আমি অত্যন্ত ভাগ্যবান যে বঙ্গবন্ধুর মতো বিশাল হৃদয়ের নেতার সান্নিধ্য পেয়েছিলাম

সাতো তোশিইয়ুকি (জাপানি সাংবাদিক)
রাহমান মনি: আমি নিজেকে অত্যন্ত সৌভাগ্যবান মনে করে আজও পুলকিত হই এই বলে যে, বঙ্গবন্ধুর মতো এক বিশাল হৃদয়ের মানুষের সান্নিধ্য পেয়েছিলাম। অত্যন্ত কাছ থেকে তাকে দেখার এবং জানার সুযোগ আমার হয়েছিল। কিছুটা সময় আমরা এক সঙ্গে পার করেছিলাম। সদ্য স্বাধীনতা পাওয়া একটি রাষ্ট্রের রাষ্ট্রপ্রধানের সাক্ষাৎকার পাওয়া অত্যন্ত সৌভাগ্যের ব্যাপার। আর আমাকে সেই সুযোগটি এনে দিয়েছিলেন সেই সময়ের জাপানের বিখ্যাত চলচ্চিত্রকার (পরিচালক) ওশিমা নাগিসা। সদ্য শিক্ষাজীবন শেষ করে জাপান জাতীয় সম্প্রচার কেন্দ্রে (এনএইচকে) যোগদানের অপেক্ষারত এই আমি ছিলাম ওশিমার দোভাষী। কাজটি ছিল আমার জন্য চ্যালেঞ্জের। আমি ছিলাম এক্সাইটেড।

একই সঙ্গে আমাকে কষ্ট দেয়, যখন জানতে পারলাম ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বিশাল হৃদয়ের এই মানুষটিকে সপরিবারে হত্যা করা হয়। হত্যা করে তারই দেশের মানুষেরা। যাদের তিনি সন্তানতুল্য ভালোবাসতেন। প্রাণবন্ত শিশু রাসেলকেও তারা ছাড় দেয়নি। টোকিওস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস কর্তৃক আয়োজিত ‘বিজয় উৎসব ২০১৬’ অনুষ্ঠানে আলোচনা সভায় স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে জাপানি সাংবাদিক সাতো তোশিইয়ুকি এ কথা বলেন।

৪৬তম বিজয় দিবস উদযাপনের দ্বিতীয় পর্বে বাংলাদেশ দূতাবাস, টোকিও এক ব্যতিক্রমধর্মী অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। ৩০ ডিসেম্বর শুক্রবার দূতাবাস মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল স্বাধীনতা যুদ্ধ এবং পরবর্তী বাংলাদেশ গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখা এবং বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক ‘যুদ্ধকালীন বন্ধু’ সম্মাননাপ্রাপ্ত এবং বাংলাদেশের সুহৃদ কয়েকজন জাপানি বন্ধুদের।

জাপানস্থ বাংলাদেশ কমিউনিটি, জাপান সরকারের প্রতিনিধি, জাপানি সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের অংশগ্রহণে প্রায় দুই শতাধিক আমন্ত্রিত অতিথিদের উপস্থিতিতে রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা ৫ জন জাপানি নাগরিক এবং ১ জন প্রবাসী বাংলাদেশিকে লাল-সবুজ উত্তরীয় পরিয়ে সম্মানিত করেন। এই পাঁচজন জাপানি নাগরিক হলেন জাপান-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ সোসাইটির সভাপতি এবং বাংলাদেশে জাপানের সাবেক রাষ্ট্রদূত হোরিগুচি মাৎসুশিরো, জাপানের দুই বিশিষ্ট সাংবাদিক ফুমিও মাৎসুও এবং সাতো তোশিইয়ুকি, জাপান পার্লামেন্টের সাবেক সদস্য প্রয়াত হায়াকাওয়া তাকাশির পুত্র হায়াকাওয়া ওসামু এবং প্রফেসর ড. সুয়োশি নারার (প্রয়াত) সহধর্মিণী আকিনো নারা। একজন প্রবাসী বাংলাদেশি হলেন জিয়াউল ইসলাম। তিনি মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন জাপান প্রবাসী ছিলেন এবং জাপানিদের অবদান স্বচোখে অবলোকন করেছেন।

