৮ম শ্রেনীর ছাত্রী আইরিনের বাল্য বিবাহ অনুষ্টিত

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের খাস মোল্লাকান্দি গ্রামে আইরিন আক্তার (রিংকি) নামের এক ৮ম শ্রেনীর ছাত্রীর বাল্য বিবাহ হয়েছে। স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, আইরিন আক্তার পুরা বাজারের পুরা ডিসি উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেনীর ছাত্রী। শুক্রবার ১৩ জানুয়ারী তাদের বাড়ীতে এক বিবাহ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। রিংকি মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের খাস মোল্লাকান্দি গ্রামের মালয়েশিয়া প্রবাসী মো: আনোয়ার হোসেন ঢালীর মেয়ে। আইরিন আক্তার পিংকির সঙ্গে একই গ্রামের মোখলেছ ঢালীর ছেলে ওমর ফারুক ঢালীর বিবাহ অনুষ্ঠিত হয়। সুত্র জানায়,জমকালো অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিকালে বাল্য বিবাহটি সম্পন্ন হয়।

বিকালে আনুষ্ঠানিকতা শেষে বর বউ নিয়ে চলে যায়। তাছাড়া জেলার বিভিন্ন স্থানে প্রতিনিয়ত বাল্য বিবাহ অনুষ্টিত হলেও প্রশাসনের কাছে তেমন কোন তথ্য আসেনা। মাঝে মধ্যে সংবাদ কর্মীদের চাপের মুখে প্রশাসন বাল্য বিবাহ প্রতিরোধে ব্যস্ত হয়ে উঠে। কিন্তু প্রশাসন কখনও নিজ উদ্যোগে কোন বাল্য বিবাহ বন্ধে কার্যকরী ব্যবস্থা নেয়না। এমনটাই অভিযোগ সর্বত্র। স্থানীয় এক মুরুব্বি নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, রিংকির বয়স ১৪ বছর। তাকে একটা ছেলে ডিস্টাব করে । এ কারনে তার মা তাকে বিবাহ দিয়ে দিচ্ছে। রিংকি তার বাবা মায়ের একমাত্র কন্যা। মেয়ের মা বিয়ে দেওয়ার জন্য জন্মনিবন্ধনে বযস বাড়িয়ে দিয়েছে। একজন ৮ম শ্রেনীর ছাত্রীর বয়স ১৮ বছর হতে পারেনা।

বাল্য বিবাহের দেওয়ার কারন জানতে চাইলে পিংকির মা বলেন, আমার মেয়ে পুরা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেনীর ছাত্রী। ৬ মাস আগে তার স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছি। জন্মনিবন্ধন কাগজে বয়স ঠিক আছে। আপনার সন্ধেহ হলে আমাদের ওয়ার্ড মেম্বার স্বপনের কাছে জানুন। উনি সব জানেন। তার কথার সুত্র ধরে স্থানীয় ইউপি সদস্য স্বপন মেম্বারের সাথে ফোনালাপে কথা হলে তিনি বলেন, মেয়েটার বয়স কম । কোথায় থেকে এ জন্মনিবন্ধন পেল? কে তাকে এই ভূয়া জন্মনিবন্ধন সর্বরাহ করেছে সেটা বের করুন। আমি বাল্য বিবাহের পক্ষে নই।

মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মহসিনা হক কল্পনা বলেন, আমি শুনেছি আনুষ্ঠানিকভাবে বিয়েটা হচ্ছে। তবে পরিষদ থেকে এই মেয়ের কোন জন্ম নিবন্ধন দেওয়া হয়নি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুরাইয়া জাহান বলেন, ঘটনাটি শুনেছি এবং ঘটনাস্থলে লোক পাঠানো হয়েছে।

চমক নিউজ

Leave a Reply