মুকিত মজুমদার বাবু, গোলাম মোর্তোজা এবং রশিদ ভূঁইয়া সংবর্ধিত

রাহমান মনি: জাপান প্রবাসীদের ভালোবাসায় সিক্ত হয়েছেন প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মুকিত মজুমদার বাবু, লেখক, সাংবাদিক ও সাপ্তাহিক সম্পাদক গোলাম মোর্তোজা এবং অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী, অস্ট্রেলিয়া মূলধারার রাজনৈতিক ও ক্ষমতাসীন স্টেট লিবারেল পার্টির সদস্য রশিদ ভূঁইয়া। ১২ এপ্রিল ২০১৬ টোকিওতে আয়োজিত এক সংবর্ধনা ও মতবিনিময় সভায় তারা জাপান প্রবাসীদের ভালোবাসায় সিক্ত হন। সংবর্ধনাটির আয়োজন করে জাপান প্রবাসী বাংলাদেশ কমিউনিটি।

বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি ইন জাপান (বিসিসিআইজে) আয়োজিত এক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত হয়ে বাংলাদেশ থেকে মুকিত মজুমদার বাবু এবং গোলাম মোর্তোজা জাপান আসেন। একই সময় অস্ট্রেলিয়ান মূল ধারার রাজনীতিবিদ প্রবাসী বাংলাদেশি রশিদ ভূঁইয়া জাপান সফর করছেন। তাদের সম্মানে প্রবাসী কমিউনিটি সংবর্ধনা ও মতবিনিময় অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ১২ এপ্রিল ’১৬। সাপ্তাহিক কর্মদিবস হওয়া সত্ত্বেও বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক পেশাজীবী, রাজনৈতিক, আঞ্চলিক সংগঠনসমূহের নেতৃবৃন্দ ছাড়াও সংস্কৃতিমনা প্রবাসীরা উপস্থিত ছিলেন।

কামরুল হাসান লিপুর স্বাগত বক্তব্যের মধ্য দিয়ে শুরু হওয়া সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের শুরুতেই অতিথিদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। কমিউনিটির পক্ষে নারমীন হক মুকিত মজুমদার বাবুকে, প্রাপ্তি রাহমান গোলাম মোর্তোজাকে এবং কামরুল হাসান লিপু রশিদ ভূঁইয়াকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। কিতা সিটি ওজি হোকুতোপিয়া হলে এই সংবর্ধনা ও মতবিনিময় সভার আয়োজনটি ছিল।

কাজী ইনসানুল হকের সঞ্চালনায় মতবিনিময় সভায় প্রবাসী নেতৃবৃন্দ মিডিয়া ব্যক্তিত্ব মুকিত মজুমদার বাবু এবং গোলাম মোর্তোজাকে কাছে পেয়ে, বাংলাদেশের সার্বিক প্রেক্ষাপট তুলে ধরে বিভিন্ন সমস্যা এবং এর সমাধানে জাপানের অভিজ্ঞতা থেকে সমাধানের পথ বাতলে দিয়ে মিডিয়ার মাধ্যমে গণ-সচেতনতা তৈরি করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে অনুরোধ জানান।

প্রবাসীদের বক্তব্যে বাংলাদেশে অব্যাহত সন্ত্রাস, গুম, হত্যা, পুলিশি দৌরাত্ম্য, ব্যাংক কেলেঙ্কারি, ঢাকা শহরের ট্রাফিক জ্যাম, বায়ু-পানি ও শব্দ দূষণ, শিক্ষা ব্যবস্থা ভেঙে পড়ার ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়। বিশেষ করে সাগর-রুনী হত্যা, ব্লগার হত্যা, ফয়সাল আরেফিন দীপন হত্যা এবং সর্বশেষ তনু হত্যার কথা উল্লেখ করে বক্তারা বলেন, কোনো হত্যারই সঠিক বিচার হচ্ছে না। অপরাধীরা একের পর এক হত্যাকাণ্ড করে যাচ্ছে। কিবরিয়া, আহসান উল্লাহ মাস্টারের হত্যার বিচার আজও হয়নি বলে প্রবাসী নেতৃবৃন্দ উষ্মা প্রকাশ করেন।

সংবর্ধনার জবাবে আলোচনায় অংশ নিয়ে অতিথিবৃন্দ বলেন, জাপানে বাংলাদেশি কমিউনিটির মতো এতো চমৎকার কমিউনিটি বিশ্বে আর কোথাও নেই। ওখানে আওয়ামী লীগ বিএনপি একই ছাদের নিচে এবং একই টেবিলে সৌহার্দ্য পরিবেশে সব কিছু করছে। অন্য কোথাও এটা নেই। অথচ এটাই হওয়ার কথা ছিল। আর এটা হলে বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে যেত। তারপরও বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে এবং যাবে। পরিবর্তন হচ্ছে। সময় তো লাগবেই। আর প্রবাসীরা যদি তাদের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে এগিয়ে আসে তবে বাংলাদেশ পরিবর্তন হবেই হবে। তবে এই সরকারের অসংখ্য ভালো কাজগুলো ম্লান হয়ে যাচ্ছে কিছু কিছু ভুল পদক্ষেপের কারণে। কিছুসংখ্যক অতি উৎসাহীরা তা ম্লান করে দিচ্ছে। হত্যা, গুম, ধর্ষণ সামাল দিতে না পারাটা ব্যর্থতারই উদাহরণ। ভালো কাজে যেমন প্রশংসা করি তেমন তীব্র ভাষায় সমালোচনাও করে থাকি।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply