শ্রীনগরে আলোচিত ফাইভ মার্ডার মামলার প্রধান আসামী আইয়ূব আলী চেয়ারম্যানের ফাঁসি কার্যকর

আরিফ হোসেন: শ্রীনগর উপজেলার বাঘড়া এলাকার আলোচিত ফাইভ মার্ডার মামলার প্রধান আসামী আইয়ূব আলী চেয়ারম্যানের (৭০) ফাঁসি কার্যকর হয়েছে। বুধবার ভোরে তার লাশ কাশিমপুর কারাগার থেকে বাঘড়া এলাকায় নিয়ে আসা হয়। সকাল দশটার দিকে বাঘড়া স্বরুপ চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জানাজা শেষে তাকে মধ্য বাঘড়া কবরস্থানে দাফন করা হয়। এর আগে মঙ্গলবার রাত সাড়ে দশটায় কাশিমপুর হাই সিকিউরিটি কারাগারে তার ফাঁসি কার্যকর করার পর রাত চারটার দিকে আইয়ূব আলী চেয়ারম্যানের পরিবারের কাছে তার লাশ হস্তান্তর করা হয়। এর আগে গত রবিবার তার ফাঁসির রায় কার্যকর করার কথা ছিল। পরে তা স্থগিত করা হয়। আইয়ূব আলী চেয়ারম্যানের ফাঁসির ঘটনায় ওই এলাকায় বিবাদমান দুটি গ্রুপের মধ্যে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ সাহিদুর রহমান জানান, ওই এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

স্থানীয়রা জানায়, ২০০১ সালের ৭ জুলাই বাঘড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আইয়ূব আলী ও পরাজিত চেয়ারম্যান মনোয়ার আলী গ্রুপের সাথে স্বরুপ চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন নিকারী বাড়ীতে পুলিশের উপস্থিতিতে দিনব্যাপী সংঘর্ষ হয়। এতে মনোয়ার আলীর স্বশস্ত্র ক্যাডার বাদশার গুলিতে আইয়ূব আলীর ভাতিজা আলাউদ্দিন নিহত হয়। ওই দিন পুলিশ সহ ২ শতাধিক লোক আহত হয় ও ইসমাইল নামে আইয়ূব আলী গ্রুপের আরেকজন মারা যায়। পরে বিকালে আইয়ূব আলী গ্রুপের উত্তেজিত জনতা পুলিশের কাছ থেকে হ্যান্ডকাফ পরিহিত অবস্থায় মনোয়ার আলী, বাদশা ও হাশেম আলীকে ছিনিয়ে নিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে।

এঘটনায় শ্রীনগর থানার এসআই ইকবাল বাহার বাদী হয়ে ৪ হাজার লোককে আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করে। পরে মামলাটি সিআইডিতে নেস্ত হলে মামলায় আইয়ূব আলীকে হুকুমের আসামী করা হয়। মমলায় আদালত ২০০৫ সালে আইয়ূব আলীর বিরুদ্ধে ফাঁসির রায় প্রদান করে। আপিল বিভাগ ২০১৩ সালে এ রায় বহাল রেখে রায় প্রদান করে। সম্প্রতি আইয়ূব আলী রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণ ভিক্ষা করে ব্যার্থ হলে মঙ্গলবার রাত সাড়ে দশটায় তার ফাঁসি কার্যকর করা হয়। এ মামলায় আইয়ূব আলী চেয়ারম্যানের ছোট ছেলে মাহফুজ (৩৫) এরও যাবজ্জীবন সাজা হয়। আইয়ূব আলী বাঘরা ইউনিয়নের তিন বারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলেন। সর্বশেষ মামলা চলাকালীন সময়ে ২০০৩ সালে জেলে থাকাবস্থায়ও চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তার দুই ছেলে ও তিন মেয়ে রয়েছে। বড় ছেলে নয়ন সৌদি আরব প্রবাসী।

Leave a Reply