মনে পড়ে সেই ভয়াল দৃশ্য

২০১৪ সালের ৪ আগস্ট মাওয়াঘাটের অদূরে পদ্মায় পিনাক-৬ নামে লঞ্চটি ডুবে যায়। এরই মাঝে সময় কেটে গেছে ২ বছর। সেই সময় বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার মাওয়াঘাটের অদুরে পদ্মায় এ লঞ্চডুবি হয়।

লঞ্চটি ডুবে যাওয়ার ঠিক আগ মুহূর্তে পাশের একটি ফেরি থেকে একজন ভিডিও করে রাখেন সেই ভয়াবহ দৃশ্য। পরবর্তীতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এটিই হয়ে যায় ব্যাপক আলোচিত এক ভিডিও।

লঞ্চটি ডুবে যাওয়ার ঠিক আগ মুহূর্তে যিনি ভিডিওটি করেন ও তার আশপাশের সবাই বেশ ভীত হয়ে পড়েন। তাদের সবাইকে ‘আল্লাহ, আল্লাহ’ এবং ‘লা ইলাহা ইল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ’ বলে আর্তনাদ করতে শোনা যায়। একটা সময় নদীতে বিলীন হয়ে যায় পিনাক-৬।

ডুবের যাওয়ার পর টানা আট দিনের উদ্ধার অভিযানেও লঞ্চটির সন্ধান মেলেনি। পদ্মায় অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি সম্পন্ন জাহাজ কাণ্ডারী-২ ও জরিপ-১০ অনুসন্ধান চালায় লঞ্চ উদ্ধারে। তন্নতন্ন করে খোঁজ করেও পিনাক-৬ লঞ্চ উদ্ধারে জরিপ ও কাণ্ডারীর অনুসন্ধানী অভিযান ব্যর্থ হলে উদ্ধার কাজের সমাপ্তি টানা হয়।

এদিকে, লঞ্চডুবির ঘটনায় মুন্সীগঞ্জের লৌহজং থানায় দায়ের করা মামলার তেমন কোনো অগ্রগতি লক্ষ্য করা যায়নি। আজো মামলার চার্জশিট পর্যন্ত দাখিল করেনি পুলিশ। লঞ্চডুবির পরদিন বিআইডব্লিউটিএর পরিবহন পরিদর্শক জাহাঙ্গীর ভুঁইয়া বাদী হয়ে ছয়জনকে আসামি করে মামলাটি দায়ের করেন।

মামালার ২ আসামি লঞ্চ মালিক আবু বকর সিদ্দিক ও তার ছেলে ওমর ফারুক গ্রেফতার হয়ে দীর্ঘ দিন কারাবন্দী ছিলেন। সম্প্রতি জামিনে বেরিয়ে আসেন তারা। কিন্তু মামলার বাকী ৪ আসামির কাউকেই গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

লৌহজং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনিছুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, লঞ্চ মালিক আবু বকর সিদ্দিক ও ছেলে ওমর ফারুক গ্রেফতার হয়ে দীর্ঘদিন জেলা কারাগারে বন্দি থাকার পর আদালত থেকে জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। মামলার বাকী চার আসামি আজো পলাতক রয়েছেন। মামলাটির চার্জশিট দেওয়া হয়নি।

অন্যদিকে, নিখোঁজ প্রিয়জনের খোঁজে আজো পথ চেয়ে আছেন স্বজনরা। অন্তত লাশটা পাওয়া গেলে কবর দেওয়া যেত।

দ্য রিপোর্ট

Leave a Reply