শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের প্রেক্ষাপট

‘শেখ হাসিনা জীবনের ঝুঁকি নিয়েই রক্তাক্ত বাংলাদেশে ফিরে আসেন। …প্রাণের মায়া থাকলে, তিনি বিদেশের নিরাপদ আশ্রয় ছেড়ে দেশে আসতেন না।’
নূহ-উল-আলম লেনিন: বঙ্গবন্ধু-কন্যা শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দায়িত্বভার গ্রহণের ৩৫ বছর হতে চলেছে। ১৯৮১ সালের ১৭ মে তিনি দীর্ঘ নির্বাসিত জীবন থেকে প্রিয় মাতৃভূমিতে পদার্পণ করেন। দুই শিশুসন্তানকে বিদেশ বিভূঁইয়ে অনিশ্চয়তার মধ্যে রেখে, একজন মা স্বদেশের ডাকে যেভাবে ছুটে আসেন, তা ছিল অভাবনীয়।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যার রক্তাক্ত ঘটনাবলীর রেশ তখনও কাটেনি। স্বাভাবিক ছিল না দেশের পরিস্থিতি। নিরাপদ ছিল না বাংলাদেশ। একের পর এক হত্যা-ক্যু-পাল্টা ক্যুয়ের ধারা জন্ম দিয়েছিল ক্রনিক অস্থিতিশীলতা এবং ভয়ের সংস্কৃতি। রাষ্ট্র ও সমাজের সামরিকায়ন, পাকিস্তানি ভাবাদর্শের পুনরুজ্জীবন ও ‘বাংলাদেশ’ নামের আড়ালে পাকিস্তানিকরণ এবং লুণ্ঠন প্রয়াসী বিকৃত পুঁজিবাদী ব্যবস্থার প্রচলন ইত্যাদি জিয়াউর রহমানের কর্মকা-ের মূল্য লক্ষ্য হয়ে দাঁড়িয়েছিল। মুক্তিযুদ্ধের সকল অর্জনগুলো হয় বিসর্জন, নয় তো বিকৃতকরণ এবং মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত শক্তিগুলোকে রাজনৈতিকভাবে পুনর্বাসিত করা ছিল জিয়ার অন্যতম এজেন্ডা। অরাজনীতিকায়নের পাশাপাশি বাংলাদেশের ইতিহাস থেকে বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলা, ইতিহাস দখল এবং আওয়ামী লীগকে নিশ্চিহ্ন করাও ছিল জিয়ার প্রধান লক্ষ্যসমূহের অন্যতম।

‘আমি রাজনীতিবিদদের জন্য রাজনীতিকে দুরূহ করে দেব’ প্রকাশ্য এই ঘোষণা দিয়ে জিয়াউর রহমান রাজনৈতিক দলগুলোকে, বিশেষ করে আওয়ামী লীগকে ভাঙার নোংরা খেলায় মেতে উঠেছিল। সেনাবাহিনীর প্রধানের পদে আসীন থেকেই জিয়া ক্যান্টনমেন্টে বসে নিজের রাজনৈতিক দল গঠন করেন। নিজের অবৈধ ক্ষমতা দখলকে বৈধতা দেওয়ার লক্ষ্যে হ্যাঁ/না তথা প্রসহনমূলক গণভোটের আয়োজন করেন।

দেশের পরিস্থিতি যে কতটা অনিরাপদ ছিল তা বোঝা যায়, জিয়াউর রহমানের শাসনের শেষ দিন পর্যন্ত রাজধানী ঢাকায় রাতের বেলায় কারফিউ জারি থাকার ভেতর দিয়ে। এক ভয়ঙ্কর বিচারহীনতার অপসংস্কৃতি জাতীয় বৈশিষ্ট্য হয়ে দাঁড়িয়েছিল। বিচারের নামে কারাগারে আটক শত শত সামরিক বাহিনী ও বিমান বাহিনীর অফিসার ও জওয়ানদের ফাঁসিতে লটকিয়ে হত্যা করা ছিল নৈমিত্তিক ঘটনা। জিয়া ভেবেছিলেন রক্তাক্ত পথে সশস্ত্র বাহিনীর মুক্তিযোদ্ধা অফিসার ও জওয়ানদের হত্যা করতে পারলেই তার শাসন নিরাপদ এবং দীর্ঘস্থায়ী হবে। কিন্তু তা যে হয় নি, শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মাত্র ১৩ দিন পর সেনাসদস্যদের হাতে জিয়াউর রহমানের হত্যাকা-ের ভিতর দিয়ে তা প্রমাণিত হয়। ঠুটো জগন্নাথ বিচারপতি সাত্তারকে সামনে রেখে ক্ষমতার রঙ্গমঞ্চে আবির্ভূত হন আরেক সেনাপ্রধান, জেনারেল এরশাদ।