দূতালয় প্রধান দ্বিতীয় সচিব মোহাম্মদ জোবায়েদ হোসেনের পরিচালনায় অনুষ্ঠানের শুরুতেই রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা সবাইকে স্বাগত এবং বিজয় শুভেচ্ছা জানিয়ে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন। শুভেচ্ছা বক্তব্যে তিনি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ মহান মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লাখ শহীদের আত্মদান এবং দু’ লাখ মা-বোনের সম্ভ্রমহানির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধ এবং পরবর্তীতে বাংলাদেশের অবকাঠামো তৈরিতে জাপানের অবদানের কথা কৃতজ্ঞতাচিত্তে স্মরণ করে বলেন, এই ধারা আজও চলমান রয়েছে এবং ভবিষ্যতেও তা অটুট থাকবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, জাপান বাংলাদেশের পরীক্ষিত বন্ধু এবং জাপানি জনগণ ও বাংলাদেশি জনগণের মধ্যে রয়েছে নিবিড় সম্পর্ক।

এরপর রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশ হিতৈষী পরম বন্ধুদের লাল-সবুজ উত্তরীয় পরিয়ে দেন।

উত্তরীয় পরানো শেষে ‘বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধ ও জাপানের ভূমিকা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় ১৯৭১ সালের ঘটনাবলির ওপর স্মৃতিচারণে অংশ নিয়ে সাংবাদিক সাতো তোশিইয়ুকি আরো বলেন, সদ্য শিক্ষাজীবন শেষ করা এই আমি ওশিমার দোভাষী হিসেবে বঙ্গবন্ধুর সাক্ষাৎকারের সময় উপস্থিত ছিলাম। কিছুটা ভীতিও কাজ করছিল মনে মনে। কারণ, অত্যন্ত প্রগতিবাদী ওশিমা এবং সদ্য স্বাধীন দেশ হিসেবে তৃতীয় বিশ্বের উদার মানবতাবাদী শেখ মুজিবুর রহমান এই দুই বিশিষ্ট জনের সাক্ষাৎকারে না জানি কি হয়। কিন্তু সেদিন শেখ মুজিবুর রহমান তার বিশাল ব্যক্তিত্বের প্রভাব খুব সহজেই ছড়িয়ে দিতে পেরেছিলেন যা কট্টরপন্থি ওশিমাকে মুগ্ধ করে।

ওশিমা নাগিসা বঙ্গবন্ধুর নেয়া ডাল-ভাত কর্মসূচি সম্পর্কে আগ্রহ প্রকাশ করলে বঙ্গবন্ধু তার বাসায় পরের দিন প্রাতঃরাশের আমন্ত্রণ জানান। সেখানে আমারও যাওয়ার সুযোগ ঘটেছিল যা পরবর্তীতে ওশিমার প্রামাণ্য চিত্রে ফুটে ওঠে। সেখানে ওশিমা একজন রাষ্ট্রপ্রধানের বাড়িতে প্রাতঃরাশে অতি সাধারণ আহার করাকে বিরল ঘটনা হিসেবে উল্লেখ করেন। প্রাতঃরাশে বঙ্গবন্ধু পরিবারের সকল সদস্য উপস্থিত ছিলেন। সেখানে শিশু রাসেল ছিল অত্যন্ত প্রাণবন্ত যা সকলের দৃষ্টি কাড়তে সক্ষম হয়।
স্মৃতিচারণে সাতো বলেন, প্রামাণ্যচিত্রের স্বার্থে আমরা বঙ্গবন্ধুর পৈতৃক বাড়ি গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া যাই। সেখানে যে আমাদের জন্য বিস্ময় অপেক্ষা করছে তা চিন্তাও করিনি। একজন রাষ্ট্রপ্রধানের পিতা অতি সাধারণ একটি টিনের চালার ঘরে বসে আছেন দেখে আমরা অবাক হই। তারপর আমরা বঙ্গবন্ধুর পিতা শেখ লুৎফর রহমানের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে খানিকটা আলোচনা করি। পুত্রের মতোই তার সরলতা আমাদের মুগ্ধ করে। সেই সব স্মৃতি আজও চির অমøান আছে।

