মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর সোসাইটি জাপান, নতুন কার্যকরী পরিষদ গঠিত

রাহমান মনি: জাপানে বাংলাদেশ সোসাইটি, মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর সোসাইটি জাপান-এর দুই বছর মেয়াদি নতুন কার্যকরী পরিষদ গঠিত করে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করেছে। গত ২১ মে ২০১৭ টোকিওর কিতা সিটি অউজি হোকু তোপিয়ার কানারিয়া হয়ে আয়োজিত সংগঠনের সাধারণ সভায় অনুমোদিত ৭৫ সদস্যবিশিষ্ট কার্যকরী পরিষদ যাত্রা শুরু করে। ২০১৭-২০১৮ দুই বছর মেয়াদি এই কমিটি আগামী ২০ মে ২০১৯ পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করে যাবেন।

সোসাইটির এক সাধারণ সভায় ৪ ডিসেম্বর ২০০৬, সাইতামা প্রিফেকচারের মিসাতো শহরের মিসাতো বুনকা সেন্টারে সভাপতি হিসেবে বাদল চাকলাদার এবং সাধারণ সম্পাদক হিসেবে এমডি এস. ইসলাম নান্নুকে পুনর্নির্বাচিত করে অন্য পদগুলোতে নিয়োগ দেয়ার জন্য উপদেষ্টামণ্ডলীর সকল সদস্য এবং নির্বাহী সদস্য মীর রেজাউল করিম রেজাকে অন্তর্ভুক্ত করে সর্বসম্মতিক্রমে এক কমিটি গঠন করে, তিন মাসের মধ্যে কমিটি গঠন করে নির্বাচিত সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদকের কাছে জমা দেয়ার জন্য দায়িত্ব অর্পণ করা হয়।

কমিটির সদস্যরা নিজেদের মধ্যে একাধিকবার সভা করে এবং বিগত দিনে সংগঠনে অবদানের মূল্যায়ন করে অবশেষে ৭৫ সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করতে সক্ষম হন ঐকমত্যের ভিত্তিতে। গত মেয়াদে এই সংখ্যা ছিল ১৩৪ জনে।

১১ মার্চ ২০১৬ নির্বাচকমণ্ডলীর সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের উপস্থিতিতে আনুষ্ঠানিকভাবে তা হস্তান্তর করেন। কিন্তু সামনে বৈশাখী মেলার ব্যস্ততা এবং হল প্রাপ্তির ঝামেলায় আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা দিতে কিছুটা বিলম্বিত হয়। এবং অবশেষে ২১ মে ২০১৭ রোববার তা আলোর মুখ দেখে।

২১ মে ২০১৭ আয়োজিত সাধারণ সভাটিকে মোট ৩টি পর্বে ভাগ করা হয়।

প্রথম পর্বে ছিল মধ্যাহ্ন ভোজ সভা। বিক্রমপুরের ঐতিহ্যে মধ্যাহ্নভোজ পর্ব সারা হয়।

দ্বিতীয় পর্ব ছিল আনুষ্ঠানিক ঘোষণা। নাম ঘোষণার প্রারম্ভে দায়িত্বপ্রাপ্ত উপদেষ্টা মোল্লা ওয়াহেদুল ইসলাম বলেন, কাজটি ছিল আমাদের জন্য খুবই কষ্টকর। আমরা মনে করি প্রতিটি সদস্যই যে কোনো পদের জন্য উপযুক্ত। আমরা দ্বিধায় পড়ে যাই। কাকে রেখে দিবে। কিন্তু গঠনতন্ত্র তো মানতে হবে এবং সবাইকে তো আর কমিটিতে রাখাও সম্ভব না। তাই আমি বিগত দিনে সংগঠনে সদস্যদের অবদান মূল্যায়ন করে সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি। আমাদের মনোনয়নে হয়তো সবাই খুশি হতে পারবেন না। আমরা আমাদের সর্বোচ্চ শ্রম ও মেধা দিয়েছি কমিটি গঠনে।

এরপর উপদেষ্টা (দায়িত্বপ্রাপ্ত) খন্দকার আসলাম হিরা একে একে পদবিসহ ৭৫ জন সদস্যের নাম ঘোষণা করেন। এ সময় প্রতিটি ঘোষণা বিপুল করতালির মাধ্যমে তা গৃহীত হয়। সভাপতি হিসেবে বাদল চাকলাদার এবং সাধারণ সম্পাদক হিসেবে এমডি এস. ইসলাম নান্নু দ্বিতীয় মেয়াদে সর্বসম্মতিক্রমে নির্বাচিত হন। সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন মো. নাজমুল হোসেন রতন। এভাবে কোষাধ্যক্ষ হিসেবে শেখ আনোয়ার হোসেন, দফতর সম্পাদক হিসেবে সাদ্দাম হোসেন, প্রচার সম্পাদক মো. নুর খান রনি এবং মহিলা সম্পাদিকা হিসেবে গুলশান ফেরদৌস সাদ্ধীর নাম ঘোষণা করা হয়। এ সময় তারা সকলেই উপস্থিত ছিলেন।

