শ্রীনগরে সাংবাদিক পেটানো আসামীকে পাশে নিয়ে এমপি’র সমাবেশ!

আরিফ হোসেন: শ্রীনগরে সাংবাদিকদের উপড় হামলাকারী এজাহারভূক্ত এক আসামীকে পাশে নিয়ে সমাবেশ করেছেন মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের এমপি সুকুমার রঞ্জন ঘোষ। গত শনিবার বিকালে উপজেলার শ্যামসিদ্ধি ইউনিয়নের পরাজিত আওয়ামী লীগ প্রার্থীর কর্মীদের উপড় হামলার প্রতিবাদে গাদিঘাট গ্রামের সমাবেশের সামনের সারিতে দেখা যায় এমপি সুকুমার রঞ্জন ঘোষ এর একজনের পরই সাদা শার্ট পরিহিত সন্ত্রাসী রুবেল হোসেন জয় অবস্থান নিয়েছেন। সমাবেশে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেনও উপস্থিত ছিলেন।

অথচ সাংবাদিকদের উপড় হামলার দুদিন পর উপজেলা কম্পাউন্ডের সামনে আয়োজিত মানববন্ধনের সাথে সুকুমার রঞ্জন ঘোষ একাতœতা প্রকাশ করেন এবং তোফাজ্জল হোসেন দোষীদের শাস্তিদাবী করে বক্তব্যও রাখেন। অপরদিকে সাংবাদিকদের উপড় হামলাকারী সন্ত্রাসীরা এফআইআর ভূক্ত আসামী হয়েও পুলিশের চোখের সামনে দিয়ে বুক ফুলিয়ে ঘুড়ে বেরাচ্ছে। সন্ত্রাসী হামলা ও ব্যাগ-ক্যামারা ছিনতাইয়ের এক মাস অতিবাহিত হলেও পুলিশ তার একটিও উদ্ধার করতে পারেনি। একারণে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে উঠছে নানা রকম প্রশ্ন।

গাদিঘাটের সমাবেশ স্থলে পুলিশের তিনটি গাড়ি ও ১৫-২০ জন পুলিশ থাকলেও শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ সাহিদুর রহমান জানান, আসামীরা তাদের চোখে পড়ছেনা।

গত ৫ মার্চ বিকালে শ্রীনগর উপজেলা পরিষদের সামনে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন নিয়ে পেশাগত দ্বায়িত্ব পালনকালে দৈনিক ভোরের কাগজ পত্রিকার শ্রীনগর প্রতিনিধি অধির রাজবংশী ও দৈনিক রূপবানী পত্রিকার শ্রীনগর প্রতিনিধি মীর রাতুলের উপড় সন্ত্রাসী জুয়েল লস্কর ওরফে মলম জুয়েল, প্রিন্স ও রুবেল জয়ের নের্তৃত্বে ২০-২৫ জনের একটি সন্ত্রাসী গ্রুপ হামলা চালায় ও তাদের ব্যাপক মারধর করে। এসময় সন্ত্রাসীরা সাংবাদিকদের মটর সাইকেল এবং ক্যামেরা ভাঙচুর করে। মারাত্মক আহত দুই সাংবাদিককে প্রথমে শ্রীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এঘটনায় অধীর রাজবংশী ৬ মার্চ বাদী হয়ে শ্রীনগর থানায় চার জনকে এজাহার ভূক্ত ও অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামী করে মামলা দায়ের করে। পুলিশ মামলার চার নম্বর আসামী পারভেজকে গ্রেপ্তার করলেও এক মাস ধরে বাকী আসামীরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এতদিন ধরে আসামীরা কাদের কোন অদৃশ্য শক্তির বলে শ্রীনগর দাপিয়ে বেড়াচ্ছে এ নিয়ে প্রশ্ন থাকলেও গত শুক্রবার তা সাংবাদিক ও জনসাধারণের কাছে পরিষ্কার হয়ে যায়।

Comments are closed.