অবাধ্য স্ত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দিতে গিয়ে হাজতবাসে স্বামী!

অবাধ্য স্ত্রীর বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দিতে গিয়ে উল্টো হাজতে যেতে হয়েছে মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার রসুনিয়া ইউনিয়নের দক্ষিন তাজপুর গ্রামের মৃত আবুল কাশেম শেকের পুত্র আলমাস শেখকে। স্ত্রী রুবি মজুমদারের প্রভাবে দায়ের করা মামলায় স্বামী বেচারা গত ১৩ দিন ধরে হাজতবাস করছেন। অবৈধভাবে হাজতবাস খাটানো থেকে মুক্তি চেয়ে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার বরাবরে আবেদন করেছে স্বামী আলমাস শেখ। এ নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্য ও ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

স্বামী আলমাস শেখের অভিযোগ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, আলমাস শেখ পেশায় একজন রাজ মিস্ত্রী। তার স্ত্রী রুবি মজুমদার সিরাজদিখান উপজেলা শিল্প কলা একাডেমির একজন নাচের প্রশিক্ষক। এই সুবাদে স্ত্রী রুবি প্রায় রাতেই ১১-১২টার দিকে বাড়িতে ফিরে। আবার কোন কোন রাতে বাসায় ফেরেনও না। আবার এখনও কখনও কয়েক দিনের জন্য উধাও হয়ে যায়। তার উগ্র চালচলন এরাকাবাসীকেও ক্ষুব্ধ করে। এই নিয়ে তার সংসারে অশান্তি শুরু হয়। এক পর্যায়ে স্থানীয় মুরুব্বিদের মাধ্যমে বিষয়টি সমাধান করার জন্য রুবিকে শিল্প কলার চাকুরী ছেড়ে দিতে বলে মুরুব্বিরা। তখন রুবি জানায়, প্রয়োজনে স্বামী ছাড়তে রাজি আছি, কিন্তু চাকুরী ছাড়া যাবেনা। তিনি আরো শর্ত দেন চাকুরী করতে দিতে হবে। যেভাবে খুশি চলাফেরা করতে দিতে হবে। এবং তাকে কোন প্রকার বাধা প্রদান করা যাবেনা। এই নিয়ে স্থানীয় সমাজ সেবক ও মুরুব্বিদের সাথে তার কথা কাটাকাটি হলে তিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা প্রকৌশলীর ভয় দেখায়। পরে বাধ্য হয়ে গত ৩ মার্চ আলমাস শেখ এলাকার কিছু মুরুব্বি নিয়ে সিরাজদিখান থানায় উপস্থিত হন অবাধ্য স্ত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দাখিল করতে। কিন্তু সেখানে গিয়ে ফেঁসে যান স্বামী আলমাস। তার অভিযোগতো নেয়া দূরের কথা বরং উল্টো তাকে থানা হাজতের লকাপে ভরে পুলিশ। সিরাজদিখান থানার ওসির কাছে উপস্থিত মুরুব্বিরা কি কারণে তাকে লকাপে ভরা হলো জানতে চাইলে ওসি বলেন, তার বিরুদ্ধে মামলা নেই। তবে স্ত্রী অভিযোগ দিয়েছে। তাই তাকে আটক করা হয়েছে। মামলা ছাড়া আটকের পর রাতে তার বিরুদ্ধে শিশু ও নরী নির্যাতন দমন আইনে স্ত্রীর দায়ের করা মামলা দেখিয়ে তাকে আদালতে চালান দিলে আদালত জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

স্থানীয় একাধিক ব্যক্তির সাথে আলাপ করে রুবি মজুমদারের বেপরোয়া চলচলনের কথা জানা যায়। প্রশাসনের কর্তা ব্যক্তিদের সাথে তার সখ্যতা থাকায় সে এলাকার কাউকেই পাত্তা দিতোনা। এ নিয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, এলাকাবাসী এমনকি মসজিদের ঈমামও ক্ষুব্ধ। তবে প্রশানের ভয়ে কেউই মুখ খুলতে চায়না। নাম প্রকাশ না করার শর্তে অনেকেই রুবির বেপরোয়া চালচলন ও রাত করে বাড়ীতে ফেরার ব্যাপারে এই প্রতিবেদকের কাছে অভিযোগ করেছেন। প্রশাশনের কর্তা ব্যক্তিদের সাথে রুবির গভীর সম্পর্ক থাকায় এলাকাবাসী প্রাকাশ্যে মুখ খুলতে ভয় পায়। তারা বলেছেন, উপজেলার এক কর্মকতার সাথে পড়কীয়ায় জড়িয়ে রুবি তার স্বামীর বিরুদ্ধে মিথ্যে মামলা দিয়ে হাজতে ভরে এখন চুকিয়ে প্রেম করছে।

এ ব্যাপারে রুবি মজুমদারের সাথে কথা বলার চেষ্টা করেও তা সম্ভব হয়নি।

এ ব্যাপরে সিরাজদিখান থানার ওসি ইয়ারদৌস হাসান বলেন, রুবীর স্বামী তাকে শারীরিকভাবে ব্যাপক নির্যাতন করেছে। বিষয়টি রুবি ইউএনওি মহাদয়কে জানালে ইউএনওর নির্দেশে স্বামী আলমাসের বিরুদ্ধে মামলা নেয়া হয়। অবাধ্য স্ত্রীর বিরুদ্ধে দেয়া স্বামীর অভিযোগ কেন নিলেন না ?- এ রকম প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আলমাস থানায় কোন অভিযোগ দেয়নি বা তার অভিযোগ দেবার সুযোগ নেই।

সিরাজদিখান উপজেলা ইউএনও রওনক আফরোজা সুমা জানিয়েছেন, রুবির স্বামী তাকে মার ধর করেছে বলে আমার কাছে এসেছিল। আমি তার শরীরের ক্ষতস্থান দেখেছি। সে দুই দিন হাসপাতালেও ছিল। রুবীর স্বামী তার মেয়েকেও মারধর করেছে বলে জেনেছি। আমি তাকে আইনি সহযোগিতা নিতে পরামর্শ দিয়েছি।

আলমাস শেখের বড় ভাই আসলাম শেখ বলেছেন, আমার ভাইয়ের ঘর ভাঙার পেছনে উপজেলা ইঞ্জিনিয়ার আমিনুর রহমান দায়ী। ইঞ্জিনিয়ার উপজেলা শিল্পকলা একাডেমির সদস্য সচিব হওয়ার সুবাদে তার সাথে রুবী পরকীয়ায় জড়িয়ে পরে। রাত করে ইঞ্জিনিয়ার তাকে রাড়ির কাছে পৌছে দিতো। উপজেলা ইঞ্জিনিয়ারের প্রভাবে ও পরামর্শে রুবি থানায় মামলা করে আমার ছোট ভাই আসলামকে হাজতে পাঠিয়েছে। আমি এর উপযুক্ত বিচার চাই।

এ ব্যাপারে উপজেলা ইঞ্জিনিয়ার আমিনুর রহমান জানিয়েছেন, শিল্প কলার প্রশিক্ষক হিসেবে রুবিকে আমি চিনি। কিন্তু একজন ইঞ্জিনিয়ারকে রুবির মত মেয়েদের পরকিয়ার পড়তে হবে কেন ? এটি বাজে কথা। তার সাথে আমার পরকীয়ার কোন সম্পর্ক নাই। তার মামলার ব্যাপারেও আমি কোন প্রভাব খাটায়নি।#

জনকন্ঠ

Leave a Reply