‘ জিয়া তথাকথিত গণভোটে ৯৮.৮৭ শতাংশ ‘হ্যাঁ’ ভোট লাভ করেছে বলে দেখানো হয়। জিয়ার গণভোটের মাত্র এক মাস পর, ১৯৭৭ সালের ১ অক্টোবর বগুড়া ও ঢাকা সেনানিবাসে সেনা অভ্যুত্থানের চেষ্টা হয়। ঢাকা বিমানবন্দরে কর্তব্যরত বিমান বাহিনীর ১১ এবং সেনাবাহিনীর ১০ সদস্য নিহত হন।’

১৯৮১ সালের ১৭ মে মাত্র ৩৪ বছর বয়সের পিতৃ-মাতৃহারা তরুণী শেখ হাসিনা জীবনের ঝুঁকি নিয়েই রক্তাক্ত বাংলাদেশে ফিরে আসেন। বলাই বাহুল্য প্রাণের মায়া থাকলে, তিনি বিদেশের নিরাপদ আশ্রয় ছেড়ে দেশে আসতেন না। এখনকার প্রজন্মের পক্ষে এটা উপলব্ধি করা সত্যিই কঠিন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ঐতিহাসিক ৩২নং সড়কের বাসভবনে বাংলাদেশের স্থপতি ও রাষ্ট্রপতি এবং শেখ হাসিনার জন্মদাতা পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, মা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব, তিন ভাই শেখ কামাল, শেখ জামাল, শেখ রাসেল, শেখ কামালের সদ্য বিবাহিতা স্ত্রী সুলতানা, শেখ জামালের সদ্য বিবাহিতা স্ত্রী রোজী এবং একমাত্র আপন চাচা শেখ নাসেরসহ ১৯ জন মানুষ নিহত হন। একই রাতে ভিন্ন ভিন্ন বাড়িতে নিহত হন কৃষক নেতা, মন্ত্রী ও বঙ্গবন্ধুর আপন ভগ্নিপতি (শেখ হাসিনার ফুফা) আবদুর রব সেরনিয়াবাতসহ পরিবারের সদস্য এবং বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নে যুব নেতা শেখ ফজলুল হক মনি ও তার অন্তঃস্বত্বা স্ত্রী আরজু মনি। বস্তুত একটি বৃহৎ পরিবারের ১৯ জন নিরপরাধ মানুষ সেই ভয়ঙ্কর রাতে নিষ্ঠুর ঘাতকের হাতে প্রাণ হারান। এ যেন কারবালা ট্র্যাজেডিকেও হার মানায়।

এ কথা তো এখন আর ব্যাখ্যার অপেক্ষা রাখে না, ওই রাতে বঙ্গবন্ধুর দুই আত্মজা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা বাংলাদেশে থাকলে, তাদেরও খুনিচক্র একইভাবে হত্যা করত। যুদ্ধ বা দুর্যোগে এর চেয়ে বেশি সংখ্যক মানুষ হয় তো একদিনে নিহত হয়েছে। কিন্তু পৃথিবীর ইতিহাসে একটি গোটা পরিবারের নারী, শিশুসহ সকল সদস্যকে এভাবে হত্যা করার দ্বিতীয় কোনো নজির আমাদের জানা নেই। শুধু তাই নয়, বঙ্গবন্ধু হত্যার কয়েক মাসের মধ্যেই ঘটে আরেক ট্র্যাজেডি। কারাগারের নিরাপদ আশ্রয়ে ১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর মোশতাক ও মেজর চক্র নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করে বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহকর্মী মুক্তিযুদ্ধকালীন অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, মুক্তিযুদ্ধকালীন প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমদ, বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রিসভার প্রধানমন্ত্রী ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী এবং মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি এএইচএম কামারুজ্জামানকে।

খুনি চক্রের পালের গোদা নয়া মীরজাফর খন্দকার মোশতাক বেশি দিন ক্ষমতায় থাকতে পারেনি সত্য। কিন্তু এই হত্যা ষড়যন্ত্রের সাথে যুক্ত জেনারেল জিয়াউর রহমান এবং পুনর্বাসিত খুনি মেজর চক্র কার্যত ক্ষমতাসীন থাকা অবস্থায় শেখ হাসিনা দেশের মাটিতে পা রাখেন। জিয়া ও সামরিক কর্তৃপক্ষ শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনে বাধা দিয়েছে। প্রকারান্তরে তার নিরাপত্তার অজুহাত তুলে ভয় দেখিয়েছে, যাতে তিনি দেশে ফিরে না আসেন। কূটনৈতিক প্রচেষ্টাও ছিল শেখ হাসিনাকে দেশে ফেরা থেকে বিরত রাখতে।

