আমি একজন প্রবাসী তাই আমার থাকতে নেই…

রাহমান মনি: নিজ দেশ ছেড়ে ভিন দেশে বসবাস করার নাম প্রবাস জীবন। কেউ স্থায়িভাবে আর কেউ বা অস্থায়িভাবে। ট্রেনিং, শিক্ষা জীবন কিংবা চাকরির বদলি সুবাদে যারা প্রবাস জীবনযাপন করেন তারা নির্দিষ্ট একটা সময় বা মেয়াদ শেষে স্বদেশে চলে যান। তাই তারা ক্ষণিকের জন্য প্রবাস জীবনযাপন করলেও প্রবাসী নন। আর আমার মতো যারা প্রবাস জীবনকে বেছে নিয়ে ভিন দেশেই বসতি গেড়েছেন তারা আমার চোখে প্রবাসী। ভিন্নমত থাকতে পারে। তবে, আমার নিজস্ব মত অনুযায়ী প্রবাসীদের সংজ্ঞা এটাই।

আমি একজন প্রবাসী। প্রবাসীদের নিয়ে বিভিন্ন জনের বিভিন্ন ধারণা। নানান মুনির নানান মত। প্রত্যেকের কাছে তাদের মতবাদটাই আসল। বাকিগুলি আমলে নেন না।
কেউ মনে করেন প্রবাস জীবন মানেই অড জব করা। থ্রি ডি (ডার্টি, ডেনজারাস, ডিসওয়াস)তে বিশ্ববাসীরা মনে করেন প্রবাসে হোটেলে পেঁয়াজ রসুন কাটা, পরিচ্ছন্নকর্মী কিংবা হকার বা ট্যাক্সি চালানোই প্রবাসীদের অন্যতম প্রধান কাজ। আড়ালে আবডালে তারা নাক সিটকান।

কারোর কাছে প্রবাসীরা হচ্ছে টাকার গাছ। ঝুঁকি দিলেই পড়ার কথা। অথবা প্রবাসে টাকা উড়তে থাকে আর প্রবাসীরা তা বস্তায় ভরে। তাই কাড়ি কাড়ি টাকার মালিক। ঋণ চাইলেই দিতে বাধ্য। যেমনটি লিখা থাকে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার অনুমোদিত অর্থ ‘টাকার’ উপর লিখা থাকে ‘চাহিবা মাত্র বাহককে দিতে বাধ্য থাকিবে’র মতো। ঋণ চাওয়ার পরিমাণও কম হলেও লাখ টাকা। না পেলে সম্পর্ক নষ্ট। আবার দিলেও ফেরত পাবার আশা করলে সম্পর্ক নষ্ট হওয়ার উপক্রম।

আর পরিবার পরিজন বা আত্মীয়স্বজনের কাছে প্রবাসীরা হচ্ছেন সোনার ডিম পাড়া হাঁস। একমাত্র জন্মদাতা পিতা এবং গর্ভধারিণী মাতাই ব্যতিক্রম।

সুখ দুঃখ নিয়েই মানুষের জীবন। কারোর বা সুখানুভূতির পাল্লাভারী। আবার কারোর বা দুঃখ বা কষ্টেরটা। প্রবাসীরা যেহেতু মানুষ, তাই তাদেরও ব্যক্তিগত সুখ-দুঃখের অনুভূতি যেমন রয়েছে পাশাপাশি দেশমাতার জন্য রয়েছে গভীর মমত্ববোধ। বর্তমান অন্তর্জাল যুগে প্রতিটি মুহূর্তেই তারা দেশের সর্বশেষ খবর পেয়ে যায়। কিছু কিছু ক্ষেত্রে দেশে অবস্থানকারীদের চেয়েও লেটেস্ট আপডেটে থেকে।

মানুষ যেহেতু আশাজাগানিয়া তাই একজন প্রবাসী হিসেবে প্রবাস জীবনের বিভিন্ন সুখের বা ভালো লাগা দিকগুলোই প্রথমে পাঠকদের সাথে ভাগ করে নিতে আগ্রহী।
শত ব্যস্ততা আর শত কষ্টের মাঝেও প্রবাস জীবন মানেই নিরাপত্তাবলয়ে আবদ্ধ এক জীবনের কথা বলব, আমি জাপানের কথাই বলব। যেহেতু আমি জাপান প্রবাসী।
এখানে স্বাভাবিক মৃত্যুর গ্যারান্টি রয়েছে প্রকৃতির খামখেয়ালি বা দৈবদুর্বিক্রম ছাড়া। গুম বা বেওয়ারিশ লাশ হয়ে পড়ে থাকার দুর্ভাগ্য নেই বললেই চলে। দুই একটি ব্যতিক্রম ছাড়া প্রবাসে মানে জাপানে সে সম্ভাবনা ক্ষীণ।

