দলীয় নেতাকর্মীরাই ডুবালো ধানের শীষকে

মোজাম্মেল হোসেন: বিএনপির দুর্গ হিসেবে পরিচিত মুন্সীগঞ্জ পৌরসভায় ধানের শীষের ব্যাপক ভরাডুবির ঘটনায় নিজ দলীয় নেতাকর্মীদের ভূমিকা ছিল প্রশ্নবিদ্ধ। মেয়র ও কাউন্সিলর পদে কেউই জয়ী হতে পারেননি এ পৌরসভায়। টানা দুইবার এ পৌরসভায় মেয়র পদটি ছিলো বিএনপির দখলে। পৌরসভার নয়টি ওয়ার্ডের মধ্যে কাউন্সিলর ছিলো ৫টি ও মহিলা কাউন্সিলর ছিলো ১টিতে। এবার ৮ নং ওয়ার্ডে শহর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শহীদুল ইসলাম ও ১নং ওয়ার্ডে ফরহাদ হোসেন আবির কাউন্সিলর নির্বাচিত হলেও তাদের দলীয় কর্মকাণ্ড নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ডের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ বিভিন্ন পদের বিএনপির নেতারা নৌকার পক্ষে জোরালোভাবে কাজ করেন বলে স্থানীয় নেতাকর্মীদের অভিযোগ। এসব কারণে ভোট শুরুর থেকেই বিএনপির নেতাকর্মীদের ভোট কেন্দ্র দেখা যায়নি। আবার যারা ভোট কেন্দ্রে ছিল তাদের মধ্যে নৌকা মার্কার পক্ষে কাজ করতে প্রতিযোগিতা শুরু হয়। এসব অভিযোগ, শহর বিএনপির সভাপতি ও বিএনপির মেয়র প্রার্থী এ কে এম ইরাদত মানু ও পৌরসভার সচেতন ভোটারের।

এদিকে, পৌরসভার কোথাও কোথাও আধঘন্টা থেকে এক ঘন্টা পর্যন্ত ভোটাররা ভোট দিতে পেরেছেন। আওয়ামী লীগ প্রার্থীর ভোট প্রাপ্তিতে কৌশল, বিএনপি নেতাদের মধ্যে আতঙ্ক-ভীতি, দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্থান ও দলীয় কোন্দলই ধানের শীষ প্রতীকের ব্যাপক ভরাডুবি হয়েছে বলে স্থানীয় নেতাকর্মীদের অভিমত। ওদিকে, প্রতীক বরাদ্দের প্রথমদিন গণসংযোগকালে জেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল হাই হামলার শিকার হলে এখানে ভোটের চিত্র পাল্টে যায়। একের পর এক হামলা-হুমকিতে দলীয় নেতাকর্মীরা নিরাপদে থাকার জন্য লিয়াজো শুরু করেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী ও তার কর্মী-সমর্থকদের সঙ্গে।

বিএনপির প্রার্থী এ কে এম ইরাদত মানুর মতে, দলবেধে বিএনপি নেতাদের অসহযোগিতার কারনেই দলের বা ধানের শীষ প্রতীকের ভরাডুবি হয়েছে। এবার নৌকা প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগ প্রার্থী হাজী ফয়সাল বিপ্লব ২৭ হাজার ৩১৯ ভোট পেয়ে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। ধানের শীষ প্রতীকের এ কে এম ইরাদত মানু পেয়েছেন ৫ হাজার ৮৩১ ভোট। গতবার এ কে এম ইরাদত মানু ১২শ’ ভোটের ব্যবধানে আওয়ামী লীগের হাজী মো. ফয়সাল বিপ্লবকে পরাজিত করেন।

এদিকে, মিরকাদিম পৌরসভায়ও বিএনপির কোন নেতা ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী শামসুর রহমানের পক্ষে কাজ করেননি। মিরকাদিম পৌর বিএনপির সভাপতি জসিমউদ্দিন প্রকাশ্যে তার ভগ্নিপতি আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মনছুর আহামেদ কালামের পক্ষে কাজ করেন। জসিমউদ্দিনের কারনে সেখানকার ওয়ার্ডের নেতারাও ধানের শীষের পক্ষে কাজ করতে পারেননি বলে সেখানকার নেতাকমীদের অভিযোগ। এ অবস্থায় ওই পৌরসভায় ভোট প্রাপ্তিতে বিএনপির অবস্থান ছিল তৃতীয়।