অন্যদিকে দেশের রাজনৈতিক অঙ্গনেও ছিল চরম অনিশ্চয়তা। বঙ্গবন্ধু এবং পরে চার জাতীয় নেতার হত্যাকা-ের পর দেশে বিরাজ করছিল বিশাল এক রাজনৈতিক শূন্যতা। খুনি মোশতাক আওয়ামী লীগকে ব্যবহার করেই তার ক্ষমতাকে বৈধতা দেওয়ার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু দু-চারজন বিশ্বাসঘাতক ছাড়া মূলধারার আওয়ামী লীগ মোশতাককে ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করে। স্মর্তব্য যে, মোশতাক ক্ষমতা দখলের পর বাকশাল নিষিদ্ধ ঘোষণা করলেও পার্লামেন্ট বাতিল করেনি। অবৈধ রাষ্ট্রপতি সংসদ সদস্যদের সমর্থন আদায় করে তার ক্ষমতা দখলকে বৈধতা দান করার উদ্দেশে ১৯৭৫ সালের ১৬ অক্টোবর জাতীয় সংসদে আওয়ামী লীগ পার্লামেন্টারি পার্টির সভা আহ্বান করে। বঙ্গভবনে আহূত এই সভায় যোগদান নিয়ে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্যদের মধ্যে দ্বিমত দেখা দেয়। সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, ডা. এসএ মালেক ও শামসুদ্দিন মোল্লাসহ মাত্র জনাদশেক সংসদ সদস্য মোশতাক আহূত বৈঠকে যোগদান থেকে বিরত থাকেন। ১৯৭৫ সালের ১৭ অক্টোবর প্রকাশিত দৈনিক সংবাদ চিপ হুইপ আবদুুর রৌফের বরাত দিয়ে জানায়, ২৭০ জন সদস্য মোশাতাকের সভায় যোগদান করেন। ৭ ঘণ্টাব্যাপী সভা হলেও মোশতাক সংসদ সদস্যদের সমর্থন আদায়ে ব্যর্থ হয়। অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলামসহ কয়েকজন সংসদ সদস্য মোশতাকের ক্ষমতা দখল ও বঙ্গবন্ধু হত্যাকা-ের জন্য মোশতাককে দায়ী করে বক্তব্য রাখেন। শেষ পর্যন্ত তীব্র বাগবিত-ার মধ্যে সভাটি ভ-ুল হয়ে যায়। মূলধারার আওয়ামী লীগ এবং দলীয় সংসদ সদস্যরা মোশতাককে প্রত্যাখ্যান করেন। সংসদে মোশতাকের ক্ষমতাকে বৈধতাদানের আর কোনো সুযোগ থাকে না। অবশ্য সে সময় প্রবীণ নেতাদের মধ্যে ইউসুফ আলী, সোহরাবউদ্দিন, প্রতিমন্ত্রী ওবায়দুর রহমান, শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন, নূরুল ইসলাম মঞ্জুর, চিপ হুইপ আবদুর রৌফ ও হুইপ রাফিয়া আকতার ডলি প্রমুখ মোশতাকের পক্ষে দৃঢ় অবস্থান নেন।

মোশতাকের স্বল্প সময়ের শাসনামলে কতিপয় প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতার কর্মকা- সাধারণ কর্মী-সমর্থকদের নৈতিকভাবে দুর্বল করে দেয়। মূল নেতৃবৃন্দের প্রায় সবাই কারাগারে নিক্ষিপ্ত হলেও, একাংশের মোশতাক মন্ত্রিসভায় অংশগ্রহণ যেমন তাদের নৈতিকভাবে দুর্বল করে; তেমনি স্পিকার আবদুল মালেক উকিলের কমনওয়েলথ সম্মেলনে যোগদান এবং ‘ফেরাউনের হাত থেকে দেশ উদ্ধার পেয়েছে’ মন্তব্য এবং সুযোগ থাকা সত্ত্বেও বিদেশের মাটিতে বঙ্গবন্ধুর হত্যার প্রতিবাদ না করা, আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি মহিউদ্দিন আহমদের মোশতাকের বিশেষ দূত হিসেবে মস্কো সফর এবং আবু সাঈদ চৌধুরীর মোশতাকের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও মোহাম্মদ উল্লাহর উপ-রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব গ্রহণ প্রভৃতি আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের হতোদ্যম করে। শেষোক্ত দুজনই ছিলেন বঙ্গবন্ধুর প্রধানমন্ত্রিত্বের কালে রাষ্ট্রপতি। মুক্তিযুদ্ধকালীন প্রধান সেনাপতি জেনারেল ওসমানী তো প্রথম থেকেই মোশতাকের প্রতিরক্ষা উপদেষ্টার দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

অন্য রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে সিপিবি ও ন্যাপ মোজাফফরের নেতৃবৃন্দ আত্মগোপনে চলে যান। এই দুটি দল বঙ্গবন্ধু হত্যার বিরুদ্ধে এবং মোশতাক চক্রের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক কার্যক্রমে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করে।