এখানে অযথা শ্রম ঘণ্টা নষ্ট হয়ে যায় না যানজটের কবলে পড়ে। সব যানবাহনই (পাবলিক) নির্দিষ্ট স্থান থেকে নির্দিষ্ট সময় মেনে ছাড়ে এবং সঠিক সময়ে গন্তব্যে পৌঁছানো যায়।

কষ্টার্জিত অর্থ বা সেই অর্থে পরিবার পরিজনের জন্য কিছু পাঠাতে পারলে মনে যে প্রশান্তি পাওয়া যায়, তা কি লিখে বুঝানো যাবে? প্রবাসীরাই একমাত্র হৃদয় দিয়ে তা অনুভব করতে পারেন। সেই মুহূর্তটিকে পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ মুহূর্ত বলে মনে হয়।

কিছুদিনের জন্য নিজ দেশে বেড়াতে গেলে জামাই আদর পাওয়া যায় সবখানেই। এমনকি নিজ পরিবারেও। সবাই একবেলা খাওয়ানোর জন্য ব্যাকুল হয়ে পড়ে। না খেলে বা সময় দিতে না পারলে মনোক্ষুণœ হন নিকটজনেরা। তারা তখন বুঝতে চেষ্টা করেন না যে, তাদের এই অতিরিক্ত আতিথেয়তা ভুক্তভোগীর জন্য এক ধরনের বিড়ম্বনা। তারপরও নিজ জন্মভূমিতে নিজ সংস্কৃতির বিড়ম্বনার কথা ভাবলেও এক ধরনের সুখানুভূতি কাজ করে মনে।

আর কষ্টের ব্যাপারগুলির মধ্যে অন্যতম প্রধান হচ্ছে একজন প্রবাসী উভয় দেশেই পরবাসী। বসবাসরত দেশে পরবাসী তো বটেই (এমনকি নাগরিকত্ব পেলেও), নিজ দেশেও পরবাসী (নাগরিকত্ব থাকা সত্ত্বেও)। অনেক সময় নামের আগে প্রবাসে বসবাসরত দেশের নামটিও জুড়ে যায় বিশেষণ হিসেবে। তাই যেমন আমাদের দ্বিতীয় প্রজন্মের অনেকেই আমাকে জাপানি আংকেল বলে ডেকে থাকে। অথচ জাপানে আমি যদি একটি জাপানিজ (নাগরিকত্ব নিয়ে) পাসপোর্ট নিয়ে গলায় ঝুলিয়ে সারা জাপান ঘুরেও বেড়াই তাহলে কেউ-ই আমাকে তাদের স্বদেশী বলে মেনে নিবে না। কাগজ কলমে জাপানিজ হলেও একজন বিদেশি হিসেবেই বাকি জীবন পরিচিতি থাকবে।

একজন প্রবাসী কষ্টার্জিত অর্থ দেশে পাঠিয়ে যে প্রশান্তি লাভ করত, বাবা-মা বা নিকটআত্মীয় স্বজনকে পাঠানো হতো, সেই অর্থ যখন অপব্যবহার বা অনুৎপাদনশীল খাতে খরচ হয়ে থাকে তখন মনের প্রশান্তিই মুহূর্তের মধ্যে অশান্তির ঢেউ তোলে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায় সংসার খলচের পর প্রবাসীর অর্থে পিতা তার নিজ নামে, ভাই তার নিজ নামে স্থাবর সম্পত্তি করে থাকেন। পরবর্তীতে সে সম্পত্তিতে প্রবাসীর কোনো কর্তৃত্ব থাকে না। কর্তৃত্ব ফলাতে গেলে বা ন্যায্য হিস্যা আদায় করতে গেলে বরং জীবন হুমকির সম্মুখীন হতে হয়। কোনো কোনো ক্ষেত্রে বেঘোরে প্রাণ হারাতে হয় স্বজনদের হাতে। কেউ বা পালিয়ে কোনোমতে দেশ ত্যাগ করে প্রবাস জীবনকেই আবার বেছে নেন। অথবা ধুঁকে ধুঁকে যন্ত্রণাময় জীবনযাপন করেন। পিতা-মাতা বেঁচে থাকলে হয়তো কিছুটা জুটলে জুটতেও পারে কপালে, নতুবা নয়। আর এক্ষেত্রে ভাইদের ভূমিকা তখন বাংলা সিনেমার ভিলেনদের ভূমিকায় পরিণত হয়। যেহেতু তারা দেশে অবস্থান করেন তাই এলাকার বড় ভাই (কিছু কিছু ক্ষেত্রে ভাড়াটে মাস্তান)দের দিয়ে বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখিয়ে এক পর্যায়ে এলাকা ছাড়া করতে বাধ্য করা হয়।

