জাপান: সরস্বতী পূজা

রাহমান মনি: ঢাক-ঢোল-কাঁসর, শঙ্খ ও উলুধ্বনির মাধ্যমে উৎসবমুখর পরিবেশ এবং ধর্মীয় আচারে জাপান প্রবাসী ভক্তকুল শ্বেতশুভ্র কল্যাণময়ী দেবী সরস্বতীর আবাহন করেছে।

প্রতি বছরের মতো এবারও সনাতন ধর্মাবলম্বীরা মাঘ মাসের শ্রী পঞ্চমী তিথিতে সরস্বতী পূজার আয়োজন করে জাপানে। বাংলাদেশে ১৩ ফেব্র“য়ারি সরস্বতী পূজা পালিত হলেও জাপানে ১৪ ফেব্র“য়ারি রোববার এ পূজার আয়োজন করা হয়। দিনটি জাপানে বিশ্ব ভালোবাসা দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে দীর্ঘদিন ধরে। আর ১৩ ফেব্র“য়ারি ছিল বসন্তের আগমনী দিন।

১৪ ফেব্র“য়ারি রোববার টোকিওর পার্শ্ববর্তী সাইতামা প্রিফেকচারের ওয়ারাবি সিটি কিতামাচি পাবলিক হলে বিদ্যা ও ললিতকলার অধিষ্ঠাত্রী দেবী সরস্বতী পূজার আয়োজন করা হয়। জাপানে পূজা পালনে স্থায়ী কোনো মন্দির এখনও পর্যন্ত নির্মিত না হওয়ায় সার্বজনীন পূজা কমিটি জাপান প্রতি বছর টোকিওর বিভিন্ন স্থানে হল ভাড়া করে আসছিল। কিন্তু প্রবাসী বাংলাদেশিদের কিছুসংখ্যকদের জন্য কর্তৃপক্ষ এখন আর বাংলাদেশিদের হল দিতে অপারগতা প্রকাশ করছে। তার অন্যতম কারণ হচ্ছে হলগুলো ব্যবহারে ম্যানার না মানা। এই ধারা অব্যাহত থাকলে অদূর ভবিষ্যতে হয়তো আয়োজনের জন্য আর কোনো হল পাওয়া যাবে না। হল কর্তৃপক্ষ সেই রকম আভাষই দিয়ে যাচ্ছেন, কিন্তু প্রবাসীদের সচেতনতার কোনো উন্নতি পরিলক্ষিত হচ্ছে না।

বৈরী আবহাওয়াজনিত কারণে এ বছর লোক সমাগমে কিছুটা বিলম্ব হয়। তারপরও কৃপা লাভের আশায় সনাতন ধর্মাবলম্বীরা বিদ্যাদেবী মা সরস্বতীর পাদপদ্মে পুষ্পাঞ্জলি দিয়েছে শিক্ষার্থীসহ নানা পেশা ও বয়সের মানুষ। শিশুরা শিক্ষাজীবন শুরু করেছে দেবীর পদতলে বসে।

পূজা বিষয়ক ধর্মীয় আলোচনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ দূতাবাসের ইকোনমিক মিনিস্টার ড. জীবন রঞ্জন মজুমদার। তিনি পূজা কমিটির একজন উপদেষ্টা এবং টোকিওস্ত বাংলাদেশ দূতাবাসের চার্জ দ্য এফেয়ার্স (সিডিএ)। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাপান রামকৃষ্ণ মিশনের মহারাজ স্বামী মেধসানন্দ। তনুশ্রী গোলদার বিশ্বাসের পরিচালনায় আলোচনা অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সার্বজনীন পূজা কমিটি জাপান-এর সভাপতি সুনীল রায়, সাধারণ সম্পাদক রতন কুমার বর্মন, উপদেষ্টা সুখেন ব্রহ্ম, ধর্মীয় আলোকে পূজা বিষয়ক বিস্তারিত আলোচনা করেন ড. তপন কুমার পাল।

আলোচনা অনুষ্ঠানের পর শিশু-কিশোরদের নিয়ে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন ববিতা পোদ্দার। স্বরলিপি কালচারাল একাডেমীর একঝাঁক শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন শিশু-কিশোররা এতে অংশগ্রহণ করে। বুবলী ইসলাম কলির ক্যালিওগ্রাফিতে দলীয় নাচটি উপভোগ্য ছিল।

প্রতি বছরের মতো এবারও ভক্তিমূলক গানের আসরটি পরিচালনা করেন উত্তরণ বাংলাদেশি কালচারাল গ্রুপ। রতন, গোমেজ, মিথুন, মৌ, ববিতা সংগীত পরিবেশনার পর নাজিম আবৃত্তি করেন।

সন্ধ্যা আরতী, নাচ ও মিষ্টি বিতরণ এবং সবশেষে নেচেগেয়ে উলুধ্বনির মধ্য দিয়ে বেদনাবিধূর মনে দেবী সরস্বতীকে প্রতীকী বিদায়ের মধ্য দিয়ে দিনব্যাপী উৎসবের পরিসমাপ্তি ঘটানো হয়। এই সময় ভিন্ন ধর্মাবলম্বীরাও অংশ নিয়ে থাকে।

ধর্মীয় আচার অনুযায়ী দেবী সরস্বতীকে বিসর্জন দেওয়ার রেওয়াজ থাকলেও জাপানের আইনে তা সম্ভব নয়। তাই প্রতীকী বিসর্জন দিতে হয়।
rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply