সিরাজদিখানে লাশ নিয়ে থানা ঘেরাও!

সিরাজদিখানে দেড় মাস চিকিৎসার পর অবশেষে মারা গেলেন আসলাম শেখ (৫৫)। মঙ্গলবার সে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মারা যান। এ ঘটনায় নিহতের পরিবার লাশ নিয়ে সিরাজদিখান থানা ঘেড়াও করে। এক দিকে যখন থানা ঘেড়াও চলছিল, তখন প্রতিপক্ষের লোকজন নিজেদের বাড়ী ভাংচুর করে আবারো নিহতের পরিবারকে ফাঁসাতে মামলার পায়তারা করছিল।

জানা যায়, সিরাজদিখানের রশুনিয়া ইউনিয়নের রশুনিয়া গ্রামে গত ১৪ এপ্রিল শুক্রবার সকাল ৯ টার দিকে জমি দখল নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষ হয়। রশুনিয়া গ্রামের মৃত খলিল বেপারির ছেলে সোহেল রানা ও একই গ্রামের মৃত হযরত আলী শেখের ছেলে আসলাম শেখ এ দুই পরিবারের মধ্যে সংঘর্ষ হয়।

সংঘর্ষের সময় গুরুতর ৩ জন আসলাম শেখকে(৫৫) পঙ্গু, রেশমা বেগম(৩৮)ও নজরুল ইসলামকে(৩৫) ঢাকা মিটফোট হাসপাতালে ভর্র্তি করা হয়। বাকি আয়শা বেগম (৪৫), রবিউল শেখ (২৫), রানা শেখ (৩৫), মতিন শেখ (৭০), ফিরোজ শেখ (৩৫), রেবা বেগম (৬০),গর্ভবতি আমেনা বেগমকে (২৮) প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।

এব্যাপারে মিজানুর রহমান বাদি হয়ে এ্যাড. সোহেল রানা গংদের বিরুদ্ধে সিরাজদিখান থানায় একটি মামলা করেন। আপর দিকে সোহেল রানার পক্ষে থেকেও একটি মামলা করা হয়।

আসলাম শেখের ভাই হানিফ শেখ জানান, ১৪ এপ্রিল আসলাম শেখ জমিতে কাজ করতে গেলে সোহেল রানা ১০-১৫ জন লোক নিয়ে দেশীয় ধারালো অস্ত্র ও লাঠি সোটা নিয়ে হামলা চালায়।

এ সময় তার পরিবারের লোকজন বাধা দিতে গেলে তাদেরকে এলোপাথারি মারধর করলে ১০ জন আহত হয়। তাদেরকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ১৪ এপ্রিল রাত ১০ টার দিকে থানায় মামলা করা হয়েছে। জমিটি আমরা প্রায় শত বছর ধরে ভোগ দখলে রয়েছে। সোহেল রানা একজন আইনজীবি। সে এ পর্যন্ত আমাদের নামে বিভিন্ন থানায় ৪ টি মিথ্যা মামলা করে হয়রানি করছে।

এদিকে এ ঘটনার দীর্ঘ এক মাস ২২ দিন পর গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৬টার ঢাকা মেডিক্যালে চিকিৎসারত অবস্থায় আসলাম শেখে মারা যায়। মাসাধিক কাল পূর্বে সোহেল রানার দায়ের করা মামলায় জামিন নিতে আদালতে গেলে আদালত আসলাম শেখকে জামিন না দিয়ে জেল হাজতে প্রেরণ করে।

আহত আসলাম শেখ কারা কর্তৃপক্ষের হেফাজতে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিল। গত রবিবার সে জামিনে মুক্ত হলেও ঢাকা মেডিক্যালে তার আসলাম চিকিৎসাধীন ছিল। অবশেষে মঙ্গলবার সে মারা যায়।

আসলাম শেখের মৃত্যুর পর তার লাশ নিয়ে মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে স্বজনরা সিরাজদিখান থানা ঘেড়াও করে। এ সময় আসলাম শেখের মৃত্যুর সংবাদ শুনে তার পরিবারকে ফাঁসাতে সোহেল রানা ও তার লোকজন নিজেদের বাড়ি ভাংচুর শুরু করে। এ সংবাদ শুনে পুলিশ সোহেল রানার বাড়িতে গিয়ে ঘটনার সত্যতা পান।

প্রত্যক্ষদর্শি নুরুদ্দিন জানান, গতকাল বেলা ১১টার দিকে সোহেল রানা ও তার লোকজন প্রাকাশ্যে নিজেদের বাড়ি ভাঙচুর করে। তিনি একজন মামলাবাজ। লোকজনকে ফাঁসাতে তিনি ওস্তাদ।

এ ব্যাপারে হোসেল রানার সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করে কথা বলার চেষ্টা করেও সম্ভব হয়নি। সিরাজদিখান থানার অফিসার ওসি মো. ইয়ারদৌস হাসান জানান, আসলাম শেখ হার্ড এ্যাটাকে মারা গেছে বলে তার মৃত্যু সনদে উল্লেখ আছে।

পরিবারের লোকজন লাশটি হাসপাতাল থেকে গোপনে নিয়ে এসেছে। নতুবা ঢাকা মেডিক্যালেই তার পোস্ট মর্টেম হওয়ার কথা। আমরা লাশটি পোস্ট মর্টেমের জন্য আবারো ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠাচ্ছি। পোস্ট মর্টেমের রিপোর্ট পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জনকন্ঠ

Leave a Reply