মুন্সীগঞ্জে ৪০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎকেন্দ্র হচ্ছে

ব্যয় ২৮৩ কোটি ২৯ লাখ টাকা
মুন্সীগঞ্জে ৪০০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করা হচ্ছে। এতে ব্যয় হবে মোট ২৮৩ কোটি ২৯ লাখ টাকা।

মুন্সীগঞ্জ জেলার গজারিয়ায় এ বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনে ৩০০ একর জমি অধিগ্রহণের উদ্যোগ নিয়েছে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়।

এ-সংক্রান্ত একটি প্রকল্প জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) আগামী সভায় উপস্থাপন হতে পারে বলে জানা গেছে। অনুমোদন পেলে ২০১৮ সালের জুনের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে ইলেকট্রিসিটি জেনারেশন কোম্পানি অব বাংলাদেশ (ইজিসিবি) লিমিটেড।

এ বিষয়ে পরিকল্পনা কমিশনের শিল্প ও শক্তি বিভাগের সদস্য জুয়েনা আজিজ পরিকল্পনা কমিশনের মতামত দিতে গিয়ে বলেন, ‘গ্যাসের স্বল্পতার বিষয়টি বিবেচনায় রেখে বাংলাদেশ সরকার ২০৩০ সাল নাগাদ বিদ্যুৎ উৎপাদনের ৫০ শতাংশ কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে। এই প্রকল্পটি মুন্সীগঞ্জ জেলায় ৩০০ থেকে ৪০০ মেগাওয়াট সুপার ক্রিট্রিক্যাল কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের সহায়ক অবকাঠামো নির্মাণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে পরিকল্পনা কমিশন মনে করে।’

বিদ্যুৎ বিভাগের একজন কর্মকর্তা জানান, বাংলাদেশ সরকার দেশের বিদ্যুৎ খাত উন্নয়নে ২০১০ সালে পাওয়ার সিস্টেম মাস্টার প্ল্যান প্রণয়ন করেছে। এই মাস্টার প্ল্যানে গ্যাস স্বল্পতার কারণে বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য কয়লাকে প্রধান জ্বালানি হিসাবে ব্যবহার করে জ্বালানি বহুমুখীকরণে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। এই পরিকল্পনায়, ২০৩০ সাল নাগাদ মোট বিদ্যুৎ উৎপাদনের ৫০ শতাংশ কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় ৩০০ থেকে ৪০০ মেগাওয়াট কয়লাভিত্তিক সুপার ক্রিট্রিক্যাল টেকনোলজির বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।

এই বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনে প্রস্তুতিমূলক কার্যক্রম হিসেবে প্রাথমিক পর্যায়ে ভূমি অধিগ্রহণ, পুনর্বাসন এবং পরিবেশগত প্রভাব নিরূপণের জন্য প্রকল্পটির প্রস্তাব করা হয়েছে। এজন্য বিদ্যুৎ বিভাগকে ৩০০ একর ভূমি অধিগ্রহণের প্রশাসনিক অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

বিদ্যুৎ বিভাগ থেকে জানা গেছে, প্রস্তাবিত প্রকল্পটি মেঘনা নদীর তীরবর্তী হওয়ায় বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণে ভারী যন্ত্রপাতি ও পরিচালনে প্রয়োজনীয় কয়লা পরিবহনে সুবিধাজনক হবে। প্রস্তাবিত ৩০০ একর ভূমিতে বয়লার, টারবাইন, চিমনি, পানি শোধনাগার এবং বার্জ থেকে কয়লা মজুদ ব্যবস্থাপনার জন্য জেটি ইত্যাদি স্থাপনা নির্মাণ করা হবে।

সাধারণ অর্থনীতি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় বিদ্যুতের অবকাঠামোগত উন্নয়নের মাধ্যমে দারিদ্র্য বিমোচন ও অর্থনৈতিক উন্নয়নের ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় ২০২০ সালের মধ্যে ২৩ হাজার মেগাওয়াট ও ২০৩০ সালের মধ্যে ৪০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। কারণ বিদ্যুৎ ব্যবহারকে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের অন্যতম প্রধান মানদণ্ড হিসেবে গণ্য করা হয়।

জোসনা জামান, দ্য রিপোর্ট

Leave a Reply