সিরাজদিখানে গৃহবধুকে অমানুষিক নির্যাতন: গ্রেপ্তার ১

মোঃ রুবেল ইসলাম: সিরাজদিখানে এক গৃহবধুকে নির্যাতন করেছে দেবর ও ননাসের ছেলেরা। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার লতব্দী ইউনিয়নের কমলাপুর গ্রামে। গৃহবধু রোজিনা আক্তার (৩০) কমলাপুর গ্রামের প্রবাসী মোঃ ইয়াছিনের স্ত্রী ও পাশের রাজদিয়া গ্রামের হাবিব মোল্লার মেয়ে। গতকাল তাকে মুমূর্ষ অবস্থায় ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি করা হয়েছে। থানায় মামলা হয়েছে। পুলিশ এক আসামীকে গ্রেপ্তার করেছে।

এলাকাবাসীরা জানান, দীর্ঘদিন ধরে মহিলাটিকে অমানুষিক নির্যাতন করছে ২ দেবর ও স্বামীর ৩ ভাগিনা। এমন বর্বর নির্যাতন এ গ্রামে আর কখনো ঘটে নাই। গত রবিবার বিকালে রোজিনাকে তারা মারতে মারতে উলঙ্গ করে ফেলে। এলাকাবাসী পাশের বাড়ি থেকে কাপড় পরিয়ে তাকে উপজেলা হাসপাতালে পাঠায়।

সিরাজদিখান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বেডে অসহায় রোজিনা কান্নাজরিত কন্ঠে বলেন, আমার স্বামী বিদেশে আমার বাবা বিদেশে আমার বড় ভাই কেউ নাই তাই ওড়া দীর্ঘদিন ধরে জায়গা সম্পদ নেওয়ার জন্য অত্যাচার করে। গত রবিবার ওরা ৭ জন মিলে আমাকে মারধর করে ৬ দিন হাসপাতালে ভর্তি থাকার পর শনিবার দুপুরে সুস্থ্য হয়ে বাবার বাড়ি যাই। বিকালে আবার রহমান, শান্তফকির, জাহিদ ও জেরিন আমার বাবার বাড়িতে গিয়ে হামলা করে চাপাতি দিয়ে আমার মাথায় কোপ দেয় আমি জ্ঞান হারিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পরি। এরপর কান্নায় ভেঙ্গে পরেন আর কিছু বলতে পারেননি।

অভিযুক্ত রহমান (৪০) জানান, এগুলি বানোয়াট কথা। মারামারির ঘটনাটা একটি নাটক। দ্বিতীয় দফায় মারামারির ঘটনা আমি জানি না। যুব লীগের দিলবার এ নাটকের নেতৃত্ব দিচ্ছে।

সিরাজদিখান থানার উপ-পরিদর্শক (মামলার আইও) জাহাঙ্গির আলম সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, মামলার পরিপ্রেক্ষিতে ১ আসামীকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠিয়েছি। বাকিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। রোজিনার অবস্থার অবনতি ঘটায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ঢাকা মেডিকেলে পাঠানো হয়েছে।

সময়ের কন্ঠস্বর

Leave a Reply