কোনো কোনো ক্ষেত্রে স্থাবর সম্পত্তি কিনতে গেলে, প্রবাসে থাকা হয় তাই কাগজপত্র দেখাশুনা, বিভিন্ন দস্তখতের ঝামেলার কথা চিন্তা করে বা অজুহাতে পিতা কিংবা বড়ভাইয়ের নামে তা করা হয় দেশে যাওয়া মাত্র বুঝিয়ে দেয়ার আশ্বাস দিয়ে। চাহিবামাত্র প্রকৃত মালিককে বুঝিয়ে দিতে বাধ্য থাকিব জাতীয় বুলি আউড়িয়ে। দেশে গেলে বুঝিয়ে দেয়া হয় ঠিকই, তবে সম্পত্তি নয়, বোকামির খেসারত। এ নিয়ে বিচার চাইতে গেলে প্রবাসীর বিপরীতেই যায়। থানা-পুলিশ কিছু কামানোর ধান্ধায় থাকে। এলাকার বড়ভাই নামধারী মাস্তান গোছের কিছু লোক নগদ যদি পাওয়া যায় হাতিয়ে নেয়ার বিশ্বাসে ব্রত হয়। আর আত্মীয়স্বজন, পাড়াপড়শিরা বলেন, আল্লাহ্ তো তোমাকে অনেক দিয়েছেন, তাদের তো কিছু নেই তাই ওদের না হয় একটু দাও। তাছাড়া ভাই-ই তো। ওদেরও হক আছে। তা হকটা, বা কর্তব্যটা কেবল প্রবাসীদের উপরই বর্তায়।

দেশে রেমিট্যান্স বা পার্সেল পাঠালে প্রবাসীকেই খোঁজ নিয়ে জানতে হয় ঠিকমতো পৌঁছালো কিনা। কারণ সে যেহেতু পাঠিয়েছে তাই দায়িত্বটা তারই বেশি। পাওয়ার পর নিজ উদ্যোগে জানানোর গরজ তাদের নেই। তাদের সেই সময় কোথায়?

দেশ থেকে কিছু চেয়ে পাঠালে বিভিন্ন অজুহাতে বিলম্ব হয়। হরতাল, যানজট, ব্যস্ততা তার অন্যতম প্রধান কারণ। তাই সময়মতো পাওয়াটা ভিসা পাওয়ার চেয়ে আরও বেশি কঠিন হয়ে যায়। কারণ কাগজপত্র ঠিক থাকলে সময়মতো নিয়মমাফিক ভিসা পেলেও জিনিসপত্র পাওয়ার জন্য কোনো নিয়মের ধার কেউ ধারেন না।

একইভাবে যদি কারোর মাধ্যমে অর্থ কিংবা পার্সেল পাঠানো যায়, তাহলে হরতাল, ব্যস্ততা বা যানজট কোনো কিছুই তখন আর বাধা হতে পারে না দ্রুত সংগ্রহে। এমনকি শারীরিক অসুস্থতা তখন মানসিক শক্তির কাছে হার মানতে বাধ্য হয়।

