গভীর শোক, বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় জাতীয় শোক দিবস পালন

গভীর শোক, বিনম্র শ্রদ্ধা আর অন্তর নিংড়ানো ভালোবাসায় জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে জাপানে। দিবসটির তাৎপর্যে টোকিওস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস এক কর্মসূচি ঘোষণা করে। দূতাবাসের নিজস্ব ওয়েবসাইটে দেয়া ঘোষণায় প্রবাসীদের আমন্ত্রণ জানানো হয়।

সকাল ও বিকেলের অনুষ্ঠান নাম দিয়ে দূতাবাসের কর্মসূচিকে ২টি ভাগে ভাগ করা হয়।

স্বাধীনতার মহান স্থপতি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪১তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগম্ভীর পরিবেশে পালনের উদ্দেশে বাংলাদেশ দূতাবাস জাপান কর্তৃক আয়োজিত সকালের অনুষ্ঠানসূচির মধ্যে অন্যতম ছিল দূতাবাস প্রাঙ্গণে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা আনুষ্ঠানিকভাবে অর্ধনমিতকরণ, জাতীয় সংগীত পরিবেশন, জাতির জনক ও তার পরিবারের শাহাদাতবরণকারী সদস্যবৃন্দের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন এবং তাদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত।

সকালের কর্মসূচির অংশ হিসেবে নবনির্মিত দূতাবাস ভবন প্রাঙ্গণে আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন শেষে অর্ধনমিত করেন রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা।
সকালের আয়োজনে প্রতিবারের মতো এবারও জাপান আওয়ামী লীগের পরীক্ষিত নেতা, সভাপতি সালেহ্ মোঃ আরিফ, সাধারণ সম্পাদক খন্দকার আসলাম হিরা, মোঃ সোহেল রানা, মোল্লা অহিদুল ইসলাম, ডা. খলিলুর রহমান ছাড়া আওয়ামী লীগের আর কাউকে দেখা যায়নি। আওয়ামী লীগের নেতা বনে যাওয়া অংশটি বরাবরের মতো এবারও ঘুমের ব্যাঘাত ঘটিয়ে বঙ্গবন্ধুকে শ্রদ্ধা জানাতে দূতাবাস প্রাঙ্গণে হাজির হননি। তবে সহযোগী সংগঠন যুবলীগের সভাপতি এবিএম শাহজাহানের নেতৃত্বে ৬ জন নেতা এবং বঙ্গবন্ধু পরিষদের সহ-সভাপতি আলাউদ্দিনকে অংশ নিতে দেখা যায়।

বিকেলের অনুষ্ঠানসূচিতে ছিল জাতীয় সংগীত পরিবেশন, ১৫ আগস্ট ’৭৫ সালের কালো রাতে জাতির জনক ও তার পরিবারের শাহাদাতবরণকারী সদস্যবৃন্দ ও অন্যান্য শাহাদাতবরণকারী সদস্যবৃন্দের স্মরণে ১ মিনিট নীরবতা পালন, জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, দিবসটি উপলক্ষে মহামান্য রাষ্ট্রপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী প্রদত্ত বাণী পাঠ, বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের উপর প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন, বঙ্গবন্ধুর কর্মময় জীবন ও স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ে তার অসামান্য অবদানের উপর আলোচনা সভা এবং সব শেষে ১৫ আগস্ট ১৯৭৫ শাহাদাতবরণকারীদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত।

দূতাবাস প্রাঙ্গণে সকালের আয়োজনে জাপান আওয়ামী লীগের নেতা বনে যাওয়াদের টিকিটি দেখা না গেলেও বিকেলের আয়োজনে দূতাবাস মিলনায়তনে তাদের সরব উপস্থিতি ছিল।

বঙ্গবন্ধুর কর্মময় জীবন ও মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে তার অসামান্য অবদানের উপর আলোকপাত করে বক্তব্য রাখেন আব্দুর রহমান, কাজী ইনসান, সালেহ্ মোঃ আরিফ, খন্দকার আসলাম হিরা, কাজী লাল, নাজমুল ইসলাম, হাকিম মোঃ নাসিরুল প্রমুখ।

রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা তার সমাপনী বক্তব্যে বলেন, চিরঞ্জীব এক চেতনার নাম বঙ্গবন্ধু। বাঙালি জাতির রাজনৈতিক স্বাধীনতার পাশাপাশি অর্থনৈতিক মুক্তি অর্জন ছিল তার সংগ্রামী জীবনের মূল লক্ষ্য। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিল ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত, খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ বাংলাদেশ। এই স্বপ্ন পূরণে তার তনয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। তারই নেতৃত্বে স্বনির্ভর বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে আমাদের সবাইকে একযোগে কাজ করে যেতে হবে।

rahmanmoni@gmail.com
সাপ্তাহিক

Leave a Reply