দক্ষিণপন্থি দলগুলো স্বাভাবিকভাবে উল্লসিত হয়। তবে সবচেয়ে অতিউৎসাহী ভূমিকা পালন করে মওলানা ভাসানী ও বিভিন্ন পিকিংপন্থি উপদল। ১৯৭৫ সালের ১৬ আগস্ট মওলানা ভাসানী টেলিগ্রাম পাঠিয়ে মোশতাককে অভিনন্দন জানান। ভাসানী ২১ আগস্ট ঢাকায় হাসপাতালে ভর্তি হন এবং মোশতাক তাকে দেখতে গেলে তিনি মোশতাককে পূর্ণ সমর্থনের আশ্বাস দেন। মওলানার হাসপাতালে ভর্তি ছিল সাজানো নাটক। ইতোমধ্যে জাসদের গোপন সংগঠিত তৎপরতাও চলতে থাকে।

তবে শেষ পর্যন্ত খুনি মোশতাক তার ক্ষমতা সংহত করতে ব্যর্থ হয়। আওয়ামী লীগকেও তার সমর্থনে আনা সম্ভব হয় না। নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে সামরিক অভ্যুত্থান-পাল্টা অভ্যুত্থানের পরিণামে মোশতাকের ক্ষমতাচ্যুতি ঘটে। বিচারপতি সায়েমকে শিখ-ি হিসেবে রাখলেও শুরু হয় জেনারেল জিয়ার সামরিক ও স্বৈরশাসনের অধ্যায়। ৭ নভেম্বরের সিপাহী জনতার অভ্যুত্থানের পটভূমিতে জিয়ার ক্ষমতার শীর্ষে আরোহণ বাংলাদেশের রাজনৈতিক দৃশ্যপট বদলে দেয়।

জিয়া তার ক্ষমতা সংহত করার লক্ষ্যে একদিকে তীব্র দমন পীড়নের পথ গ্রহণ করে, অন্যদিকে নিজস্ব রাজনৈতিক ভিত্তি গড়ে তোলার উদ্যোগ নেয়। জিয়া স্পষ্টতই উপলব্ধি করে দীর্ঘমেয়াদে ক্ষমতায় থাকতে হলে কেবল সেনাবাহিনীর ওপর নির্ভর করলে চলবে না। এর জন্য প্রয়োজন বিকল্প ভাবাদর্শ, বিকল্প রাজনৈতিক দল। এই লক্ষ্যে সামরিক ফরমান বলে সংবিধানের যথেচ্ছ সংশোধন ও কাটছাট করে রাষ্ট্রের সেকুলার চরিত্র এবং বাঙালির আত্মপরিচয়ের ঐতিহ্যগত ভিত্তি বাঙালি জাতীয়তাবাদের ধারণা মুছে ফেলার চেষ্টা করা হয়। সংবিধান থেকে ধর্মনিরপেক্ষতা কেটে দেওয়া হয়। বাঙালি জাতীয়তাবাদ প্রতিস্থাপিত হয় বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদের দ্বারা। ১৯৭৬ সালের ৩ মে সংবিধানের ৩৮ অনুচ্ছেদ সংশোধন করে ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দল নিষিদ্ধের সাংবিধানিক ধারা রহিত এবং ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দল করার সুযোগ অবারিত করা হয়। এর আগে ১৯৭৫-এর ডিসেম্বর মাসে এক ঘোষণাবলে সকল আটক ও বিচারাধীন সকল যুদ্ধাপরাধীদের সাধারণ ক্ষমতার আওতায় মুক্তি দেওয়া হয়। জিয়া তার পাকিস্তানমনষ্ক দর্শন থেকে ১৯-দফা কর্মসূচি ঘোষণা করে।

নিজের দল করার আগে জিয়া আওয়ামী লীগকে তার সমর্থনে ব্যবহার করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। ১৯৭৬ সালের ২৮ জুলাই রাজনৈতিক দলবিধি জারি করা হয়। রাজনৈতিক দলবিধির শর্তাধীনে রাজনৈতিক দল গঠন এবং ৩০ জুলাই থেকে ঘরোয়া রাজনীতির সুযোগ দেওয়া হয়।

