মোল্লাকান্দি: আধিপত্য বিস্তারকে ঘিরে ফের উত্তপ্ত!

কাজী সাবি্বর আহমেদ দীপু: মুন্সীগঞ্জের চরাঞ্চলের মোল্লাকান্দি ইউনিয়ন আবারও উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে। আধিপত্য বিস্তার নিয়ে আওয়ামী লীগের দু’পক্ষ হামলা-পাল্টা হামলা, বাড়িঘর ভাংচুর ও প্রতিপক্ষকে গ্রাম থেকে বিতাড়িত করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। ফলে প্রতিদিনই দু’পক্ষের নেতাকর্মীরা প্রকাশ্যে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে বিভিন্ন গ্রামে মহড়া অব্যাহত রেখেছে। একই সঙ্গে আতঙ্ক তৈরি করতে বিস্ফোরণ ঘটানো হচ্ছে অগণিত ককটেল। কয়েক মাস শান্ত থাকার পর দুই সপ্তাহ ধরে আবারও পাল্টাপাল্টি হামলায় লিপ্ত হওয়ায় দু’পক্ষের কয়েকশ’ কর্মী-সমর্থক গ্রামছাড়া হয়ে পড়েছে। এর মধ্যে গতকাল শুক্রবার বিকেলে স্থানীয় এমপির নির্দেশে পুলিশ বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যানের পক্ষের বিতাড়িত শতাধিক নেতাকর্মীকে গ্রামে ফিরিয়ে এনেছে।

২০১৬ সালের ২৮ মে অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনের বিরোধ নিয়ে বিজয়ী চেয়ারম্যান মহসিনা হক কল্পনা পক্ষ ও পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী রিপন পাটোয়ারী পক্ষ কিছুদিন শান্ত থাকার পর আবারও আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছে। বর্তমান চেয়ারম্যান পক্ষ আধিপত্য বজায় রাখতে এবং সাবেক চেয়ারম্যান পক্ষ তা পুনরুদ্ধার করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে বলে স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করেই গত ১৬ ও ১৭ এপ্রিল মুন্সীগঞ্জ সদরের মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের রাজারচর, চৈতারচর ও চরডুমুরিয়া গ্রামে মুখে কলো কাপড় বেঁধে এবং হাতে বালতি নিয়ে গ্রামে ঘুরে ঘুরে দুর্বৃত্তরা ককটেলের বিস্টেম্ফারণ ঘটায়। এ সময় দু’পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এতে দু’পক্ষই একে অপরকে ঘায়েল করতে শতাধিক ককটেল বিস্টেম্ফারণ ঘটালে তিনটি গ্রাম প্রকম্পিত হয়ে ওঠে। ফলে দু’পক্ষের একাধিক কর্মী-সমর্থক গ্রামছাড়া হয়ে পড়ে। খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হলেও পর দিন ১৮ এপ্রিল চরডুমুরিয়া গ্রামে হামলা চালিয়ে জসিম খান ও তাজু খান নামে দুই আওয়ামী লীগ কর্মীকে মারধর করে প্রতিপক্ষ। বর্তমানে জসিম ঢাকার পঙ্গু হাসাপাতালে চিকিৎসাধীন।

গ্রামবাসী জানায়, এর পর থেকে প্রতিদিনই বিভিন্ন গ্রামে সহিংস ঘটনা অব্যাহত রয়েছে।

আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের একাধিক সূত্র জানায়, দুই সপ্তাহ ধরে হামলা-পাল্টা হামলায় ইউপি চেয়ারম্যান মহসিনা হক কল্পনা ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ফরহাদ খান পক্ষ এবং সাবেক চেয়ারম্যান রিপন পাটোয়ারী পক্ষের ৩ শতাধিক কর্মী-সমর্থক গ্রামছাড়া হয়ে পড়েছে।

ইউপি চেয়ারম্যান মহসিনা হক কল্পনা সমকালকে বলেন, সাবেক চেয়ারম্যান রিপন পাটোয়ারী ইউপি নির্বাচনে পরাজিত হয়ে এখন নেপথ্যে থেকে লাখ লাখ টাকার বিনিময়ে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজাহার মোল্লা ও খাইরুদ্দিন মোল্লার মাধ্যমে এলাকার শান্ত পরিস্থিতি অশান্ত করে তুলেছে। তাদের হামলার শিকার হয়ে গত ১২ দিন ধরে আমার প্রায় দুইশ’ কর্মী-সমর্থক গ্রাম থেকে বিতাড়িত।

এ প্রসঙ্গে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক চেয়ারম্যান রিপন হোসেন পাটোয়ারী বলেন, আমার পক্ষের কর্মী-সমর্থকরা দীর্ঘ ৭ মাস বিতাড়িত থাকার পর শীর্ষ আওয়ামী লীগ নেতা ও পুলিশের সহায়তায় গ্রামে যাওয়ার পর থেকে ইউপি চেয়ারম্যান মহসিনা হক কল্পনার সন্ত্রাসী বাহিনী তাদের হুমকি প্রদানসহ ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। এতে হামলার ভয়ে গত ১০ দিন ধরে তার শতাধিক কর্মী-সমর্থক গ্রামছাড়া হয়ে পড়েছে।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ওসি মো. ইউনুচ আলী বলেন, প্রতিপক্ষের হামলায় আওয়ামী লীগ কর্মীর পা ভেঙে ফেলার ঘটনায় ১৯ জনের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলায় একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অপর আসামিরা পলাতক রয়েছে। মোল্লাকান্দির সহিংস পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশের টহল জোরদার করা হয়েছে।

সমকাল

Leave a Reply