এরপর আমন্ত্রিত আরেক বক্তা প্রবীণ সাংবাদিক ফুমিও মাৎসুও (৮৩) বলেন, ১৯৭২ সালের সেই দিনগুলোর কথা আজও আমার স্মৃতিতে চির অম্লান। তখন আমি বার্তা সংস্থা কিয়োদোতে দক্ষিণ এশিয়ার ব্যুরোপ্রধান হিসেবে কাজ করি। ভারতের কলকাতা হয়ে আমি ঢাকা পৌঁছাই। ঢাকার তেজগাঁও বিমানবন্দরে পৌঁছানোর আগ পর্যন্ত বাংলাদেশ সম্পর্কে আমার ধারণা ছিল খুবই সামান্য এবং সম্পূর্ণ অপরিচিত একটি দেশ। সদ্য স্বাধীনতা পাওয়া দেশ হিসেবে বিশ্ব মানচিত্রে স্থান পেয়েছে। অবকাঠামো তখনও হয়ে ওঠেনি। তবে আমার ভাগ্য প্রসন্ন ছিল যে, কলকাতা-ঢাকা বিমানে আসার সহযাত্রী ছিলেন দেশের অত্যন্ত প্রভাবশালী একটি পত্রিকার সম্পাদক এবং মুক্তিযুদ্ধে যার অসাধারণ অবদান ছিল। তার কাছ থেকে বাংলাদেশ এবং মুক্তিযুদ্ধের বিষয়ে কিছুটা ধারণা নিতে সক্ষম হই। তিনিই আমাকে বঙ্গবন্ধুর সাক্ষাৎকার পাওয়ার পথ বাতলে দেন।

তিনি আমাকে বলেছিলেন, বঙ্গবন্ধুর সাক্ষাৎকার পেতে কাউকেই পূর্ব অনুমতি নিতে হয় না। প্রতিদিনই তিনি গণভবনে সন্ধ্যার পর সাধারণ জনগণকে সাক্ষাৎকার দিয়ে থাকেন এবং সাংবাদিকদের বেলায়ও একই নিয়ম প্রযোজ্য। বিষয়টি আমার কাছে অবিশ্বাস্য মনে হয়েছে।

অবিশ্বাস্য মনে হলেও পরের দিন পুরনো গণভবনে সন্ধ্যায় আমি ঠিকই উপস্থিত হয়েছিলাম এবং একজন রাষ্ট্রপ্রধানের কাছে দেশের সাধারণ জনগণ তাদের অভাব-অভিযোগ জানাতে পারা দেখে সত্যিকার অর্থেই আমি অভিভূত হয়েছিলাম। আমি সৌভাগ্যবান ছিলাম। কারণ কিছুক্ষণ অপেক্ষা করার পর ছিল আমার পালা। আমি অত্যন্ত সৌভাগ্যবান প্রায় এক ঘণ্টার মতো আমাদের মধ্যে কথোপকথন হয়। এই আমার কাছ থেকে তিনি এশিয়ার রাজনীতির কথা জানতে চান। সদ্য স্বাধীন দেশ হিসেবে তার দেশের পররাষ্ট্রনীতি কী হবে সেই বিষয়ে বিস্তারিত জানান এবং বাংলাদেশের অবকাঠামো তৈরিতে জাপান যেন এগিয়ে আসে সেই আহ্বান জানান। এছাড়াও বিভিন্ন বিষয়াদি নিয়ে আমাদের মধ্যে আলোচনা হয়।

স্মৃতিচারণ করার সময় উভয় সাংবাদিক বেশ কিছু স্থিরচিত্র প্রদর্শন করেন।

প্রবীণ সাংবাদিক ফুমিও মাৎসুও এর আগেও জাপান থেকে প্রচারিত (অধুনা বিলুপ্ত) দ্বিমাসিক পত্রিকা ‘পরবাস’ আয়োজিত ২১ শের আয়োজনেও একই স্মৃতিচারণ করেছিলেন আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে। এরপর মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন জাপানি বিশিষ্ট নাগরিকদের অবদান স্বচোখে অবলোকনকারী প্রবীণ প্রবাসী বাংলাদেশি জিয়াউল ইসলাম তার স্মৃতিচারণমূলক বক্তব্য রাখেন। তার একই বক্তব্য বাংলা এবং ইংরেজিতে পুনরাবৃত্তি আমন্ত্রিত অতিথিদের বোধগম্য হয়নি। কিছুটা বিরক্ত হয়েছেন শ্রোতারা। কারণ, মিলনায়তনে বাংলাদেশি এবং জাপানি অতিথি ছাড়া দেশের কোনো অতিথি ছিলেন না। কাজেই প্রথমেই কেবল ইংরেজিতে বক্তব্য পেশ কিংবা বাংলায় বলার পর জাপানি ভাষায় বলাটা শোভনীয় ছিল।