তীব্র দমননীতির শিকার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এই সীমিত গণতান্ত্রিক সুযোগ গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নেয়। দল পুনরুজ্জীবনের লক্ষ্যে ঢাকায় দলের সাবেক কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদসহ নেতৃবৃন্দের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়। ১৯৭৬ সালের ৪ নভেম্বর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আনুষ্ঠানিক নিবন্ধন লাভ করে। ২৫ আগস্টের বর্ধিত সভায় আরও সিদ্ধান্ত হয়, দলের পূর্ণাঙ্গ কাউন্সিল সাপেক্ষে ১৯৭৫ সালের ৬ জুন যে কার্যনির্বাহী সংসদ ছিল, তার সভাপতি এএইচএম কামারুজ্জামান ৩ নভেম্বর নিহত হওয়ায়, সিনিয়র সহ-সভাপতি মহিউদ্দিন আহমদ ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান, সাংগঠিক সম্পাদক আবদুর রাজ্জাক প্রমুখ কারাবন্দি থাকায় দলের মহিলাবিষয়ক সম্পাদক সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করবেন। দলের কাউন্সিল করার লক্ষ্যে মিজানুর রহমান চৌধুরীকে আহ্বায়ক করে গঠিত হয় প্রস্তুতি কমিটি। ২৫ আগস্টের বর্ধিত সভায় আরও সিদ্ধান্ত হয় মহিউদ্দিন আহমদের নেতৃত্বাধীন নির্বাহী সংসদ ও মিজানুর রহমান চৌধুরীর নেতৃত্বে গঠিত প্রস্তুতি কমিটি ‘এক যোগে সংগঠনের কাজ চালিয়ে যাবে’। এটা ছিল নবযাত্রার সূচনায় দলকে ঐক্যবদ্ধ রাখার প্রয়াস মাত্র।

১৯৭৭ সালের ২১ এপ্রিল বিচারপতি সায়েমকে পদচ্যুত করে জিয়া নিজেকে রাষ্ট্রপতি ঘোষণা করে। জিয়া তার ক্ষমতাকে বৈধতাদানের উদ্দেশে ১৯৭৭ সালের ৩০ মে তথাকথিত হ্যাঁ/না ভোটের (গণভোট) আয়োজন করে। ন্যাপ, সিপিবি এই গণভোটে অংশগ্রহণ করলেও আওয়ামী লীগ গণভোট বর্জন করে। জিয়া তথাকথিত গণভোটে ৯৮.৮৭ শতাংশ ‘হ্যাঁ’ ভোট লাভ করেছে বলে দেখানো হয়। জিয়ার গণভোটের মাত্র এক মাস পর, ১৯৭৭ সালের ১ অক্টোবর বগুড়া ও ঢাকা সেনানিবাসে সেনা অভ্যুত্থানের চেষ্টা হয়। ঢাকা বিমানবন্দরে কর্তব্যরত বিমান বাহিনীর ১১ এবং সেনাবাহিনীর ১০ সদস্য নিহত হন। জিয়া এই অভ্যুত্থান প্রচেষ্টা ব্যর্থ করে দিতে সক্ষম হলেও অভ্যুত্থান প্রচেষ্টার সাথে জড়িত বঙ্গবন্ধুর খুনি কর্নেল রশিদ-ফারুক চক্রের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে সামরিক আদালতে বিচার প্রহসনের নামে বিমান বাহিনীর ৫৬৫ কর্মকর্তাসহ অজ্ঞাত সংখ্যক সেনাসদস্যকে হত্যা করে।

দেশে বিদ্যমান অস্থিতিশীল ও অনিশ্চিত এই পরিস্থিতির মধ্যেই ১৯৭৭ সালের ৩ ও ৪ এপ্রিল ঢাকার হোটেল ইডেন প্রাঙ্গণে আওয়ামী লীগের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু কাউন্সিলের আগেই নেতৃত্বের প্রশ্নে দলে অনৈক্য ও বিভেদ প্রবল আকার ধারণ করে। সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক মিজানুর রহমান চৌধুরী আওয়ামী লীগের সভাপতি হওয়ার জন্য মরিয়া হয়ে ওঠেন। কিন্তু দলীয় মূলধারার নেতাকর্মীরা মিজান চৌধুরীকে মানতে পারছিল না। দলাদলি ও ঐক্যমতের অভাবের কারণে শেষ পর্যন্ত কাউন্সিলে কোনো পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন সম্ভব হয় না। দলের বহুসংখ্যক নেতা কারারুদ্ধ থাকায় পূর্ণাঙ্গ কমিটি না করে সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দিনকে আহ্বায়ক করে ৪৪ সদস্য বিশিষ্ট একটি সাংগঠনিক কমিটি গঠনের ব্যাপারে কাউন্সিলে ঐকমত্য হয়। এই কমিটি দলকে সংগঠিত করার কাজে সারাদেশ চষে বেড়ায়। কর্মীদের মধ্যে সৃষ্টি হয় উৎসাহ-উদ্দীপনা।