দেশে বেড়াতে গেলে একজন প্রবাসী যেমন জামাই আদর পায়, সবার আদরের প্রিয়পাত্র হয়ে আমোদে ভাসতে থাকেন, এমনকি নিজ বাড়িতেও। আবার সেই প্রবাসী যখন প্রবাস জীবন পাঠ শেষ করে স্থায়িভাবে দেশে ফেরেন তখন হয়ে যান ভিলেন। দুঃখের সাগরে ভাসতে থাকেন। এমনকি নিজ পরিবারেও। এই ক্ষেত্রে কারণটা খুবই স্পষ্ট এবং স্বাভাবিক। এতদিন ধরে পেয়ে আসা হাঁস থেকে সোনার ডিম পাওয়া তো দূরের কথা উল্টো সে-ই এখন থেকে সবকিছুতে ভাগ বসাবে এটা কিভাবে নেয়া যায়। তাই সবার চক্ষুশূল হতে হয় একজন প্রবাসীকে।

যদি ওরা কিছু কিছু ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম হিসেবে একজন প্রবাসী নিজ বাড়িতে নিজের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে পারে তখন আবার নতুন ঝামেলা হিসেবে আবির্ভাব হয় বন্ধুবান্ধব, আত্মীয়স্বজনসহ শুভাকাক্সক্ষীরা। দেশে ফিরে কিছুটা সময় পার না হতেই শুরু হয় তাদের উপদ্রব। সবাই তখন সম্ভাবনার দ্বার দেখিয়ে সহযোগিতার হাত সম্প্রসারিত করেন, উপদেশ দেন বিনা পারিশ্রমিকেই। এক্ষেত্রে যৌথ অর্থলগ্নিটাই প্রাধান্য পায়। কারণ দেশে থাকেন বিধায় তারা বিভিন্ন অভিজ্ঞতার ভারে আক্রান্ত। আর বিদেশে অঢেল টাকা কামানো প্রবাসী বস্তাভরা অর্থের ভারে ন্যুহমান। তাই যৌথভাবে কিছু করাটাই হবে বুদ্ধিমানের (!) কাজ। শুরুটা হয়ও তাই। কিছু কিছু ক্ষেত্রে প্রথমদিকে লাভবান দেখানো গেলেও আস্তে আস্তে তার মুখোশ উন্মোচিত হতে শুরু করে। আর সেই ক্ষেত্রে সব খুইয়ে অভিজ্ঞতার ভারে ন্যুহমান হন প্রবাসী আর পরামর্শকারী হন অর্থভান্ডারে উদীয়মান।

সরকার বাহাদুরই বা পিছিয়ে থাকবে কেন। একজন প্রবাসীর সাথে সরকারের আচরণ কোনো সময়ই ঠিক ছিল না। মুখে মুখে তারা প্রবাসীদের অবদানের কথা স্বীকার করলেও কার্যত প্রবাসীদের অধিকার আদায়ে বাস্তব ভূমিকা কোনো সরকারই গ্রহণ করেনি। ভোটাধিকার থেকে আজও প্রবাসীরা বঞ্চিত। আবার নতুন করে শুরু হয়েছে নাগরিকত্ব আইন নিয়ে প্রবাসীদের বিভিন্ন অধিকার হরণের খেলা। বর্তমান সরকার নেয়া নাগরিকত্ব আইনটি কার্যকর হলে প্রবাসীরা অনেক অধিকারই হারাবেন, নিঃসন্দেহে তা নিশ্চিতভাবেই বলা যায়।

একজন প্রবাসী তার জীবনের শ্রেষ্ঠ সময়গুলো পরিবার, দেশের জন্য উৎসর্গ করলেও পরিবার এবং দেশ থেকে তার প্রতিদান তেমন পান না। যদিও প্রবাসীরা অতিরিক্ত কোনো সুবিধা চান না, চান শুধু ন্যায্য অধিকার। কারণ প্রবাসে বসবাসের কারণে মানব বা নাগরিক অধিকার সম্পর্কে তারা সচেতন থাকে। দেশে পেরার পর তার বর্তায় ঘটলেই বিপত্তি শুরু হয়। এই ক্ষেত্রে আমার মতো প্রবাসীদেরই বোঝা উচিত কাগজ কলমে বা পাসপোর্ট বহন করার সুবাদে তারা বাংলাদেশি পরিচিতি পেলেও নিজ দেশেও তারা প্রবাসী হিসেবেই পরিচিত। তাই কোনোমতেই দেশে নাগরিক অধিকার আদায়ে তাদের অনেক কিছুই থাকতে নেই।

rahmanmoni@gmail.com
সাপ্তাহিক

Leave a Reply