গৃহবধূ হত্যার ঘটনায় ৮ জনকে আসামি করে মামলা

mamlaগৃহবধূ বিউটি বেগম (৩০) হত্যার ঘটনায় মামলা হয়েছে। মামলায় স্থানীয় ইউপি মেম্বার মনসুর শেখ, নিহতের শ্বশুর-শাশুড়ি, ননদসহ ৮ জনকে আসামি করা হয়েছে। শনিবার রাতে লৌহজং থানায় মামলাটি করেন নিহতের বাবা ওমর আলী শেখ। মামলা নং-৩। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে উপজেলার হাটভোগদিয়া গ্রামের রশীদ ফকিরের স্ত্রী পিয়ারী বেগম (৪৫)-কে আটকের পর গতকাল সকালে মুন্সীগঞ্জ আদালতে পাঠানো হয়েছে। ওদিকে, উপজেলার বেজগাঁও ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড মেম্বার মনসুর শেখ ও অন্য আসামিরা এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে।

এদিকে, শনিবার বাদ মাগরিক জানাজা শেষে মালির অংক কেন্দ্রীয় কবরস্থানে বিউটির মরদেহ দাফন করা হয়েছে। নিহত গৃহবধূ বিউটি বেগমের চাচা আবদুল ওহাব শেখ জানান, তার ভাতিজি বিউটি বেগমকে গত ১৫ বছর আগে লৌহজংয়ের হাটভোগদিয়া গ্রামের জব্বার খানের ছেলে আল-আমিন খানের সঙ্গে বিয়ে দেয়া হয়। বিয়ের পর তাদের ঘরে ২ ছেলে ও ২ মেয়ে সন্তান আসে। গত কিছু দিন ধরে শ্বশুর বাড়ির লোকজন বিউটিকে পাশের বাড়ির বাদশা হাওলাদারের সঙ্গে তার পরকীয়ার অভিযোগ দিয়ে আসছিল।

এ নিয়ে তার শ্বশুর জব্বার খান, শাশুড়ি আমেনা বেগম ও ননদ কাউসারি বেগম তাকে নানা কথা বলে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত করে তোলে। গত ৪ঠা মার্চ সকালে সালিশের কথা বলে স্থানীয় মেম্বার মনসুরের বাড়িতে এলে বিউটিকে এ নিয়ে নানা অপবাদ দেয়া হয়। মেম্বার মনসুর ভাতিজিকে অপমানসহ বকাঝকা করে আত্মহত্যায় প্ররোচিত করে। পরে বিউটি স্বামীর ঘরে ফিরে আসার পর সকাল ১০টায় ভাতিজির শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। এরপর দীর্ঘ ১১ ঘণ্টা চিকিৎসার পর ঘটনার দিন রাত ৯টায় তার মৃত্যু ঘটে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে।

মানবজমিন

Leave a Reply