বাংলাদেশি চিত্রশিল্পীদের আন্তর্জাতিক পুরস্কার লাভ

রাহমান মনি: আন্তর্জাতিক চিত্রকর্ম প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে বাংলাদেশি দুজন চিত্রশিল্পী জাপান জয় করে গেলেন। এই দুজন চিত্রশিল্পী হলেন ইউনিভার্সিটি অব ডেভেলপমেন্ট অলটারনেটিভ (টউঙঅ) এর চারুকলা বিভাগের চেয়ারম্যান সাহজাহান আহমেদ বিকাশ এবং বাংলাবাজার সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক মো. ফজলুর রহমান ভুটান।

টোকিওর মেট্রোপলিটন আর্ট মিউজিয়ামের সিটিজেন গ্যালারিতে সপ্তাহব্যাপী (২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬ থেকে ২ অক্টোবর ২০১৬) বিভিন্ন দেশের আন্তর্জাতিক খ্যাতিমান চিত্রশিল্পীদের বিভিন্ন চিত্রকর্ম স্থান পায়। প্রদর্শনীতে বড়দের চিত্রকর্মের পাশাপাশি বাংলাবাজার সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের খুদে চিত্রশিল্পীদেরও বিভিন্ন চিত্রকর্ম স্থান পায়। এর মধ্যে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রতিকৃতি এঁকে সাহজাহান আহমেদ বিকাশ জাপানের শিক্ষা, সংস্কৃতি, ক্রীড়া, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের মোনবু-কাগাকু দাইজিন পুরস্কার লাভের গৌরব অর্জন করেন। মো. ফজলুর রহমান ভুটান একই প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে সেমি গ্রান্ড পুরস্কার লাভের গৌরব অর্জন করেন।
শিশুদের বিভাগে পুরস্কার প্রদানের নিয়ম না থাকায় বিশেষ কাউকে কিংবা কোনো দেশকে পুরস্কৃত ঘোষণা করা হয়নি। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় বেশ কয়েকটি দেশের খুদে চিত্রশিল্পীদের চিত্রকর্ম প্রদর্শনীতে স্থান পেলেও বাংলাদেশি খুদে চিত্রশিল্পীদের চিত্রকর্ম প্রশংসিত হয়।

১ অক্টোবর ২০১৬ টোকিও মেট্রোপলিটন আর্ট মিউজিয়ামের ভিআইপি লাউঞ্জে জমকালো এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বাংলাদেশি দুজন চিত্রশিল্পীসহ পুরস্কারপ্রাপ্ত অন্য চিত্রশিল্পীদের হাতে এ কৃতিত্বের সম্মাননা স্বীকৃতি তুলে দেয়া হয়। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন দেশের চিত্রশিল্পী এবং সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর কূটনৈতিক প্রতিনিধিদের পাশাপাশি বাংলাদেশ দূতাবাস প্রতিনিধি হিসেবে কাউন্সিলর ড. জিয়াউল আবেদিন উপস্থিত ছিলেন। তিনি অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য প্রদান করেন। রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা ব্যস্ততার কারণে কাউন্সিলর জিয়াউল আবেদিন অংশ নিয়ে বাংলাদেশি চিত্রশিল্পীদের উৎসাহিত করেন। এ ছাড়াও প্রবাসী মিডিয়াকর্মী সাপ্তাহিক জাপান প্রতিনিধি রাহমান মনি এবং চিত্রকর্মপ্রেমী প্রবাসীরা উপস্থিত ছিলেন পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে।

জাপানের স্বনামধন্য এই কিয়োকুবি চিত্রকর্ম প্রতিযোগিতা দীর্ঘদিন ধরে আয়োজিত হয়ে আসলেও এ পর্যন্ত তা কেবল জাপানি চিত্রশিল্পীদের জন্য উন্মুক্ত ছিল। এই বছর প্রথমবারের মতো তা আন্তর্জাতিক চিত্রশিল্পীদের জন্য দ্বার উন্মোচিত হয়। আর প্রথমবারের মতো অংশগ্রহণের সুযোগ পাওয়ায় জাপানি চিত্রশিল্পীদের চিত্রকর্ম ছাড়াও ১৭৯টি চিত্রকর্ম স্থান পায় প্রদর্শনীতে।

কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জাপান আগমনের শতবর্ষ (১৯১৬) উপলক্ষে সাহজাহান আহমেদ বিকাশের তেলরঙে আঁকা ৫ ফুট বাই ৪ ফুট (রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রতিকৃতি সংবলিত) ‘ব্লম টাইম অব হানড্রেড ইয়ারস’ শিরোনামের চিত্রকর্মটি স্থান পায় এবং বিভিন্ন ক্যাটাগরির মধ্যে জাপানের শিক্ষা, সংস্কৃতি, ক্রীড়া, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের মোনবু-কাগাকু-দাইজিন পুরস্কার অর্জন করতে সক্ষম হয়।

একই প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে মো. ফজলুর রহমান ভুটান বাংলাদেশের গৌরব রয়েল বেঙ্গল টাইগার সংবলিত ‘গ্লোবাল টাইগার’ শিরোনামের চিত্রকর্ম এঁকে সেমি গ্রান্ড পুরস্কার প্রাপ্তির গৌরব অর্জন করে বাংলাদেশি চিত্রশিল্পীদের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেন।

জাপান আয়োজিত কোনো চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় সাহজাহান আহমেদ বিকাশ প্রথমবারের মতো অংশ নিয়ে পুরস্কার পেলেও মো. ফজলুর রহমান ভুটান কিন্তু এর আগেও একাধিকবার জাপান আয়োজিত চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে পুরস্কার পাওয়ার গৌরব অর্জন করেন। সর্বশেষ ২০১২ সালের সেপ্টেম্বর মাসে তিনি পুরস্কারে ভূষিত হয়েছিলেন।

