বহুমাত্রিক সাংস্কৃতিক উৎসব

রাহমান মনি: জাপানে অনুষ্ঠিত হয়েছে বহুদেশীয় এবং বহুমাত্রিক সাংস্কৃতিক উৎসব ২০১৬। গ্লোবাল পিস ফাউন্ডেশন জাপান’র আয়োজনে ১০ অক্টোবর টোকিওর ডাউন টাউন খ্যাত আসাকুসা সংলগ্ন সুমিদা রিভারসাইড হলে উৎসবের নাম দেয়া হয়েছিল মাল্টিকালচারাল ওয়ান ফ্যামিলি ফেস্টিভ্যাল ২০১৬। এটা ছিল গ্লোবাল পিস ফাউন্ডেশন জাপানের দ্বিতীয়বারের মতো আয়োজন। এর আগে ২০১৫তে একই ব্যানারে টোকিওর প্রাণকেন্দ্র, জাপান পার্লামেন্ট, বিভিন্ন মন্ত্রণালয় এবং জাপান সম্রাটের বাসভবন ও জাপান প্রেস সেন্টার সংলগ্ন হিবিয়া পার্কে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

দিনব্যাপী উৎসবে মেতে উঠেছিল বিভিন্ন ধর্ম, বর্ণ, ভাষা ও বহুদেশীয় সংস্কৃতিপ্রেমীরা। আয়োজক সংগঠনের চেয়ারম্যান কাজুহিরো হানদা স্বাগত ও শুভেচ্ছা বক্তব্যের মাধ্যমে ফেস্টিভ্যাল ২০১৬ উদ্বোধন ঘোষণা করা হয়। এর পর বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূতদের মধ্য থেকে গুয়াতেমালার রাষ্ট্রদূত এঞ্জেলা মারিয়া দ্য লাওরদেশ চাভেজ বেইট্টি এবং ডোমিনিকান রিপাবলিকের রাষ্ট্রদূত হেক্টর পি. দোমিনগুয়েজ উৎসবের সাফল্য কামনা করে এবং নিজ নিজ দেশের পরিচিতি তুলে ধরেন। এই সময় তারা ফেস্টিভ্যালে নিজ নিজ দেশের পণ্য সামগ্রীর স্টল পরিদর্শনের জন্য অনুরোধ জানান।

এরপর শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন পার্ক কিয়োংগ নাম এবং সিটি কাউন্সিলর নোয়েমি ইনোওয়ে। শুভেচ্ছা বক্তব্যের পর শুরু হয় প্যানেল ডিসকাশন। মেগুরো ইন্টারন্যাশনাল ফ্রেন্ডশিপ অ্যাসোসিয়েশনের জেনারেল সেক্রেটারি আকিরা ইশিকাওয়ার সঞ্চালনায় প্যানেল ডিসকাশনে অংশ নেন ভেরেনা হোপ (জার্মান), গুয়েন ভিয়েট চিন (ভিয়েতনাম), সান্দ্রা হাফেলিন (জার্মান), ওহি চাং (চীন), দেরেক কেন্জি (পেরু) এবং কিয়োশিরো মাৎসুমোতো।

এরপর শুরু হয় বিভিন্ন দেশের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এতে অংশ নেয় জাপান, চীন, ইন্দোনেশিয়া, ব্রাজিল, ফিলিপিন্স, কোরিয়া, বাংলাদেশ, লাতিন আমেরিকার সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো।

প্রবাসী বাংলাদেশিদের দ্বারা পরিচালিত স্বরলিপি কালচারাল একাডেমির খুদে শিক্ষার্থীরা একাধিক দলীয় নৃত্য পরিবেশন করে দর্শকদের মন জয় করেন। এ ছাড়াও স্বরলিপির তানভীর, বাবু, মুহিত এবং সোমা বিভিন্ন গান পরিবেশন করে বাংলাদেশিদের সংস্কৃতি বিশ্বের কাছে তুলে ধরেন।

ফেস্টিভ্যালে বিভিন্ন দেশের দূতাবাসের উদ্যোগে নিজ নিজ দেশের রপ্তানিযোগ্য পণ্যসামগ্রীর স্টল দেয়া হলেও বাংলাদেশের স্টল না থাকায় প্রবাসী সংস্কৃতিকর্মী তানিয়া ইসলাম মিথুন শব্দালঙ্কার নামে বাংলাদেশি পণ্যসামগ্রীর স্টল দিয়ে আগত দর্শনার্থীদের মনোযোগ কাড়তে সক্ষম হন। শুরু থেকেই দর্শনার্থীরা মিথুনের শব্দালঙ্কার স্টলে ভিড় জমাতে শুরু করেন। শেষ পর্যন্ত যা চলমান থাকে।

ফেস্টিভ্যালে অন্যরকম আকর্ষণ ছিল গুয়াতেমালার স্টলে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত রাষ্ট্রদূত এঞ্জেলা মারিয়া নিজ হাতে কফি তৈরি করে দর্শনার্থীদের আপ্যায়ন করেন। আলাপচারিতায় জানা যায়, রাষ্ট্রদূত মনে করে তার দেশ জাপানে তাকে পাঠিয়েছেন সে দেশকে পরিচিত করানোর জন্য। তার দেশ ছোট, আর্থিক খরচ কমানোর জন্য লোকবলও কম। তাই তিনি নিজেই একজন প্রতিনিধি হিসেবে কূটনৈতিক কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি সর্বক্ষেত্রেই নিজে থেকেই দেশের পরিচিতি বাড়াতে কাজ করে থাকেন।
মাল্টিকালচারাল ওয়ান ফ্যামিলি ফেস্টিভ্যাল ২০১৬ ভাইস চেয়ারম্যান, সাপ্তাহিক জাপান প্রতিনিধি রাহমান মনি সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রেখে এবং দেখা হবে আগামীতে আশাবাদ ব্যক্ত করে ফেস্টিভ্যাল ২০১৬ এর সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

দিনব্যাপী আয়োজনটি পরিচালনা করেন বিশ্বজিত দত্ত বাপ্পা (বাংলাদেশ) এবং সায়ুরি ওগাওয়া (জাপান)। বাংলাদেশিরা সবক্ষেত্রেই সাফল্যের ছাপ রাখে পুরো আয়োজনে।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply