গজারিয়ায় সহোদর খুনের মামলায় আসামি শতাধিক

গজারিয়া উপজেলার চরবলাকী গ্রামে প্রাধান্য বিস্তার ও প্রস্তাবিত শিল্পপ্রতিষ্ঠানের মাটি ভরাট কাজের হিস্যা নিয়ে সংঘর্ষ ও সহোদরসহ ইউপি সদস্য খুনের ঘটনার তিনদিন পর অবশেষে রবিবার মামলা দায়ের হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা যায়, নিহত ইউপি সদস্যের বাবা মজু বেপারী বাদী হয়ে স্থানীয় আ.লীগ নেতা আমিরুল ইসলামকে প্রধান আসামি ও তার ছেলে নাজমুল হোসেন, ভাই মনা মিয়াসহ একশ ২৯ জনের নামোল্লেখ ও অজ্ঞাত বিশ থেকে পঁচিশজনকে বিবাদী করা হয়েছে। ঘটনার পর আটক আটজনকেও এজাহার নামীয় আসামি করা হয়েছে।

পুলিশ ও এজাহার সূত্রে জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় হোসেন্দী ইউপির প্রত্যন্ত চরাঞ্চল চরবলাকী গ্রামে প্রাধান্য বিস্তার, পূর্ববিরোধ ও মাটি ভরাট কাজের ভাগাভাগির হিস্যার জের ধরে স্থানীয় আ.লীগ নেতা আমিরুল ইসলাম ও যুবলীগ কর্মী তার ছেলে নাজমুল হোসেনের নেতৃত্বে তাদের প্রতিপক্ষ একই গ্রামের বাসিন্দা হোসেন্দী ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন মন্টুর সমর্থক ও পক্ষের লোকজনের বাড়ি ঘরে অতর্কিত হামলা চালায় এসময় গুলিবিদ্ধসহ আহত হয় বিশজন।

হাসপাতালে নেয়ার পথে রাতে গুলিবিদ্ধ আহত হোসেন্দী ইউপির ৮ নং ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত সদস্য গোলাপ বেপারী ও তার ছোট ভাই আইয়ুব আলী সরকার মারা যায়।

হামলার সময় নিখোঁজ হয় দুইজন। নিখোঁজ আওলাদ মিয়া ও খুন হওয়া ইউপি সদস্য গোলাপ বেপারীর ছোট ভাই জুয়েল বেপারীর খোঁজ মেলেনি আজও। মামলার বাদী মজু বেপারী দাবি, তার ছেলে জুয়েলসহ আওলাদকে প্রতিপক্ষ দলের লোকেরা অপহরণ ও খুনের পর লাশ গুম করেছে।

গজারিয়া থানার অফিসার্স ইনচার্জ মো. হেদায়াতুল ইসলাম ভুঞা মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, চরবলাকী গ্রামে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

ঢাকাটাইমস

Leave a Reply