সাজাহান আহমেদ বিকাশ ২০০০ এবং ২০০১ সালে বঙ্গবন্ধু অ্যাওয়ার্ড এবং ২০১৫ সালে চীনে আয়োজিত অ্যাওয়ার্ড অব গ্লোবাল কালচারাল আর্টিস্ট পুরস্কার জয়ের গৌরব অর্জন করেন।

শৈশবে মাতৃহারা বিকাশ মামার স্নেহে মামার বাড়িতেই বেড়ে ওঠেন। তৃতীয় শ্রেণিতে পড়াকালীন সময়ে আঁকাআঁকিতে তার হাতেখড়ি। উৎসাহের অনেকটাই তিনি মামার কাছ থেকেই পেয়েছিলেন। তার অসংখ্য কাজের সিংহভাগজুড়ে রয়েছে মানুষের প্রতিকৃতি আঁকা। মাত্র দেড় বছর বয়সে তিনি জন্মদাত্রী মাকে হারান। মায়ের মুখাবয়ব তার মনে নেই। তাই মানুষের প্রতিকৃতি এঁকেই তাতে তিনি তার মায়ের মুখ খোঁজার চেষ্টা করেন। কেবলমাত্র জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি এঁকেছেন পাঁচ শতাধিক। এছাড়াও তিনি জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম, বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরসহ বিশ্ব সেলিব্রেটিদের অনেক প্রতিকৃতি এঁকেছেন। প্রতিকৃতিতে তার কাজের সংখ্যা ১০ হাজার ছুঁই ছুঁই করছে।

আরেক চিত্রশিল্পী ফজলুর রহমান ভুটান শৈশবে শিশু চিত্রশিল্পী হিসেবে চারবার ঢাকা বিভাগে ১ম স্থানসহ ১৯৮১ সালে জাতীয় পুরস্কার লাভ করেন। এই সময় তিনি মুন্সিগঞ্জ কে. কে. গভ. ইনস্টিটিউটের ছাত্র ছিলেন। বাংলাদেশের প্রখ্যাত চিত্রশিল্পী আব্দুল হাই-এর কাছেই চিত্রকর্মে হাতেখড়ি নেন।

ভুটান কালের ছবি, মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর অ্যাসোসিয়েশন, মুন্সিগঞ্জ সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট সম্মাননা অর্জনসহ বহু আন্তর্জাতিক চিত্রকর্ম প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে পুরস্কারে ভূষিত হন। তার মধ্যে ইতালির বোলজানু এবং জাপানের গ্লোবিয়া আর্ট ফাউন্ডেশন অন্যতম। বর্তমানে তিনি বাঘ নিয়ে কাজ করছেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদ থেকে ডিগ্রি অর্জনকারী ভুটান শিক্ষকতা পেশায় নিজেকে নিয়োজিত করলেও বহু সামাজিক-সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িত। একজন রাজনৈতিক সচেতন হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালীন ১৯৮৯ সালে স্যার এফ রহমান হল সংসদ নির্বাচনে জয়ী হয়ে সহ-সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯৮ সালে ঢাকা টিসার্চ ট্রেনিং কলেজের নির্বাচিত ভিপির দায়িত্বে ছিলেন।

এ ছাড়াও ভুটান বান্দরবান, সুন্দরবনের গুরুত্বপূর্ণ আর্ট ক্যাম্পসহ দেশ-বিদেশে অনেক গুরুত্বপূর্ণ আর্ট ক্যাম্পে অংশগ্রহণ, চলচ্চিত্র নির্মাণ, চলচ্চিত্রের ভাষা, স্ক্রিপ্ট রাইটিং, শিল্প নির্দেশনা বিভিন্ন কর্মশালায় অংশ নিয়ে নিজেকে প্রশিক্ষিত করে গড়ে তুলেছেন। বাংলাদেশ চারুশিল্পী সংসদের একজন সম্মানিত সদস্য মো. ফজলুর রহমান ভুটান।

প্রকৃতি এবং পরিবেশগত কারণেই জাপানিরা যেমন চিত্রকর্মের প্রতি আগ্রহী তেমনি পারদর্শীও বটে। এখানে কিন্ডারগার্টেনগুলোতে চিত্রাঙ্কন শিক্ষা শুরু হয়। শুধুমাত্র শিক্ষা দিয়েই নয় বিভিন্নভাবে উৎসাহিতও করা হয়। শিশুদের চিত্রাঙ্কনে উৎসাহিত করার জন্য বিভিন্ন বই-খাতা যেমন বাজারে পাওয়া যায়, তেমনি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, শপিংমল, কিংবা স্থানীয় প্রশাসনও বিনামূল্যে চিত্রাঙ্কনের সুযোগ সৃষ্টি করে থাকে। এছাড়া ডে-কেয়ারগুলোতে শিশুরা সবসময় চিত্রাঙ্কন করার সুযোগ পেয়ে থাকে। সেই তুলনায় বাংলাদেশি শিশুদের তেমন কোনো সুবিধা নেই বললেই চলে। যা কিছু হচ্ছে তার সবটাই ব্যক্তি উদ্যোগ কিংবা পারিবারিক উৎসাহে। তারপরও আমাদের ছেলেমেয়েরা অনেক ভালো করছে। আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে পুরস্কার ছিনিয়ে নিচ্ছে। পৃষ্ঠপোষকতা পেলে আরও ভালো করবে তারা।

সাহজাহান আহমেদ বিকাশ এবং মো. ফজলুর রহমান ভুটান জাপান সাতো অইয়ানো কাই-এর আমন্ত্রণে (২৯ সেপ্টেম্বর থেকে ৫ অক্টোবর) জাপান সফর করেন।
rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply