তিন বছর তারহীন ৩৫ বিদ্যুতের খুঁটি!

মুন্সীগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি
কাজী সাবি্বর আহমেদ দীপু: মুন্সীগঞ্জের মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের মাকহাটী বাজার এলাকা থেকে কংসপুরা গ্রাম পর্যন্ত স্থাপন করা ৩০টি বিদ্যুতের খুঁটি তিন বছর ধরে সারিবদ্ধভাবে রাখা হলেও এ খুঁটিগুলো কোনো কাজেই আসছে না। ফলে এ যেন প্রহসনে পরিণত হয়েছে। খুঁটি স্থাপনের পর বিদ্যুতের তার চুরি করে নিয়ে যাওয়ার পর মুন্সীগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির স্থাপন করা ওইসব খুঁটিতে বিদ্যুতের তার না লাগিয়ে অন্য স্থান দিয়ে আমঘাটা ও কংসপুরা গ্রামে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হয়েছে।

মাকহাটী গ্রামের নজরুল মোল্লা জানান, পরপর দুই দফা বিদ্যুতের তার চুরি হওয়ার পর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি স্থাপন করা খুঁটিগুলোতে তার সংযোগ দেয়নি। তারা ইউনিয়নের চরডুমুরিয়া বাজার দিয়ে আমঘাটা ও কংসপুরা গ্রামে বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়েছেন। এ কারণে বিদ্যুতের এ খুঁটিগুলো সারিবদ্ধভাবে থাকলেও কোনো কাজেই আসছে না।

পূর্ব মাকহাটী গ্রামের সেন্টু সিকদার সমকালকে জানান, তিন থেকে চার বছর আগে মাকহাটী বাজার-সংলগ্ন পঞ্চসার কোল্ড স্টোরেজ এলাকার কৃষিজমি থেকে ৩০ থেকে ৩৫টি খুঁটি স্থাপন করে মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের আমঘাটা ও কংসপুরা গ্রামে বিদ্যুতের সংযোগ দেওয়ার জন্য তার টানিয়ে রাখেন। এর পর মুন্সীগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি কর্তৃপক্ষ বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার প্রক্রিয়া গ্রহণ করে। এ সুযোগে বিদ্যুতের সংযোগ না থাকায় একটি সংঘবদ্ধ চক্র টানিয়ে রাখা তার চুরি করে নিয়ে যায়।

একই গ্রামের আতোয়ার মোল্লা জানান, আমঘাটা ও কংসপুরা গ্রামে অন্য স্থান দিয়ে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার পর থেকে স্থাপন করা এ খুঁটিগুলো সরিয়ে নেওয়ার কোনো ব্যবস্থা নেয়নি কর্তৃপক্ষ। এর ফলে অযত্ন-অবহেলায় সারিবদ্ধভাবে খুঁটিগুলো দাঁড়িয়ে আছে। পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি এ খুঁটিগুলো সরিয়ে না নেওয়ায় প্রতিষ্ঠানটি আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার মানোয়ার মোর্শেদ জানান, বিষয়টি তার জানা নেই। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার সঙ্গে আলোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সমকাল

Leave a Reply