মুন্সীগঞ্জ টু মাদারীপুর পয়েন্টে নৌপথের দূরত্ব কমছে

দক্ষিণাঞ্চলের ২১টি জেলার মানুষের নৌ-পথের চলাচলের কষ্ট লাঘবে পদ্মা সেতু নির্মাণের পাশাপাশি চলমান নদী পথের দূরত্ব কমিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

মুন্সীগঞ্জ টু মাদারীপুর পয়েন্টে সেই সিদ্ধান্তের কাজ এখন বাস্তবায়নের পথে। কাওরাকান্দি ঘাট পাঁচ কিলোমিটার পূর্বে এগিয়ে কাঁঠাল বাড়ি নৌ ঘাট সম্প্রসারণ করা হচ্ছে। সংশ্লিষ্টরা আশা করছেন চলতি বছরের শেষে এই নৌ-পথের দূরত্ব কমবে সাড়ে পাঁচ কিলোমিটার। ফলে যাত্রীদের কষ্ট লাঘবের পাশাপাশি সময় ও নৌযানের জ্বালানি খরচও বাঁচবে বলে ঘাট সংশ্লিষ্টরা মনে করেন।

কাওরাকান্দি ঘাট সূত্র জানায়, চলতি বছরের শেষ সপ্তাহে কাওরাকান্দির ফেরি, লঞ্চসহ নৌযানের ঘাট সরিয়ে কাঁঠালবাড়িতে স্থানান্তর করা হবে। এ জন্য কাঁঠাল বাড়ি ঘাটের আশপাশে প্রস্তুতি নিয়ে রাখা হয়েছে।

শিমুলিয়া থেকে কাওরাকান্দির দূরত্ব সাড়ে চৌদ্দ কিলোমিটার। সম্প্রসারিত কাঁঠাল বাড়ি ঘাট থেকে কাওরাকান্দি ঘাটের দূরত্ব সাড়ে পাঁচ কিলোমিটার। ফলে নৌ-পথের দূরত্ব কমবে সাড়ে পাঁচ কিলোমিটার।

সাড়ে চৌদ্দ কিলোমিটার নৌ-পথ অতিক্রম করতে রো রো ফেরির সময় লাগে দেড় ঘণ্টা। টানা ফেরিতে (একটি টেনে আরেকটি যায়) সময় লাগে দুই ঘণ্টা থেকে আড়াই ঘণ্টা। সম্প্রসারিত কাঠাল বাড়ির ঘাট চালু হলে প্রত্যেকটি নৌ-যানের লোড-আনলোড করতে আধা ঘণ্টা থেকে পৌনে এক ঘণ্টা সময় কম লাগবে।

সম্প্রসারিত ঘাটের জন্য ইতোমধ্যে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের পাঁচ্চর তেলের পাম্প থেকে কাঁঠালবাড়ি ঘাট পর্যন্ত চার লেনের মহাসড়কের নির্মাণ কাজ শেষ করা হয়েছে। ফলে পাঁচ্চর বাসস্ট্যান্ড থেকে কাওরাকান্দি ঘাটে যানজট মাঝে মধ্যে দেখা গেলেও পাঁচ্চর থেকে কাঁঠালবাড়ি ঘাট পথে কোনো যানজট থাকবে না বলে আশা করা হচ্ছে।

সংশ্লিষ্টরা আশা করছেন ডিসেম্বরের ১৮ তারিখের পর যেকোন সময় ঘাটটি পুরোদমে চালু করা হবে।

বর্তমানে পাঁচ্চর থেকে কাওরাকান্দি যেতে একটি বাজার (বেইলীর বাজার) ও একটি সরু বেইলি ব্রিজ পড়ে, যার কারণে রাস্তায় কিছুটা যানজট তৈরি হয়।

শিমুলিয়া ও কাওরাকান্দি নৌ-রুটের বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) সংরক্ষণ ও নৌ-যান পরিচালনা বিভাগের উপ-পরিচালক মো. আজগর জাগোনিউজকে বলেন, নতুন নৌ-ঘাটটি চালু হলে আমরা অধিক পরিমাণে ফেরি ও লঞ্চ পারাপার করতে পারবো। দূরত্ব কমার পাশাপাশি ভোগান্তি, পরিবহন ব্যয়, সময় বাঁচবে।

কবে নাগাদ উদ্বোধন করা হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আশা করছি ১৮ ডিসেম্বর বা তারপরে যে কোনো সময় ঘাটটি চালু হতে পারে। নির্দিষ্ট করে দিন এখই বলা যাচ্ছে না। কারণ, আমরা আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানি না। তাছাড়া ঘাট ‘সেট আপের’ বিষয়টি এখনও নিশ্চিত হয়নি।

জাগো নিউজ

Leave a Reply