দুর্ণীতির আখড়া শ্রীনগর সাব রেজিষ্ট্রি অফিস!

আরিফ হোসেন: শ্রীনগর সাব রেজিষ্ট্রি অফিস এখন দুর্ণীতির আখড়ায় পরিনত হয়েছে। ঘুষ বানিজ্য এখানে ওপেন সিক্রেট। সাব রেজিষ্ট্রার বিলাল উদ্দিন আকন্দের ইচ্ছা অনিচ্ছার উপর দুর্ণীতির এই মাত্রা সময়ে অসময়ে উঠা নামা করে। তার নেতৃত্বে সাব রেজিষ্ট্রার অফিসে গড়ে উঠেছে ঘুষ বানিজ্যের অবৈধ সিন্ডেকেট। সিন্ডিকেটটি টাকার বিনিময়ে একজনের জমি অন্যের নামে রেজিষ্ট্রি করে দেওয়া সহ বিভিন্ন জালিয়াতি কাজের সাথে যুক্ত রয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এরকম অভিযোগে গত বুধবার সাব রেজিষ্ট্রার বিলাল উদ্দিন আকন্দ সহ সিন্ডিকেটের আরো পাঁচ সদস্যের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা হওয়ার পর তাদের বিরুদ্ধে বেরিয়ে আসছে নানা অপকর্মের তথ্য।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, সাব রেজিষ্ট্রার বিলাল উদ্দিন আকন্দ তার এই ঘুষ বাণিজ্যের জন্য দির্ঘদিন ধরে কৌশলে দলিল লেখকদের ব্যবহার করে আসছেন। নিয়ম বর্হিভূত ভাবে তিনি নানা অন্যায় আবদার দলিল লেখকদের উপর চাপিয়ে দেন। নিরুপায় হয়ে দলিল লেখকরা তা সেবাগ্রহীতাদের কাছ থেকে আদায় করে তার হাতে তুলে দেন। কোন দলিল লেখক তা দিতে অস্বীকৃতি জানালে তিনি ওই দলিল লেখকের দলিল রেজিষ্ট্রি বন্ধ রাখেন এবং নিবন্ধন বাতিলের হুমকি দিয়ে থাকেন। এনিয়ে দলিল লেখকরা ২০১৫ সালের ৭ অক্টোবর বিলাল উদ্দিন আকন্দের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল করলে ওই সময় অবস্থা বেগতিক দেখে কিছু দিনের জন্য তিনি ঘুষ বানিজ্য বন্ধ রাখলেও বর্তমানে তা ওপেন সিক্রেটে পরিণত হয়েছে বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক সূত্র জানায়।

বিলাল উদ্দিন আকন্দ প্রায় আড়াই বছর পূর্বে এ অফিসে যোগদান করেণ। এর পর পরই সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে সরকারী নিয়ম কানুনের তোয়াক্কা না করে চালু হয় অলিখিত নিয়ম। একটি দলিল সম্পাদনের ক্ষেত্রে সরকারী নিয়ম অনুযায়ী জমির হাল সনের খাজনা রশিদ, মূল পর্চা বা এর সইমুহুরী কপি প্রয়োজন হয়। নিয়ম অনুযায়ী এগুলো ছাড়া সাফ কবলা দলিল রেজিষ্ট্রি সম্ভব নয়। কিন্তু তার নিয়ম অনুযায়ী দলিল প্রতি তাকে খাজনা রশিদ না থাকলে ১ হাজার,পর্চার মূল কপি না থাকলে ৫শ, দলিলে উল্লেখিত প্রতি লাখ মূল্যের জন্য ৫শ, হেবা ঘোষণা, বন্টন, পাওয়ার নামা দলিল হলে ৩ হাজার থেকে ৫ হাজার টাকা করে বাড়তি অর্থ ঘুষ দিতে হয়। যার পরিমাণ প্রতি মাসে প্রায় ২০ লাখ টাকা। এ টাকা তিনি দলিল গ্রহীতাদের কাছ থেকে আদায় করে থাকেন। এসব কিছু ম্যানেজ করার জন্য সার রেজিষ্ট্রি অফিসে বিলাল উদ্দিন আকন্দের রয়েছে একটি শক্তি শালী সিন্ডিকেট চক্র।

উপজেলার উত্তর পাইশা গ্রামের জামাল উদ্দিন নামে এক কৃষক জানানা, কয়েকদিন আগে আমার জমি আরেক জনের নামে পাওয়ার অব এ্যটর্নী দিতে সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে গেলে আমার নামজারি করা নেই অজুহাতে বিলাল উদ্দিন আকন্দ তা ফিরিয়ে দেন। পরে এক দলিল লেখকের মাধ্যমে অতিরিক্ত ১০ হাজার টাকা ঘুষ দেওয়ার পর তিনি কাজটি করে দেন।

সাব রেজিষ্ট্রার বিলাল উদ্দিন আকন্দের দুর্ণীতির বিষয়ে এমআর রয়েল একটি অনলাইন নিউজ শেয়ার করলে উপজেলার রাঢ়িখাল এলাকার বাসিন্দা ও গ্রামীন ব্যাংকের সাবেক উর্ধতন কর্মকর্তা আ ঃ রশিদ মন্তব্য করেন তার কাছে বিলাল উদ্দিন আকন্দের দুর্ণীতির প্রমান রয়েছে।

এ বিষয়ে শ্রীনগর সাব রেজিষ্ট্রি অফিসের দলিল লেখক সমিতির সভাপতি পরিমল চক্রবর্তী জানান, সাব রেজিষ্ট্রার আগে এগুলো করতেন, আন্দোলনের পর তা বন্ধ হয়ে যায়। তবে বর্তমানে নতুন করে করে থাকলে তা আমার জানা নেই।

শ্রীনগর উপজেলা সাব রেজিষ্ট্রার বিলাল উদ্দিন আকন্দ তার বিরুদ্ধে উত্থাপিত সকল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এগুলো কেউ বলে থাকলে তা সঠিক নয়।

এব্যাপারে মুন্সীগঞ্জ জেলা রেজিষ্ট্রার আবুল কালাম মঞ্জুর মোর্শেদ বলেন, আইনত সাফ কবলা দলিল রেজিষ্ট্রির ক্ষেত্রে সরকারী নিয়ম কানুন ভাঙ্গার কোন সুযোগ নেই। তবে শ্রীনগর সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে কোন অনিয়ম বা ঘুষ বাণিজ্য হয়ে থাকলে তা খতিয়ে দেখা হবে।

Leave a Reply