১৯৭৭ সালে জিয়াউর রহমান এক দীর্ঘ বেতার ও টেলিভিশন বক্তৃতায় রাষ্ট্রপতি নির্বাচন, দল ও ফ্রন্ট গঠনের ইঙ্গিত দেন। ১৯৭৭ সালের ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবস উপলক্ষে ৯৫৩ রাজনৈতিক নেতা ও বিচারাধীন বন্দীকে মুক্তি দেওয়া হয়। আওয়ামী লীগের প্রথম সারির অনেক নেতা এই সময় মুক্তিলাভ করেন।
১৯৭৮ সালের ৩, ৪ ও ৫ এপ্রিল আওয়ামী লীগের দ্বি-বার্ষিক কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। কাউন্সিলে আবদুল মালেক উকিলকে সভাপতি ও আবদুর রাজ্জাককে সাধারণ সম্পাদক করে নতুন কমিটি গঠিত হয়।

১৯৭৭ সালের ১৯ এপ্রিল জিয়া তার ১৯ দফা কর্মসূচি ঘোষণা করেন। ১৯৭৮ সালের ৩ জুন রাষ্ট্রপতি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে ১৯৭৮-এর ৯ এপ্রিল জিয়া ‘জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক দল’ বা জাগদলে যোগদানের ঘোষণা দেন। জাগদল গঠিত হয় সশস্ত্র বাহিনীর গোয়েন্দা সংস্থা ডিজিএফআই’র উদ্যোগে এবং রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা ও অর্থের সুবাদে।

আওয়ামী লীগ রাষ্ট্রপতি নির্বাচনকে বিনা চ্যালেঞ্জে ছেড়ে না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। জিয়া দক্ষিণপন্থি প্রতিক্রিয়াশীল ও চীনাপন্থিদের সমর্থনে একটা ফ্রন্ট গড়ে তোলেন। পক্ষান্তরে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে ন্যাপ, সিপিবি, জাতীয় জনতা পার্টি, গণআজাদী লীগ ও বাংলাদেশ পিপলস্ লীগকে নিয়ে ২ মে গণতান্ত্রিক ঐক্যজোট গড়ে ওঠে। বিতর্কিত ভূমিকা সত্ত্বেও এই জোটের পক্ষ থেকে বিরোধী দলগুলোর একক প্রার্থী হিসেবে জেনারেল ওসমানীকে রাষ্ট্রপতি প্রার্থী করা হয়। তবে ফলাফল যা হওয়ার তাই হয়। জিয়াউর রহমানকে রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়।

জিয়া নির্বাচিত রাষ্ট্রপতি হয়েই তার চক্রান্তের জাল আরও বিস্তৃত করেন। আসন্ন সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আওয়ামী লীগে ভাঙন সৃষ্টির উদ্দেশে মিজান চৌধুরীকে খুঁটি হিসেবে ব্যবহার করেন। ১৯৭৮ সালের ১১ আগস্ট মিজান চৌধুরী আকস্মিকভাবে নিজেকে আহ্বায়ক করে ‘আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটি’ ঘোষণা করেন। দেওয়ান ফরিদ গাজী ও মোজাফ্ফর হোসেন পল্টু প্রমুখ এই উদ্যোগে শামিল হন। পরে অবশ্য দেওয়ান ফরিদ গাজী ও মোজাফ্ফর হোসেন পল্টু মিজান আওয়ামী লীগ থেকে বেরিয়ে এসে আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র উপদল গঠন করেন।

১৯৭৮ সালের ১ সেপ্টেম্বর জাগদল ও জাতীয়তাবাদী ফ্রন্ট বিলুপ্ত করে জিয়াউর রহমান নতুন রাজনৈতিক দল ‘বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল’ বিএনপি গঠন করেন। ১৯৭৯ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি জাতীয় সংসদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। পূর্ব নির্ধারিত নীলনকশা অনুযায়ী সদ্য গঠিত বিএনপি ২২০টি আসনে জয়ী বলে ঘোষণা করা হয়। আওয়ামী লীগ পায় ২৪.৫৫ শতাংশ ভোট এবং মাত্র ৩৯টি আসন। ১৯৭৯ সালের ৩১ মার্চ মুক্তিযুদ্ধের প্রত্যক্ষ বিরোধিতাকারী শাহ আজিজকে প্রধানমন্ত্রী ও মীর্জা গোলাম হাফিজকে স্পিকার নিয়োগ করা হয়।

১৯৭৯ সালের নির্বাচনে মিজান আওয়ামী লীগ ২টি আসনে জয়লাভ করে। আওয়ামী লীগের ভোট বিভাজনের যে কৌশল জিয়াউর রহমান নিয়েছিলেন অংশত তা সফল হয়। মিজান আওয়ামী লীগ বেশ কয়েকটি আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর নিশ্চিত বিজয় ঠেকিয়ে দেয়।

৫ এপ্রিল জাতীয় সংসদে সংবিধানের পঞ্চম সংশোধনী গৃহীত হয়। সামরিক ফরমান বলে সংবিধান সংশোধন, সামরিক শাসন, সামরিক আইনে গৃহীত বিভিন্ন সিদ্ধান্ত ইত্যাদিকে পঞ্চম সংশোধনের মাধ্যমে বৈধতা দান করা হয়। [১ ফেব্রুয়ারি ২০১০ সালে সুপ্রিমকোর্ট জিয়া ও এরশাদের সামরিক শাসন ও সংবিধান সংশোধনকে অবৈধ ঘোষণা করে।]

