ডহরী গ্রামের রোজিনার মৃত্যু কিভাবে, এক বছরেও জানা যায়নি!

থানা পুলিশ ব্যর্থ, মামলা তদন্তে পিবিআই
রাজধানীর সূত্রাপুরে গৃহবধু রোজিনা আক্তারে মৃত্যু কিভাবে হয়েছিল? এক বছরেও সে প্রশ্নের উত্তর জানা যায়নি। রোজিনার স্বজনদের দাবি যৌতুকের জন্য রোজিনাকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। আসামিরা প্রভাবশালী হওয়ায় তারা থানা পুলিশকে ম্যানেজ করে অপমৃত্য মামলা সাজায়। কিন্তু আলামত এবং পারিপার্শ্বিক অবস্থা পর্যালোচনা করলে কোন ভাবেই এটি অপমৃত্যৃর পর্যায় পড়েনা। ফলে বাধ্য হয়ে রোজিনার আক্তারের বড় ভাই আনোয়ার হোসেন আদালতে হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় রোজিনার স্বামী শাহ আলম শিকদারসহ ৭ জনকে আসামি করা হয়। আর ঘটনার প্রায় ৯ মাস পর ওই মামলার বিষয়ে সুত্রাপুর থানা পুলিশ আদালতে ‘অপমৃত্যু’ বলে রিপোর্ট দাখিল করে। এ অবস্থায় বাদিপক্ষ আদালতে নারাজি দেন। মামলাটি বর্তমানে তদন্ত করছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। মুন্সিগঞ্জ জেলার লৌহজং থানার ডহরী গ্রামের মৃত আলী আহম্মদ ব্যাপারীর মেয়ে রোজিনা আক্তার (৩৪)। তারা পাঁচ ভাই পাঁচ বোন। বোনদের মধ্যে রোজিনা চতুর্থ। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালে ২০০৫ সালের ২৫ জানুয়ারী প্রেম করে বিয়ে করেন রাজধানীর পুরনো ঢাকার ঠাকুরদাস লেনের বাসিন্দা শাহ আলম শিকদারকে। ২০১৬ সালের ৩০ জানুয়ারী ভোরে তার শ্বশুরবাড়ি পুরনো ঢাকার ঠাকু দাস লেনের ৬ তলা ভবনের তৃতীয় তলার ফ্ল্যাটে মারা যান রোজিনা আক্তার।

সেদিন কি ঘটেছিল
রোজিনার ছোট ভাই সুমন বলেন, ২০১৬ সালের ৩০ জানুয়ারী শাহ আলম শিকদারের ছোট ভাই রাসেল শিকদার আমাকে ফোন করে জানায় যে আমার আপা অসুস্থ। সংবাদ পেয়ে আমরা দ্রুত ঘটনান্থলে ছুটে যাই। সেখানে গিয়ে দেখি আমার আপা (রোজিনা আক্তার) খাটের উপর শোয়া অবস্থায় চাঁদর দিয়ে ঢাকা । এসময় শাহআলমসহ (রোজিনার স্বামী) অন্যরা শলাপরামর্শ করছিল। আমরা দ্রুত আপাকে উদ্ধার করে পুরনো ঢাকার ন্যাশনাল মেডিক্যাল ইনস্টিটিউট হাসপাতালে নিয়ে যাই। এ সময় দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিত্সক তাকে মৃত বলে ঘোষনা করেন। এরপর হত্যার ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার জন্য তারা ময়নাতদন্ত ছাড়াই আপার লাশ দাফনের চেস্টা করে। এতে আমরা বাধা দেই এবং সূত্রাপুর থানা পুলিশকে জানাই। পরে সূত্রাপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে সূরতহাল রিপোর্ট করে ময়না তদন্তের জন্য সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ মর্গে পাঠায়। ময়নাতদন্তশেষে জুরাইন কবরস্থানে লাশ দাফন করা হয়।

কী ভাবে বুঝলেন যে আপনার বোনকে হত্যা করা হয়েছে- এমন প্রশ্নের জবাবে সুমন বলেন, বলা হয়েছে আপা রান্না করতে গিয়ে হঠাত্ অসুস্থ হয়ে মারা গেছেন। কিন্তু তার থুতনিসহ বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন ছিল। ঘটনার দিন ভোরেও মায়ের সাথে আপুর কথা হয়। এসময় আপুর কথাবার্তায় কিছুটা হতাশার ছাপ ছিল। তিনি বলেন, আমার আপা শারীরিকভাবে সুস্থ ছিল। রান্নাঘরে পড়ে গিয়ে সে মরতে পারে না।

২০১৬ সালে ২০ সেপ্টেম্বর সূত্রাপুর থানার সাব-ইন্সপেক্টর রনজিত্ সাহা আদালতে দেয়া রিপোর্টে লেখেন, প্রাপ্ত সাক্ষ্য প্রমাণ ও ময়নাতদন্ত রিপোর্ট, সাক্ষীদের জবানবন্দি পর্যালোচনা করা হয়েছে। এতে যৌতুক দাবি বা না দেয়ার কারণে রোজিনাকে হত্যা করা হয়েছে এ মর্মে কোন সাক্ষ্য প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

রোজিনা আক্তারের বড় ভাই (মামলার বাদি) আনোয়ার হোসেন বলেন, শাহ আলমের সঙ্গে বিয়ের পর রোজিনা কিছুদিন সুখে শান্তিতেই ছিল। তাদের ঘরে এক ছেলে হয়। কিন্তু পরবর্তীতে স্বজনদের কু-পরামর্শে শাহআলম ৫ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে। এতে প্রবল আপত্তি জানায় রোজিনা। এরপরই শুরু হয় তার উপর শারিরিক ও মানসিক নির্যাতন। এক পর্যায়ে অতিষ্ঠ হয়ে রোজিনা ২০১৫ সালের শেষ দিকে বাসায় এসে বিষয়টি আমাদের জানায়। প্রায়ই বাসায় এসে কান্নাকাটি করতো সে। আনোয়ার হোসেন বলেন, আমরা চাই মৃত্যুর সঠিক কারণ উদঘাটিত হোক।

পিবিআইর তদন্ত কর্মকর্তার বক্তব্য
মামলা তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) পরির্দশক মোহাম্মদ শামীম আহমেদ বলেন, আমাদের আগে সূত্রাপুর থানা মামলাটি তদন্ত করে ফাইনাল রিপোর্ট দিয়েছিল। আমি সবে মাত্র মামলা তদন্তের দায়িত্ব পেয়েছি। সবকছুি যাচাই বাছাই করে দেখেছি। তবে এখনও মতামত দেবার মত অবস্থায় পৌছানো যায়নি।

ইত্তেফাক

Leave a Reply