তদন্ত কমিটি গঠন: জেলা প্রশাসকের ৫৭টি বিদায় সংবর্ধনা

মোজাম্মেল হোসেন সজল: বিদায়ী জেলা প্রশাসক মো. সাইফুল হাসান বাদলকে ১৭ দিনের ব্যবধানে ৫৭টি বিদায় সংবর্ধনায় স্বর্ণের চাবিসহ উপঢৌকন হিসেবে স্বর্ণালঙ্কার নেয়া ও তার বিভিন্ন অনিয়ম-দুর্নীতির বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার জনাব মো. হেলালউদ্দিনকে প্রধান করে মন্ত্রী পরিষদ বিভাগ এ কমিটি গঠন করেন।এ কমিটির সদস্যবৃন্দরা অচিরেই মুন্সীগঞ্জে তদন্তে নামবেন।ওইদিন জেলা প্রশাসক সাইফুল হাসান বাদলের বিচার দাবিতে মুন্সীগঞ্জে কর্মরত একাংশের সংবাদকর্মীরাও মুখে কালো পতাকা ও কালো ব্যাজ ধারণ করে কর্মসূচি পালন করবেন।

এদিকে, জেলা প্রশাসক সাইফুল হাসান বাদল স্বর্ণের চাবি ও স্বর্ণালঙ্কারসহ বিভিন্ন উপঢৌকন মিলিয়ে প্রায় অর্ধ কোটি টাকার মূল্যের সামগ্রী নিয়েছেন।

অন্যদিকে মুন্সীগঞ্জ পৌরসভা কর্তৃক আয়োজিত বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সদ্য বিদায়ী জেলা প্রশাসক মো. সাইফুল হাসান বাদলকে স্বর্ণের তৈরি চাবি উপহার দেওয়া হয়েছে। ছবিতে মো. সাইফুল হাসান বাদলকে স্বর্ণযুক্ত উপহার গ্রহণ করতে দেখা যাচ্ছে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ১লা সেপ্টেম্বর থেকে ১৭ ই সেপ্টেম্বর পর্যন্ত নতুন জেলা প্রশাসকের কাছে দায়িত্ব হস্তান্তরের আগ পর্যন্ত সদ্য বিদায়ী জেলা প্রশাসক মো. সাইফুল হাসান বাদলকে জেলাব্যাপী বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।জেলার ৬টি উপজেলায় সরকারি ও বেসকারি যেসব প্রতিষ্ঠান ও সংগঠন থেকে তাকে বিদায় সংবর্ধনা দিয়েছে তার মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য হলো-জেলা ইউনিয়ন পরিষদ সেক্রেটারি সমিতি, জেলা পুলিশ বিভাগ, মুন্সীগঞ্জ লেডিস ক্লাব, মুন্সীগঞ্জ মহিলা ক্রীড়া সংস্থা, গজারিয়া উপজেলা প্রশাসন, মুন্সীগঞ্জ পৌরসভা, মিরকাদিম পৌর সভা, জেলার সিভিল সার্জন কার্যালয়, পঞ্চসার আইডিয়েল ইন্সটিটিউট, রাজা শ্রীনাথ ক্লাব, মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাবের একাংশ, মুন্সীগঞ্জ প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগ, সদর উপজেলা পরিষদ, শ্রীনগর উপজেলা পরিষদ, সিরাজদিখান উপজেলা প্রশাসন, ইছাপুরা ইউনিয়ন পরিষদ, টঙ্গীবাড়ী উপজেলা প্রশাসন, লৌহজং উপজেলা প্রশাসন, বাংলাদেশ ভূমি অফিসার্স কল্যাণ সমিতি, রাষ্ট্রপতি ড. ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল কলেজ, এপ্রেক্স ক্লাবের একাংশ, জেলা ক্রীড়া সংস্থা ও জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটসহ বিভিন্ন নামে বেনামের অনেক সংগঠন।

এসব সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও সংগঠন থেকে দেওয়া বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে স্বর্ণের চাবি, দামি দামি স্যুটকোর্ট, সো-পিসসহ বিভিন্ন উপঢৌকন, আড়ং-এর পাঞ্জাবিসহ বিভিন্ন সামগ্রী উপজেলা হিসেবে সদ্য বিদায়ী জেলা প্রশাসক মো. সাইফুল হাসান বাদলকে দেওয়া হয়েছে।এ সময় স্বর্ণালঙ্কারসহ বিভিন্ন উপঢৌকন মিলিয়ে প্রায় অর্ধ কোটি টাকার মূল্যের সামগ্রী পেয়েছেন।এর আগে অন্য কোনো জেলা প্রশাসককে মুন্সীগঞ্জে এত ব্যাপক আকারে বিদায়ী সংবর্ধনা দেওয়া হয়নি। তাই বিষয়টি নিয়ে মুন্সীগঞ্জের সচেতন মহলসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষের কাছে আলোচনা-সমালোচনায় মুখর হয়ে উঠে।জেলার রাজনীতিবিদদের দাবি, মুন্সীগঞ্জে এতো সংবর্ধনা কোনো রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বও পায়নি।জেলার অনেকে এই সংবর্ধনা ও উপহার নেওয়াটাকে মেনে নিতে না পরলেও বাধ্য হয়েই তাদের এই অনুষ্ঠানে থাকতে হয়েছে বলে জানিয়েছেন নানা পেশাজীবী মানুষ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক সংগঠনের আয়োজকদের সঙ্গে কথা হলে তারা জানায়, বিদায়ী জেলা প্রশাসক মো. সাইফুল হাসান বাদল জেলার বিভিন্ন উপজেলাসহ সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে সংবর্ধনা দেওয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করেন। তাদেরকে কিছু উপহার দেওয়া হলে তার পছন্দের সামগ্রী দিতে বলে দিয়েছেন। কোনো কোনো সংগঠনকে বলেছে, আড়ং-এর পাঞ্জাবি দিতে।আড়ং ছাড়া অন্য কোনো ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের পাঞ্জাবি হলে সে গ্রহণ করবে না। এ জন্য একাধিক সংগঠনের আয়োজকরা ঢাকার আড়ং থেকে দামি পাঞ্জাবি ক্রয় করে তার উপহার হিসেবে দিয়েছেন।

উল্লেখ্য, সদ্য বিদায়ী জেলা প্রশাসক মো. সাইফুল হাসান বাদলকে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উপ সচিব পদে বদলী করার প্রজ্ঞাপন জারি হওয়ার খবর পেয়ে একদল তোষামোদকারী ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা তাকে খুশি করার জন্য বিদায় সংবর্ধনা দিতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানান, অতীতে জেলা প্রশাসক হিসেবে কৃতিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করা সাবেক জেলা প্রশাসকদের এমনভাবে বিদায় সংবর্ধনা দেওয়া হয়নি। যেমনটি সদ্য বিদায়ী জেলা প্রশাসক মো. সাইফুল হাসান বাদলকে বিদায় সংবর্ধনা দেওয়া হয়।

বাংলাদেশ কাবাডি ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ও মুন্সীগঞ্জ ক্রীড়া সংস্থার সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. নজরুল ইসলাম এবং বিশিষ্ট সমাজ সেবক মেজর জসিম উদ্দিন (অব:) জানান, মুন্সীগঞ্জের সাবেক ডিসি সাইফুল হাসান বাদলকে যেভাবে সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে তা ময়মনসিংহের সাবেক ডিসির থেকে অনেক বেশি। তার এ সংবর্ধনা স্বাভাবিকতাকে হার মানিয়ে জনমনে নানা প্রশ্নের সৃষ্টি করেছে।

মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি শহীদ-ই-হাসান তুহিন ও বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ভবতোষ চৌধুরী নুপুর জানান, গত বছরের ২০ শে এপ্রিল জেলা প্রশাসক সাইফুল হাসান বাদল কর্তৃক প্রধানমন্ত্রীর ভিডিও কনফারেন্সে স্থানীয় সংবাদকর্মীদের প্রবেশ বাধা দিয়ে বের করে দেয়ার ঘটনা নিয়ে মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সংবাদকর্মীদের সঙ্গে বিরোধ বাধে।এ ঘটনায় মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাবের মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সংবাদকর্মীরা তার বিরুদ্ধে আন্দোলনে নামেন। এরপর জেলা প্রশাসক জামায়াত-বিএনপি সমর্থিত স্থানীয় সংবাদকর্মীদের একাংশ ম্যানেজ করে তার পক্ষে নামান।এরপর মে মাসে অনিয়মতান্ত্রিকভাবে স্থানীয় ৮টি পত্রিকার ডিক্লারেশন বাতিল করে দেন এবং ১১ সংবাদকর্মীর নামে প্রেসকাউন্সিলে মিথ্যা অভিযোগ দেন।

যাওয়ার আগে গত ৩০ শে আগস্ট স্থানীয় আওয়ামী লীগের একাংশের একটি পক্ষকে নদীতে অবৈধ বালু ব্যবসার সুযোগ দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তির সাংবাদিকদের বের করে দিয়ে মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাব দখল করে দিয়ে যান।তার ওই কমিটিতে জেলা শিবিরের প্রতিষ্ঠাতাসহ একাধিক শিবির কর্মী এবং কয়েকজন বিএনপি নেতা ও নেত্রীকে কমিটিতে রয়েছেন।

এদিকে, জেলা প্রশাসক সাইফুল হাসান বাদলের কর্মকাণ্ডে অসন্তুষ্ট হয়ে মুন্সীগঞ্জ আইনজীবী সমিতি তাকে সংবর্ধনা দেননি।

পূর্ব পশ্চিম

Leave a Reply