গৃহবধূকে শ্লীলতাহানি, আসামী পুলিশের সোর্স

গৃহবধূকে শ্লীলতাহানি ও ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে মুন্সীগঞ্জ আদালতে মামলা হয়েছে লম্পট এনায়েত তালুকদারের (৪৫) বিরুদ্ধে।

মঙ্গলবার বিকালে মুন্সীগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতে এ মামলা হয়। পিটিশন মামলা নং ৪১/২০১৬। মামলার বাদী হয়েছেন শ্রীনগর উপজেলার বাঘড়া ইউনিয়নের বরিবরখোলা গ্রামের ভুক্তভোগী গৃহবধূর মা।

এ মামলায় আসামি করা হয়েছে পুলিশের সোর্স হিসেবে পরিচিত বরিবরখোলা গ্রামের তালুকদারবাড়ির মৃত তোপাজ্জল হোসেনের ছেলে এনায়েত তালুকদারকে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, বাঘড়া পুলিশের সোর্স হিসেবে পরিচিত বিবাহিত এনায়েত তালুকদার একই গ্রামের এক গৃহবধূকে(২৮) দীর্ঘদিন ধরে অসামাজিক কাজ করার জন্য কু-প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। এতে ওই গৃহবধূ অসম্মতি জানায়।

গত ২১ ফেব্রুয়ারি রাত ৭টার দিকে ওই গৃহবধূর বাসায় অন্য কেউ না থাকায় তার শোবার কক্ষে প্রবেশ করে গৃহবধূকে জড়িয়ে ধরে এনায়েত তালুকদার শ্লীলতাহানি করে। একপর্যায়ে তাকে খাটে ফেলে ধর্ষণের চেষ্ঠা চালায়। গৃহবধূ এ সময় চিৎকার করলে আশপাশের লোকজন ছুটে অাসে এবং লম্পট এনায়েত দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়।

মামলার বাদী জানান, এ ব্যাপারে শ্রীনগর থানায় মামলা করতে গেলে থানা কর্তৃপক্ষ আদালতে মামলা করার পরামর্শ দেন।

মামলার আইনজীবী আব্দুল মালেক ভুইয়া জানান, আদালতের বিচারক মো. ফজলুল হক অভিযোগ আমলে নিয়ে আগামী সাত কার্যদিবসের মধ্যে শ্রীনগর উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তাকে তদন্তপূর্বক প্রতিবেদনে দাখিল করার নির্দেশ দিয়েছেন।

এদিকে, এনায়েত তালুকদার বাঘড়া পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যদের সহায়তায় এলাকার নিরীহ মানুষদের নানাভাবে হয়রানি করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ফাঁড়ি পুলিশের কতিপয় সদস্যদের ম্যানেজ করে এলাকার নিরীহ লোকদের মাদক ব্যবসায়ী বানিয়ে, কখনও ইয়বা মামলার ভয় দেখিয়ে হয়রানিসহ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় লম্পট এনায়েতের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেয়ার জন্য গত ১৭ ফেব্রুয়ারি এক ভুক্তভোগী মহা-পুলিশ পরিদর্শক ও আগেরদিন মুন্সীগঞ্জ পুলিশ সুপারের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। এ ঘটনায় জড়িত পুলিশ সদস্যদের নাম উল্লেখ্য করা হয়েছে।

পূর্ব পশ্চিম

Leave a Reply