মালেক উকিল ও আবদুুর রাজ্জাকের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সামরিক শাসন ও জিয়াউর রহমানের স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে জনমত ও আন্দোলন গড়ে তোলার চেষ্টা করে। একাধিক হরতালও পালিত হয়। কিন্তু দলের অভ্যন্তরে অনৈক্য এবং পারস্পরিক অবিশ্বাস-অনাস্থার পরিবেশ দলটির ঘুরে দাঁড়াবার পথে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিল। প্রকৃতপক্ষে নেতৃত্বের শূন্যতা আওয়ামী লীগের মধ্যে এক ধরনের অস্থিরতা সৃষ্টি করেছিল। নেতৃত্বের মধ্যে দলাদলি, ভয়-ভীতি, সুবিধাবাদ এবং গা বাঁচিয়ে চলার মনোভাব বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগকে হীনবীর্য পোষমানা পার্টিতে পরিণত করেছিল। সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য, সাহসী ও দূরদর্শী নেতার অভাবে আওয়ামী লীগের কর্মীরা ¤্রয়িমাণ হয়ে পড়েছিল।

এমনই এক প্রেক্ষাপটে ১৯৮১ সালের ১৩-১৫ ফেব্রুয়ারি আওয়ামী লীগের ঐতিহাসিক কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। এই কাউন্সিলেই তার অনুপস্থিতিতে বঙ্গবন্ধু-কন্যা শেখ হাসিনাকে আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। সাধারণ সম্পাদক হন আবদুর রাজ্জাক। গঠিত হয় ১১ সদস্যের সভাপতিম-লী।

এই কাউন্সিলে শেখ হাসিনাকে সভাপতি নির্বাচিত করায় সারাদেশে আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে সৃষ্টি হয় অভূপূর্ব উৎসাহ-উদ্দীপনার। সাধারণ মানুষের মধ্যে সৃষ্টি হয় বিপুল প্রত্যাশা। দেশবাসী অপেক্ষা করতে থাকেন, শেখ হাসিনা কবে তার প্রিয় মাতৃভূমিতে ফিরে আসবেন।

বলাই বাহুল্য শেখ হাসিনাকে সভাপতি নির্বাচিত করলেও তার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ছিল অনিশ্চিত। আগেই বলেছি জিয়াউর রহমানের সরকার যেমন চায় নি, শেখ হাসিনা স্বদেশে ফিরে আসুক, তেমনি বাংলাদেশে তার নিরাপত্তার ব্যাপারে অনিশ্চয়তা থাকায় ভারত সরকার, বিশেষত প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীও শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের ব্যাপারে নিরুৎসাহী ছিলেন।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীর দেওয়া সাক্ষাৎকারটি বিশেষ প্রণিধানযোগ্য। উত্তরণ-এর কাছে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বেগম সাজেদা চৌধুরী বলেছেন

“সাজেদা চৌধুরী : হাসিনা তো ওখানে, আমি গেলাম, দুবার গেছি। শুধুই কান্না, যাওয়ার নিয়ম নাই, আমি বহু কষ্টে খোঁজ নিয়ে গেলাম। কোথায় আছে, চারদিকে ঘেরা একটি ছোট্ট ফ্ল্যাট। নিচে সিকিউরিটি দিয়ে রাখছে। তারপর ইন্দিরা গান্ধীর সাথে দেখা করেছি, ঊনি বললেন This is not the time, by time will come. I will say, not now.

এই কথাটা শুনে মনটা ভেঙে গেল, কী করি তখন, এখন যে রাষ্ট্রপতি সে সময়ের মন্ত্রী প্রণব মুখার্জি বলে দিলেন, আরও অপেক্ষা কর, দেখি কী করা যায়। দেখেন যখন টাইম হবে, তখন জিয়া যা আরম্ভ করছে তাতে দলও থাকবে না, কিছুই হবে না। এর মধ্যে ভাগাভাগি হয়ে গেছে। শেখ হাসিনাও লিখতেছে পার্টি যদি না থাকে, ভাঙে, আমি আর আসতে পারব না। আমি দেখলাম ও না আসলে পার্টি এক থাকবে না। সবাই প্রেসিডেন্ট হতে চায়। ৩-৪টা ভাগ হয়ে গেল, মেইনলি ভাগটা হয়েছে মিজান চৌধুরীর ফার্মাসিউটিক্যালস ইন্ডাস্ট্রিজের ৮০ কোটি টাকা জিয়াউর রহমান আটকে দেওয়ার পর। তখন মিজান সাহেব আলাদা হয়ে গেলেন। জিয়া বলল, গঠনতন্ত্রে বঙ্গবন্ধুর নাম থাকবে না, তা হলে আপনারা নির্বাচন করতে পারবেন। বঙ্গবন্ধুর নাম বাদ দিয়ে দিলেই ইতিহাস বাদ হয়ে যাবে, বাংলাদেশও বাদ হয়ে যাবে। অতএব আমি এটা পারব না। আমি পরিষ্কার বলে দিলাম, অতএব এটা আমার দ্বারা সম্ভব না। তখন ওই যে আমাদের ল’ সেক্রেটারি এবং আরেকজন ছিলেন উকিল নামকরা, বললেন দেখি কী করা যায়। ‘বঙ্গবন্ধুর নাম আওয়ামী লীগের পক্ষে বাদ দেওয়া সম্ভবপর নয়’Ñ এসব মন্তব্য লিখে দেওয়া হলো। এভাবে দলের পারমিশন নেওয়া হলো। এ ছাড়া তো অন্য কোনো উপায় ছিল না।

উত্তরণ : যেটা বলছিলেন নেত্রীর কথা দিল্লি গেলেন…
সাজেদা চৌধুরী : হ্যাঁ, নট নাউ তো, তবুও এখানে কাউন্সিলের মাঝে পাস করে ফেলল। কোরবান ভাই আমাদের সাথে ছিলেন। অনেকে এখন খুবই আত্মীয় হয়ে গেছে। কিন্তু যে কয়জন ছিল আমাদের সাথে ছিল, তারা একেবারে কঠিন, কঠিনভাবে বলল, শেখ হাসিনাকে আনতেই হবে। যাই হোক, মোটামুটি আমি কাউন্সিলের মধ্যে পাস করলাম, রাত্রে দেড়টা-২টার দিকে মালেক উকিল আসলেন, বললেন আমরা একটা সিদ্ধান্ত নিয়েছি আপাতত। ঊনার তো শর্ত ছিল। আবদুর রাজ্জাক সভানেত্রী হিসেবে শেখ হাসিনার নাম ঘোষণা করলেন। তখন কামাল হোসেনের ভূমিকা ছিল। কামাল হোসেন বললেন, ও তো আমাদের মাথার মুকুট হয়ে থাকবে। তা ছাড়া অনেক নেতার দ্বিমত ছিলÑ ও কি পারবে ‘বাচ্চা মানুষ’।

আমি বললাম বাচ্চা হলেও বাঘের বাচ্চা তো।”
(উত্তরণ, জুন, ২০১৪)
নানা টানাপড়েন, চিন্তা-ভাবনার পর অবশেষে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের সম্মতি পাওয়া গেল। মহান পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রক্তে ভেজা বাংলাদেশকে হায়েনাদের হাত থেকে পুনরুদ্ধার করা এবং তার হাতে গড়া আওয়ামী লীগকে রক্ষা করাই ছিল শেখ হাসিনার একমাত্র ব্রত। পিতা-মাতা-ভাইদেরসহ সর্বস্ব হারিয়ে শেখ হাসিনার আর কিছু হারাবার ভয় ছিল না। ছিল পিতৃহত্যার প্রতিশোধ নেওয়ার (প্রতিহিংসা নয়, রাজনৈতিক প্রতিশোধ) অদম্য ইচ্ছা, বাংলাদেশকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের ধারায় ফিরিয়ে আনা, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার এবং আওয়ামী লীগকে আবার জনসমর্থনপুষ্ট প্রধান রাজনৈতিক দলে পরিণত করার দীর্ঘদিনের লালিত ইচ্ছে ও স্বপ্ন রূপায়ণের জন্যই প্রবাসের নিরাপদ জীবন, শিশুসন্তানদের মায়ার বাঁধন ছিন্ন করে বঙ্গবন্ধু-কন্যা ১৯৮১ সালের ১৭ মে এক বর্ষণমুখর দিনে ঢাকায়, স্বদেশের মাটিতে প্রত্যাবর্তন করেন।

বিমানবন্দরে ও রাজপথে লক্ষ লক্ষ আবেগাপ্লুত বাঙালি বঙ্গবন্ধুর আদরের দুলালীকে বিপুল সংবর্ধনা জানায়।

বাংলাদেশের ইতিহাসে সূচিত হয় নতুন অধ্যায়। জননেত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের সিদ্ধান্ত এবং তার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন যে কতটা সঠিক ছিল, গত ৩৫ বছরের ইতিহাস তা প্রমাণ করেছে। শেখ হাসিনা কেবল নেতৃত্বের শূন্যতাই পূরণ করেন নি, নির্মাণ করেছেন এবং করে চলেছেন নতুন এক বাংলাদেশ। সে প্রসঙ্গ অবশ্য ভিন্ন।

উত্তরণ

Leave a Reply