কাজে আসছে না সিরাজদীখানের ব্রিজ

মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ীর বেতকা যাওয়ার একমাত্র সহজ যোগাযোগ ব্যবস্থা ঢাকার কেরানীগঞ্জের তেঘরিয়া সড়কটি। কেরানীগঞ্জের মোল্লারহাট ধলেশ্বরী সংযোগ ব্রিজটি না থাকায় তিন জেলার মানুষ চরম ভোগান্তির মধ্যে যাতায়াত করছে। অন্যদিকে, মুন্সীগঞ্জের সিরাজদীখান উপজেলার বালুচরে বেতকা-তেঘরিয়া সড়কের ধলেশ্বরী নদীর ওপর ২৭ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত ব্রিজটি তেমন কোনো কাজে আসছে না বলে অভিযোগ করেছে প্রশাসন ও স্থানীয় লোকজন।

কেরানীগঞ্জের একটি ব্রিজের জন্য মুন্সীগঞ্জ জেলার তিন উপজেলা টঙ্গিবাড়ী, সিরাজদীখান ও লৌহজং, নারায়ণগঞ্জ জেলার ফতুল্লা এবং ঢাকা জেলার হাজারো মানুষের যাতায়াত, পণ্য পরিবহনসহ ভোগান্তির শেষ নেই। মুন্সীগঞ্জ জেলায় যেতে ধলেশ্বরীর ওপর ব্রিজ না থাকায় মানুষ এখন বেকায়দায় পড়েছে। কেরানীগঞ্জ ও সিরাজদীখান উপজেলায় লাখ লাখ মানুষের বসবাস। দীর্ঘদিন ধরে এ দুই উপজেলার সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন থাকায় সব ধরনের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে পিছিয়ে রয়েছে। বালুচর বাজার থেকে ২ কিলোমিটার পিচঢালাই রাস্তা ধলেশ্বরী দ্বিতীয় শাখা নদীর বক্তারচর সিরাজদীখান সীমানা পর্যন্ত। অপরপ্রান্ত কেরানীগঞ্জ উপজেলার সীমানা মোল্লারহাট।

এ রাস্তাটি সিরাজদীখানের সাপেরচর বয়রাগাদি হয়ে দক্ষিণ কোরানীগঞ্জের পোস্তগোলা বুড়িগঙ্গা-১ নম্বর সেতুর কাছে ঢাকা-মাওয়া সড়কের সঙ্গে সংযুক্ত। কেরানীগঞ্জের মোল্লারহাট ধলেশ্বরী দ্বিতীয় সেতুটি নির্মাণ হলে ঢাকা-মাওয়া রুটের চাপ অনেকটা কমে আসবে। দুই পারেই পাকা রাস্তা এসে শেষ হয়েছে প্রায় চার বছর আগে। কিন্তু কেরানীগঞ্জে ধলেশ্বরী সংযোগ ব্রিজটি না থাকায় দুই পারের চকচকে পাকা রাস্তা ও বালুচর ধলেশ্বরী-১ সেতুটি কোনো কাজে আসছে না।

তেঘরিয়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান হাজি মোহাম্মদ জজ মিয়া বলেন, রাজধানীসহ আশপাশের লোকজনের মুন্সীগঞ্জ জেলা সিরাজদীখানের একমাত্র সহজ পথ তেঘরিয়া সড়কটি। রাস্তাটির কাজ সমাপ্ত হলেও বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে ধলেশ্বরী সংযোগ ব্রিজটি না হওয়ায়। সিরাজদীখান উপজেলা প্রকৌশলী মো. আমিনুর রহমান জানান, কেরানীগঞ্জের তেঘরিয়া মোল্লারহাট ধলেশ্বরী-২ নদীর ওপর আরেকটি সেতু না হওয়ায় নির্মাণ হওয়া সেতুর কোনো সুফল পাওয়া যাচ্ছে না।

মোহাম্মদ রায়হান খান ও ইমতিয়াজ উদ্দিন বাবুল – সমকাল

Leave a Reply