নতুন কমিটি ঘোষণা করার পর সোসাইটির প্রথম সাধারণ সভাতে (নতুন কমিটির) সভাপতিত্ব করেন সভাপতি বাদল চাকলাদার। এ সময় মঞ্চে আরও উপস্থিত ছিলেন সাধারণ সম্পাদক এমডি এস. ইসলাম নান্নু। সভার শুরুতেই সোসাইটির পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেয়া হয়। নির্বাহী সদস্য দেলোয়ার হোসেন ডিউ ফুলেল শুভেচ্ছা জানান সবার পক্ষ থেকে।

এরপর নির্বাচিত সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক সংক্ষিপ্ত শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন। শুভেচ্ছা বক্তব্যে তারা গুরুদায়িত্ব পালনে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন। এরপর হাউজ ওপেন করে দেন সবার জন্য। উন্মুক্ত আলোচনা সভায় সঞ্চালনার দায়িত্ব পালন করেন নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক এমডি এস. ইসলাম নান্নু।

নতুন কমিটিকে বরণ করে এবং শুভেচ্ছা জানিয়ে নতুন কমিটির কাছে সংগঠনের প্রত্যাশা, আগামী দিনের কর্মসূচি বাস্তবায়নে দিকনির্দেশনার প্রস্তাব জানিয়ে বক্তব্য রাখেন মো. দেলোয়ার হোসেন, মো. শওকত হোসেন, রাহমান মনি, বিএম সাহজাহান, মো. নজরুল ইসলাম রনি, মো. নুর খান রনি, মোল্লা আলমগীর, আলমগীর হোসেন মিঠু, মোল্লা ওয়াহেদুল ইসলাম, নুর আলী, আজম খান, মো. মোবারক হোসেন হৃদয়, মো. মাসুদ রানা, মো. ছিদ্দিকুর রহমান, মো. নাজমুল হোসেন রতন, মো. গোলাম ফারুক মেনন, মীর রেজাউল করিম রেজা, খন্দকার আসলাম হিরা প্রমুখ।

বক্তারা মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর সোসাইটি জাপানকে কেবলমাত্র জাপানে কার্যক্রম সীমিত না রেখে বাংলাদেশে সামাজিক খাতে কল্যাণমূলক কাজে অংশ নেয়াসহ এই সোসাইটি উদ্যোগে কোনো কর্মসূচি যেমন দাতব্য চিকিৎসালয়সহ শিক্ষা খাতে বৃত্তিমূলক কর্মসূচি গ্রহণের আহ্বান জানান। তারা বলেন, জাপান প্রবাসীরা যেমন এই সোসাইটিকে বাংলাদেশ সোসাইটির বিকল্প হিসেবে দেখে থাকে, তাই, আমাদেরকেও সেই মোতাবেক কাজ করতে হবে। এই সংগঠনকে জাপানে প্রবাসীদের অন্য যে কোনো সংগঠনের চেয়ে উঁচু আসনে আসীন করাতে হবে।

আগামী ১৮ জুন ২০১৭ রোববার ইফতার আয়োজনকে সার্থক করে তোলার লক্ষ্যে এখন থেকেই কাজ শুরু করায় তাগিদ দেয়া হয় বক্তাদের বক্তব্য থেকে।

সভাপতির বক্তব্যে বাদল চাকলাদার সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা জানিয়ে ২য় বারের মতো তাদেরকে নির্বাচিত করার জন্য কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, আমাদের উপর গুরুদায়িত্ব দিয়ে বসে থাকলেই চলবে না, বিগত দিনের মতো আগামীতেও আপনাদের সহযোগিতা অব্যাহত রাখতে হবে। আমি মনে করি বিক্রমপুরের প্রতিটি সদস্যই নেতৃত্ব দেয়ার মতো যোগ্যতা রাখেন।

বাদল চাকলাদার আরও বলেন, বিক্রমপুরের অনেক মেধাবী শিক্ষার্থী রয়েছে অর্থাভাবে যারা উচ্চশিক্ষা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। এই সোসাইটির পক্ষ থেকে তাদের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের স্বপ্ন পূরণে সহায়তা করতে হবে। অনেক মেধাবী রয়েছেন যারা সব থাকা সত্ত্বেও গ্যারন্টরের অভাবে জাপান আসতে পারছেন না। আমরা তাদের চিহ্নিত করে সোসাইটির পক্ষ থেকে গ্যারন্টরের ব্যবস্থা নিয়ে তাদের জাপান আনার পথ সুগম করতে হবে। জাপান আসার পর যারা কর্মসংস্থান করতে না পারেন সোসাইটির পক্ষ থেকে তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থায় সহায়তা করা হবে। আপনারা যদি আমাদের পাশে থাকেন, মাসিক নির্দিষ্ট হারে একটা অনুদান বা চাঁদার ব্যবস্থা করেন তাহলে আমরা অনেক ভালো ভালো কাজের উদ্যোগ নিতে পারব ইনশাআল্লাহ।

সবশেষে সাধারণ সম্পাদক নান্নু অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply