টঙ্গীবাড়ীতে ছাত্রলীগের শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠিত

মুন্সিগঞ্জের টঙ্গিবাড়ি উপজেলায় শীতার্ত দরিদ্র ও অসহায় মানুষের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ করেছে উপজেলা ছাত্রলীগ। সোমবার (০৯ জানুয়ারি) দুপুরে বিটি কলেজ মাঠে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এ শীতবস্ত্র বিতরণ করেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি মো. সাইফুর রহমান সোহাগ।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন মুন্সীগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপিকা সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি। ছাত্রলীগের ৬৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ ও আলোচনা সভার আয়োজন করে টঙ্গিবাড়ি উপজেলা ছাত্রলীগ।

এসময় ছাত্রলীগ সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ বলেন, ছাত্রলীগ একটি মানবিক ছাত্রসংগঠন। ছাত্রলীগ আর্তমানবতার সেবায় নিয়োজিত। দেশের প্রকৃতি ও গণতন্ত্রের প্রতি যখনই আঘাত এসেছে জীবনবাজি রেখে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তা মোকাবেলায় ঝাঁপিয়ে পড়েছে। রানা প্লাজায় আহতদের জন্য সংগঠনের নেতাকর্মীরা নিজের শরীরের রক্ত দান করেছি। বন্যার্তদের পাশে দাঁড়িয়েছি। সারাদেশে তাদের খাবার, নগদ টাকা ও বস্ত্র দিয়েছি। যেকোনো দুর্যোগে আমরা তাদের পাশে থাকি।

তিনি বলেন, আমরা যারা এই প্রজন্মে ছাত্রলীগ করি। আমরা ৭১’ এর মুক্তিযুদ্ধ দেখিনি। সেই যুদ্ধে আমরা অংশ নিতে পারিনি। কিন্তু এ প্রজন্মের জন্য আরেকটি মুক্তিযুদ্ধ অপেক্ষা করছে। সেই যুদ্ধ হচ্ছে- নিরক্ষরমুক্ত বাংলাদেশ উপহার, জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে জনসমর্থন গড়ে তোলা এবং মাদকের বিরুদ্ধে অব্যাহত লড়াই। কারণ এই তিনটিই হচ্ছে সমাজ ও রাষ্ট্রের প্রধান শত্রু। ছাত্রলীগ সভাপতি বলেন, ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে যদি এই তিন শত্রুর বিরুদ্ধে লড়াই করে সামনের দিকে অগ্রসর হই তবেই দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধে আমরা সফল হবো। দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ২০২১ সালে মধ্যম আয়ের ও ২০৪১ সালে উন্নত রাষ্ট্র উপহার পাব। সমাপ্ত হবে জাতির জনকের অসমাপ্ত কাজ। বিনির্মাণ হবে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ।

উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মাসুম মোল্লা ও সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান খানের সঞ্চালনায় এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন- টঙ্গিবাড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জগলুল হালদার ভুতু, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ও মুন্সীগঞ্জের সাংগঠনিক দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা নুরুল করিম জুয়েল, দপ্তর সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন শাহাজাদা, সহ-সম্পাদক আজমির শেখ, মুন্সীগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ফয়সল মৃধা, সাধারণ সম্পাদক ফয়েজ আহমেদ পাভেল প্রমূখ।

দ্য রিপোর্ট

Leave a Reply