জেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রার্থীতা নিয়ে নানা গুঞ্জন

আগামী ডিসেম্বর মাসে অনুষ্টিত হবে মুন্সিগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচন। আর এই আসন্ন জেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীতা নিয়ে শোনা যাচ্ছে নানা রকমের গুঞ্জন। প্রথম দিকে একজনের নাম শোনা গেলেও কয়েকদিন ধরে আরো একজনের নাম শোনা যাচ্ছে। এতে এই নির্বাচনী নৌকার পালে হাওয়া লেগেছে। প্রথমে এককভাবে আ’লীগের প্রার্থী হিসেবে জেলা পরিষদ প্রশাসক ও জেলা আ’লীগের সভাপতি মোহাম্মদ মহিউদ্দিনের নাম শোনা যায়। এবার সপ্তাহখানেক ধরে টঙ্গীবাড়ী উপজেলা আ’লীগের সভাপতি জগলুল হালদার ভুতুর নাম শোনা যাচ্ছে। ভোটারদের অনেকের অভিমত হচ্ছে মোহাম্মদ মহিউদ্দিনের সাথে আসলেই কেউ সাহস করে প্রার্থী হতে চাইবে না। বরং এখানে এবার উল্টো ঘটনা ঘটতে চলছে। সাহস করে প্রার্থীর ঘোষণা দিয়েছেন ভুতু। যেকোন মূল্যে তিনি এবার এখানকার প্রার্থী বলে তার সমর্থকরা দাবী করছেন। ভুতুর সমর্থকদের দাবী দল থেকে তাকে মনোনয়ন দেয়া না হলে তিনি বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিবেন। এই নির্বাচনের অংশ হিসেবে কিছুদিন আগে বর্নি হিসেবে বেতকায় ভুতু বৈঠক করেছেন বলে বাজারে খবর চাউর হচ্ছে। অনেক ভোটারের অভিমত হচ্ছে ভুতু হচ্ছে মোহাম্মদ মহিউদ্দিনের ডামি প্রার্থী। যাতে আর কেউ এ পদে প্রার্থী না হয়। কারণ ভুতু হচ্ছে মোহাম্মদ মহিউদ্দিনের অনুগামি।

জেলা পরিষদ কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, মুন্সিগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনে শক্ত অবস্থানে রয়েছে জেলা পরিষদের বর্তমান প্রশাসক জেলা আ’লীগের সভাপতি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্টসহচর এবং বঙ্গবন্ধুর একান্ত চীফ সিকিউরিটি অফিসার বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মোহাম্মদ মহিউদ্দিন আহম্মেদ। তবে মহিউদ্দিন আহম্মেদকে পূনরায় চেয়ারম্যান হিসাবে ফিরে পেতে চাচ্ছে আ’লীগের বৃহৎ একটি অংশ। তার দায়িত্ব থাকাকালীন সময়ে সাধারণ মানুষকে সেবা দিয়েছিলেন এবং বিভিন্ন এলাকায় নানা উন্নয়ন করেছিলেন। কিন্তু তিনি প্রার্থী হিসাবে এখন নিজের নাম ঘোষণা করতে নারাজ। তিনি রয়েছেন দলীয় সিন্ধান্তের অপেক্ষায়। মহিউদ্দিন আহম্মেদ বলেন, আমি দলের লোক আমি দলীয় সিন্ধান্তের বাহিরে কিভাবে যাব। আমি কে? আমি তো দলের লোক। দলের বাহিরে যাওয়ার কোন পথ নেই। দল এবং নেত্রী যে সিদ্ধান্ত দিবে সেটা আমাকে মানতে হবে।

এই পদটিতে অন্য কেউ আসার সম্ভাবনা নেই তবুও লোক মুখে শোনা যাচ্ছে একাধিক প্রার্থীর নাম। এর মধ্যে অন্যতম, টঙ্গীবাড়ী উপজেলা আ’লীগের সভাপতি জগলুল হাওলাদার ভুতু, এর বিরুদ্ধে সাধারনের অভিযোগ মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে তার বাবা এবং তিনি মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী কর্মকান্ডের সাথে জড়িত ছিল বলে দাবি স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের। নাম প্রকাশ না করার শর্তে টঙ্গীবাড়ী উপজেলার আ’লীগের একাধিক আ’লীগের নেতা কর্মী জানান,দল যদি জেনে শুনে একজন স্বাধীনতা বিরোধীকে মনোনয়ন দেয় তাহলে আমাদের কিছু বলার নেই। সরকার যা ভাল মনে করে সেটাই আমাদের মানতে হবে। তারা আরো বলেন, জগলুল হাওলাদার তার নিজের সকল অপকর্ম ধামাচাপা দিতে তিনি বাংলাদেশ আ’লীগে যোগদান করেছেন বলে অভিযোগ স্থানীয় গ্রামবাসীর। অভিযোগটি ভিত্তিহীন উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমি যদি স্বাধীনতার স্বপক্ষের লোক না হতাম তাহলে আমাকে উপজেলা আ’লীগের সভাপতি পদ দিল কেন? আমি নিজের ইচ্ছায় নির্বাচন করবো এবং দল আমাকে মনোনয়ন দিবে বলে আমি আশাবাদী।

অপর যে নামটি শোনা যাচ্ছে তিনি হলেন, মুন্সিগঞ্জ ৩ আসনের সাবেক এমপি এম ইদ্রিস আলী। এ বিষয়ে জানতে চেয়ে এম ইদ্রিস আলীর সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তার সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

এরা তিন জনই আ’লীগের প্রার্থী। অন্যদিকে বিএনপি,জাতীয় পার্টি বা স্বতন্ত্রপ্রার্থী হিসাবে কেউ জেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশ নিবেন কিনা তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে মুন্সিগঞ্জ জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি কুতুব উদ্দিন আহম্মেদ জানান, পার্টির সাথে আলাপ আলোচনা করে জেলা কমিটির সিদ্ধান্তের আলোকে জাতীয় পার্টি থেকে একজনকে নমিনেশান দেওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার এম এ কাদের মোল্লা বলেন, জগলুল হাওলাদার ভুতু ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের লোক হিসাবে কোন কাজ করেনি। তাহলে তাকে বড় একটি পদ দিল কেন? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, যারা তাকে পদ দিয়েছিল তখন তিনি হয়তো তাদের আস্থাভাজন ছিল।
জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোঃ ফয়সাল কাদের জানান,জেলা পরিষদ নির্বাচনে ৬৭ টি ইউনিয়ন, ৬ টি উপজেলা ও ২টি পৌরসভার নির্বাচিত জন প্রতিনিধিগন ভোটার হিসাবে ভোট দিতে পারবে।

যদি কোনভাবে এই নির্বাচনে এম ইদ্রিস আলী প্রার্থী হন তবে তার সাথে অনেক শক্তিশালী প্রার্থীও ধরাশায়ি হতে পারেন বলে গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে।

অনেকের অভিমত হচ্ছে, এই নির্বাচনে অনেক সংসদ সদস্য চাচ্ছেন সাবেক সংসদ সদস্য এম. ইদ্রিস আলী আসুক। কারণ রাজনীতিতে তিনি ক্লিন ইমেজের মানুষ। তবে এই নির্বাচনে নাটকিয় ঘটনা ঘটতে পারে বলে অনেকেই মনে করছেন।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply