শ্রীনগরে আওয়ামী লীগ কর্মীকে কুপিয়ে হত্যা

শ্রীনগর শ্যামসিদ্ধি ইউনিয়নে আলেক বেপারি (৪০) নামের এক আওয়ামী লীগ কর্মীকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার সেলামতি গ্রামে বাড়ির পাশে তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে আহত করে দুর্বৃত্তরা।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম জানান, রাত ৯টার দিকে কয়েকজন যুবক আলেক বেপারিকে পেছন থেকে কুপিয়ে জখম করে মারা গেছে ভেবে কালভার্ট ব্রিজের নিচে ফেলে দেয়ার সময় আশপাশের লোকজন দেখে ফেলে। পরে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে আলেক বেপারিকে ফেলে অস্ত্রধারীরা পালিয়ে যায়। গুরুতর আহতাবস্থায় তাকে প্রথমে স্থানীয় ষোলঘর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং পরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তার অবস্থা আরও অবনতি হলে রাতেই তাকে ধানম-ির বেসরকারী দ্য কিডনি হাসপাতালে নিয়ে লাইফ সার্পোটে রাখা হয়। পরে সেখানেই রাত ২টার দিকে আলেক মারা যায়।

তিনি আরও বলেন, নিহত আলেক বেপারি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। অনেকগুলো কারণে তাকে হত্যা করা হয়ে থাকতে পারে। তার মধ্যে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছেÑ ২৬ শে মার্চ স্বাধীনতা দিবসে বিএনপি রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত ইউপি চেয়ারম্যান রতনের ক্লাবের সামনে তোড়ন লাগানোকে কেন্দ্র করে রতন চেয়ারম্যানের সমর্থকদের সঙ্গে আলেক বেপারিদের বাগবিত-া ও মতবিরোধ দেখা দেয়। তার জের ধরে এ হত্যাকান্ড ঘটে থাকতে পারে। এ ব্যাপারে তদন্ত চলছে।

এছাড়া শ্রীনগর থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। নিহতের স্ত্রী ইয়াছমিন বেগম অভিযোগ করে বলেন, হাসপাতালে নেয়ার সময় আমার স্বামী বলেছেন বাজার থেকে আসার পথে এলাকার সাগর, আবুল, রনি, সোনাই মেম্বারসহ আরও কয়েকজন মিলে তাকে কুপিয়েছে। তিনি আরও অভিযোগ করে বলেন, বিগত ইউপির নির্বাচনে রতন চেয়ারম্যানের বিপক্ষে অবস্থান নেয়ায় তার স্বামীর সঙ্গে তাদের বিরোধ হয়। যারা আমার স্বামীকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে তারা সকলেই রতন চেয়ারম্যানের লোক।

শ্রীনগর থানার ওসি তদন্ত কাজী শরিফুল ইসলাম বলেন, মৃত্যুর আগে আলেক বেপারি তার স্বজনদের কাছে হত্যাকারীদের নাম বলে গেছেন। বাদীর অভিযোগ পেলে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জনকন্ঠ

Leave a Reply