের ঘেরের মালিক খলিল ব্যাপারী বলেন, ‘পদ্মায় আমার একটি মাছের ঘের আছে। প্রশাসনের কারণে ঘের ওঠানোর সাহস পাচ্ছি না। হাইকোর্টের আদেশকে আমরা সম্মান জানাই। প্রশাসন আমাদের ১০ দিন সময় দিলেই নদী থেকে সব ধরনের বাঁধ ও মাছের ঘের উঠিয়ে নিয়ে যাব। কিন্তু পুলিশ-প্রশাসন আমাদের এসব উঠিয়ে নেওয়ার কোনো সুযোগ দিচ্ছে না। বরং গ্রেপ্তার করে নিয়ে যাওয়ার ভয় দেখাচ্ছে।’

পুলিশের মামলার ভয়ে রাতে বাড়িতেও ঘুমাতে পারছে না বলে কয়েকজন ঘের-মালিক রাইজিংবিডিকে জানান।

আরেক ঘের-মালিক শাহাজালাল মিয়া বলেন, ‘পদ্মায় মাছ ধরেই আমাদের জীবিকা নির্বাহ করতে হয়। এখন এই ঘের উঠিয়ে দিলে আমরা যাব কোথায়। তাই সরকারের কাছে দাবি আমাদের যেন বিকল্প কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়।’

গত ২৭ অক্টোবর একটি জাতীয় দৈনিকে ‘পদ্মায় বাঁশের দীর্ঘ বেড়া’ শীর্ষক সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশ করে। অবৈধ বাঁধের কারণে কাওড়াকান্দি-শিমুলিয়া নৌরুটের পদ্মায় চলাচলকারী ফেরি, লঞ্চ, স্পিডবোটসহ সব ধরনের নৌযান চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। ওই সংবাদ উল্লেখ করে পদ্মায় অবৈধ বাঁধ অপসারণের জন্য হাইকোর্টে একটি রিট করেন কামরুজ্জামান (কঁচি) নামের এক ব্যক্তি।

রাইজিংবিডি

Leave a Reply