অভিযোগ উঠেছে, ভগ্নিপতি আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় মিরকাদিম পৌরসভায় বিএনপি থেকে প্রথম সারির কোন নেতাকে প্রার্থী হতে দেয়নি পৌরবিএনপির সভাপতি জসিমউদ্দিন। সেখানে চতুর্থ সারির কর্মী শামসুর রহমানকে নামেমাত্র প্রার্থী করা হয়।

ওদিকে, শহরের উত্তর ইসলামপুর ও দক্ষিণ ইসলামপুর এলাকা দুইটি বিএনপি অধ্যুষিত এলাকা হিসেবে পরিচিত। ওই এলাকা দু’টিতে সেখানকার নেতাদের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ হওয়ায় ভোট প্রাপ্তিতে ধানের শীষ প্রতীকের ধস নামে। শহরসহ বিভিন্ন কমিটি গঠনে এ অঞ্চল দু’টির নেতাদের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে অগ্রাধিকার দেয়া হয়।

এ কে এম ইরাদত মানু বলেন, পৌরসভার ১ নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর জেলা যুবদলের সভাপতি, জেলা বিএনপির যুগ্ন-সম্পাদক তারিক কাশেম খান মুকুল, ওই ওয়ার্ডের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক, ৪ নং ওয়ার্ডের জেলা বিএনপির দপ্তর সম্পাদক, জেলা শ্রমিক দলের সদস্য সচিব আবদুল আজিম স্বপন, তার ভাই সাবেক কাউন্সিলর তপন, ওয়ার্ডের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক, ৫ নং ওয়ার্ডে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রহিমা সিকদারের ভাই সাবেক কাউন্সিলর, কাউন্সিলর প্রার্থী বাদশা সিকদার, ৬ নং ওয়ার্ডের সভাপতি, কাউন্সিলর প্রার্থী কবির হোসেন, ৭ নং ওয়ার্ডের সভাপতি দেলোয়ার হোসেন তার ভাই জাকির হোসেন, সাবেক কাউন্সিলর কামাল হোসেন, তার ছোট ভাই কাউন্সিলর প্রার্থী তুষার, ৮ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী শহর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শহীদুল ইসলাম, তার আত্মীয়-স্বজন, ওয়ার্ড কমিটি, ৯ নং ওয়ার্ডের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদক কাউন্সিলর প্রার্থী বাহাদুরের ভূমিকা ছিল প্রশ্নবিদ্ধ। এদের অনেকেই নৌকার পক্ষে কাজ ও ব্যালটে সিল মারে বলে বিএনপির প্রার্থী এ কে এম ইরাদত মানুর অভিযোগ।

এছাড়া পৌরসভার ২ নং ওয়ার্ড বিএনপি ও ৩ নং ওয়ার্ড বিএনপিসহ ওই দুটি ওয়ার্ডের প্রথম সারির নেতৃবৃন্দ নির্বাচনে কোন ভুমিকা রাখেনি।

এদিকে, নির্বাচনে নিজের ব্যর্থতার কারনে ৩ নং ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি আজ রোববার স্বেচ্ছায় সভাপতির পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন। বিএনপি প্রার্থীর পরাজয় ও বিএনপি নেতাদের আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পক্ষে কাজ করা প্রসঙ্গে জেলা বিএনপির যুগ্ন-সম্পাদক আতোয়ার হোসেন বাবুল বলেন, আতঙ্ক সৃষ্টি ও এলাকায় নিরাপদে থাকার জন্য তারা এ কাজ করেছে।

শহর যুবদলের সভাপতি ও সাবেক কাউন্সিলর এনামুল হক বলেন, নেতাকর্মীরা আতঙ্কগ্রস্থ হয়ে ভোট কেন্দ্রে যেতে পারেননি। সকালেই ধানের শীষ প্রতীকের এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়া হয়।

এদিকে, মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ড বিএনপি ও পৌর কমিটি গঠন করা হলেও কমিটিগুলো অনুমোদন করা হয়নি। এসব কমিটি পুনর্গঠন করে নতুনভাবে নেতা নির্বাচন করা হবে বলে জানা গেছে।

নিউজ৬৯

Leave a Reply