কাবাডিতে কাউন্সিলর নিয়ে জালিয়াতি!

কাউন্সিলর নিয়ে জালিয়াতির অভিযোগ উঠেছে বাংলাদেশ কাবাডি ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলামের বিরুদ্ধে। নির্বাচন উপলক্ষে গত ৩রা থেকে ২০শে মে কাউন্সিলরদের নাম পাঠানোর সময় বেঁধে দেয়া ছিল। কিন্তু নতুন অ্যাডহক কমিটি হওয়ার পরও মুন্সীগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থায় নিজের পছন্দ মতো কাউন্সিলর বানিয়েছেন মুক্তিগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাবেক সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম। এ নিয়ে মুন্সীগঞ্জে বেশ তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়েছে। সূত্র জানায়, কাউন্সিলর চেয়ে কাবাডি ফেডারেশন থেকে ইস্যু করা চিঠিই পায়নি মুন্সীগঞ্জ জেলা কমিশনারের অফিস। ফলে সভায় সিদ্ধান্ত হলেও তাদের প্রতিনিধি পাঠাতে পারেনি নতুন অ্যাডহক কমিটি। সেই সুযোগটি নিয়েছেন সাবেক এই সাধারণ সম্পাদক।

গত ২৪শে এপ্রিল জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের সচিব স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে (স্মারক নং- এনএসসি/১১৯/৪/জোন/১০৭২) জেলা প্রশাসককে আহ্বায়ক ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসককে (অতিরিক্ত) সদস্য সচিব করে সাত সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। যা মেনে নিতে পারেননি বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম। যিনি কাবাডি ফেডারেশনের বর্তমান সাধারণ সম্পাদকও। তাই আগেভাগেই জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদকের অনুকূলে চিঠি ইস্যু করিয়ে নেন। পরে ৪ঠা মে আয়নাল হক স্বপন নামে সাবেক কমিটির এক সদস্যকে আসন্ন নির্বাচনে কাউন্সিলর করান।

জেলা প্রশাসকের দায়িত্বশীল একটি সূত্র জানায়, ১৮ই মে জেলা ক্রীড়া সংস্থার অ্যাডহক কমিটির সভায় নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বলকে কাবাডির নির্বাচনে কাউন্সিলর করে নাম পাঠানোর সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু তার আগে কিংবা পরে কখনই অ্যাডহক কমিটির আহ্বায়ক জেলা প্রশাসকের অফিসে কাবাডি ফেডারেশন থেকে কাউন্সিলর চেয়ে কোনো প্রকার চিঠি যায়নি। যার ফলে মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসকের অফিস থেকে কাউন্সিলরের নাম পাঠানো যায়নি। আর এই সুযোগেই পেছনের তারিখ ব্যবহার করে নিজের পছন্দমতো কাউন্সিলর বানিয়ে আনেন নজরুল ইসলাম।

মানবজমিন

Leave a Reply