উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জানেন না স্বাস্থ্য কেন্দ্রর পুকুর থেকে মাছ বিক্রি

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলা উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রর বড় পুকুর থেকে মাছ ধরে নেয়া হয়েছে। আজ রোববার ভোর রাতে ওই অফিসের কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার আব্দুল মতিন স্বপনের নির্দেশে জাল টেনে মাছ ধরা হয়। সংশ্লিষ্ট একটি সূত্রজানায়, ঘটনার দিন ভোর রাত ৪টায় স্থানীয় লন্ড্রি ব্যাবসায়ী জাহাঙ্গিরের মাধ্যেমে ওই পুকুর থেকে জাল টেনে রুই, কাতল, বাটা, কই, শিং ও সিলভারকাপসহ বিভিন্ন প্রজাতির ৫০হাজার টাকার মাছ ধরা হয়েছে। এর মধ্যে কিছু মাছ সিরাজদিখান বাজারের একটি আড়তে বিক্রি করে দেয়া হয়েছে।

বাকি বড় সাইজের মাছ সিরাজদিখান উপজেলা উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রর কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার আব্দুল মতিন স্বপনের বাসায় পাঠানো হয়েছে।

এ ভাবে রাতের অন্ধকারে সরকারী পুকুর থেকে মাছ ধরার ঘটনাটি এলাকার মানুষের মধ্যে নেতিবাচক প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। সূত্রমতে, অভিযুক্ত কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার আব্দুল মতিন স্বপনের নির্দেশে জাল টেনে কিছুদিন পরপর জেলেদের দিয়ে মাছ ধরান। পরে সেসব মাছের মধ্যে কমদামী এবং ওজনে বেশী মাছগুলো বিক্রি করে দেন। আর দামীগুলোর মধ্যে নিজে বাড়িতে খাবারের জন্য রেখে বাকি মাছগুলো বিভিন্ন বাজারে বিক্রি করে প্রতি মাসে হাতিয়ে নিচ্ছেন হাজার হাজার টাকা। নাম প্রকাশ না করার সর্তে একাধিক এলাকার মানুষ প্রতিবেদককে জানান, পুকুরে জেলে নামলেই প্রতিবার বাজারে কমপক্ষে ৩০ থেকে ৪০হাজার টাকার মাছ বিক্রি হয়। কিছু মাছ ইছাপুরা হাসপাতালের কর্মকর্তা এবং কিছু জেলার কর্মকর্তার বাসায় পাঠায় । আর মাছ বিক্রির সব টাকাই আব্দুল মতিন স্বপনের পকেটে ঢোকে।

এভাবেই প্রতি মাসে লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নেয় সে। জানাগেছে, এসব দেখভাল করার জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যারা রয়েছেন তারা তাদের দলেরই লোক। অথচ, সরকারী পুকুর প্রতিটি উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্র ঠিকমত পরিচালিত হচ্ছে কিনা এটা দেখার জন্যেই তাদের এখানে রাখা হয়েছে। তারা নিয়োগকৃত কর্মকান্ডের ঠিক উল্টোটা করে নিজ পকেট ভরানো নিয়েই সব সময় ব্যাস্ত থাকেন।

সূত্রমতে, পুকুরের সব মাছ আনুমানিক নির্দিষ্টভাবে একটি দাম তৈরি করে সরকারী টেন্ডার করে না করে পুকুরের মাছ,গাছের তাল,আমসহ বিভিন্ন ফল বিক্রি করছেন। তবে দূর্নীতি করলেও সে হিসাব দেখাতে অফিসিয়াল সমস্ত কাগজপত্র ঠিক রাখেন তারা। এ ব্যাপারে জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ শহিদুল ইসলাম সেল ফোনে প্রতিবেদককে বলেন,সিরাজদিখান উপজেলার উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি অনেক দূরে তাই জাওয়া হয় না। মাছ ধরার ব্যাপারে সৎ সাংবাদিক হলে লিখিত অভিযোগ দিন তা না হলে আমি ডিজির কথাও শুনবো না আমি।

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা (টিএইচও) ডাঃ মোঃ দুলাল হোসেনের সাথে সাংবাদিকরা যোগাযোগ করলে তিনি মাছ ধরার বিয়য়ে জানেনা বলে জানান, তিনি বলেন আমি এখনই সিরাজদিখান উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের দিকে যাব এবং মাছ ধরা হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব। তবে রাতের অন্ধকারে মাছ কেন ধরা হয়েছে সে প্রশ্নের কোন উত্তর তিনি দেননি।

সিরাজদিখান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রওনক আফরোজা সুমা বলেন, মাছ ধরার বিষয়টি অদৌও অবহিত নন তিনি।

স্বাধীনবাংলা

Comments are closed.