স্মৃতিচারণ পর্ব শেষ হলে শুরু হয় সাংস্কৃতিক পর্ব। প্রথমেই টোকিও বিদেশি ভাষাচর্চা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থীরা বাংলা গান পরিবেশন করে। অত্যন্ত শ্রুতিমধুর গান জাপানিদের কণ্ঠে আমন্ত্রিত অতিথিরা বেশ উপভোগ করেন।

এরপর প্রবাসী বাংলাদেশিদের দ্বারা পরিচালিত দুটি সাংস্কৃতিক সংগঠন উত্তরণ এবং স্বরলিপি দেশাত্মবোধক গান পরিবেশন করে। উত্তরণ এর পক্ষ থেকে নিলাঞ্জনা দুটি ও ববিতা পোদ্দার এবং স্বরলিপির পক্ষে তানভীর ও শাম্মী সংগীত পরিবেশন করেন। যন্ত্রে ছিলেন মান্না চৌধুরী, বিমান পোদ্দার এবং বাবু ঢালী। সবশেষে সমবেতভাবে বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত পরিবেশন হয়। এই সময় জাপানি অতিথিরাও দাঁড়িয়ে সুর মিলান এবং সম্মান প্রদর্শন করেন।

‘মহান বিজয় দিবস ২০১৬’ উদযাপনে বাংলাদেশ দূতাবাসের আমন্ত্রণ পদ্ধতি নিয়ে প্রবাসীদের মধ্যে কিছুটা অসন্তোষ পরিলক্ষিত হয়। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল অনুষ্ঠান বয়কট করে। নিমন্ত্রণ সংখ্যা নিয়ে তাদের এই বয়কট। বিএনপি সূত্রে জানা যায়, দূতাবাসের আয়োজন নিয়ে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তারা ২৬ জনের তালিকা দূতাবাসে পাঠায়। দূতাবাস তিনজনের অনুমোদন করলে বিএনপি তাতে রাজি হয়নি। বিভিন্নভাবে দেন-দরবার করা হলেও দূতাবাস কোনমতেই তিনজনের বেশি অনুমোদন দিতে অপারগতা প্রকাশ করে। এজন্য তাদের এই বয়কট।

বিএনপি জাপানের সহসভাপতি আলমগীর হোসেন মিঠু বলেন, বিএনপি বাংলাদেশের অন্যতম বৃহত্তম একটি দল। যে দলের প্রতিষ্ঠাতা বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং বীর উত্তম খেতাবধারী, স্বাধীনতার ঘোষক। সেই দল থেকে মাত্র তিনজনের অনুমোদন কোনোভাবেই মেনে নেয়া যায় না, তাই যাওয়া সম্ভব হয়নি।

দূতালয় প্রধান এবং দ্বিতীয় সচিব মোহাম্মদ জোবায়েদ হোসেন জানান, দূতাবাস তার সামর্থ্য অনুযায়ী প্রবাসী সংগঠনগুলো থেকে আনুষ্ঠানিক হারে নিমন্ত্রণ জানায়। বিভিন্ন সীমাবদ্ধতা থেকে এ নিমন্ত্রণ যার অন্যতম প্রধান স্থান সংকুলান। আমরা প্রবাসীদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি।

সার্বিকভাবে দূতাবাসের আয়োজনটি অত্যন্ত সার্থক হয়েছে। এ জন্য রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা ধন্যবাদ পাওয়ার দাবি রাখেন। ধন্যবাদ পাওয়ার যোগ্য তার অধীনে ফুল টিমের। তার অন্যতম কারণ ছিল রাজনীতিবিদদের জন্য বক্তব্য প্রদান পর্ব না রাখা। রাবাব ফাতিমার অধীনে প্রথম বিজয় দিবসের আয়োজনে তিনি উতরে গেছেন তবে, দলমত নির্বিশেষে সকলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে পারলে আরও ভালো হবে বলে প্রবাসীরা মনে করেন। কারণ, দূতাবাস বাংলাদেশের, প্রবাসীদের দলের নয়।

সাপ্তাহিক

Leave a Reply