পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর সৌজন্যে প্রবাসী বণিক সমিতির নৈশভোজ

রাহমান মনি: জাপান প্রবাসী বণিক সমিতি বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি ইন জাপান (বিসিসিআইজে) বর্তমানে জাপান সফররত বাংলাদেশের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এইচ এম শাহরিয়ার আলম (সংসদ সদস্য)’র সম্মানে এক ইফতার মাহফিল ও নৈশভোজ এবং মতবিনিময় সভার আয়োজন করে। এর মাত্র এক সপ্তাহ পূর্বে তারা বাংলা ভিশন বার্তাপ্রধান মোস্তফা ফিরোজের সম্মানে টোকিওর একটি প্রসিদ্ধ হোটেল (হোটেল হিলটন)-এ নৈশভোজের আয়োজন করেছিল।

৬ জুন ২০১৭ মঙ্গলবার হোটেল ইম্পেরিয়ালে আয়োজিত নৈশভোজ ও মতবিনিয় সভায় মন্ত্রীর সফরসঙ্গী বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ফিরোজ আলম, জাপান প্রবাসী ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, জাপান জাতীয় সম্প্রচার কেন্দ্র এনএইচকে মিডিয়া কর্মীবৃন্দ এবং স্থানীয় প্রবাসী মিডিয়াকর্মী ও বাংলাদেশ মিডিয়ার জাপান প্রতিনিধিগণ উপস্থিত ছিলেন।

বিসিসিআইজে সভাপতি বাদল চাকলাদারের সভাপতিত্বে এবং আব্দুর রাজ্জাকের সঞ্চালনায় ইফতার পূর্ব মতবিনিময় সভায় জাপান আওয়ামী লীগ সভাপতি সালেহ্ মো. আরিফ, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মো. সহিদুল ইসলাম নান্নুসহ উপস্থিত সকলে স্বীয় পরিচিতি তুলে ধরে প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে পরিচিত হন। এ সময় সকলেই তাদের ভিজিটিং কার্ড হস্তান্তর করে কুশল বিনিময় করেন।

কুশল বিনিময় শেষে মন্ত্রী এবং তার সফরসঙ্গীকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। বিসিসিআইজে’র পক্ষ থেকে সভাপতি বাদল চাকলাদার প্রতিমন্ত্রী এইচ এম শাহরিয়ার আলমকে এবং ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দের পক্ষ থেকে তরুণ ব্যবসায়ী চৌধুরী শাহীন ব্যবসায়ী ফিরোজ আলমকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান।

মতবিনিময় সভায় প্রবাসী নেতৃবৃন্দ এবং বণিক সমিতির নেতৃবৃন্দ প্রবাসে বিভিন্ন সমস্যা, আমলাতান্ত্রিক জটিলতা, সরকারের অসহযোগিতার বিভিন্ন দিক তুলে ধরে এর আশু সমাধানে প্রতিমন্ত্রীর মাধ্যমে বর্তমান সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। এ সময় জাপানে বিসিসিআইজে কমিটি গঠনে ধারাবাহিকতা রক্ষা করে নির্বাচনী প্রক্রিয়ার বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। দেড় বছর পূর্বে গঠিত প্রথম নির্বাচিত কমিটির গৃহীত বিভিন্ন কার্যক্রম প্রতিমন্ত্রীকে অবহিত করা হয়। এর মধ্যে সংগঠনের রেজিস্ট্রিকরণসহ নিজস্ব অফিস, জাপানি বণিক সমিতিসহ জাপানে বিভিন্ন দেশের বণিক সমিতির সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করে বাংলাদেশের বিভিন্ন পণ্যসামগ্রী জাপানসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে পরিচয় করানোর লক্ষ্যে কাজ করার কথা উল্লেখ করেন। তারা বলেন, জাপান এমনই একটি দেশ যেখানে উদ্যোগ নিয়ে কোনো কিছু করতে গেলে সঠিক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে এবং বাংলাদেশ সরকার তথা জাপানে বাংলাদেশ দূতাবাসের সংশ্লিষ্টতার কথা জানায়। কিন্তু দূতাবাসে গেলে আমলাতান্ত্রিক জটিলতা দূর করে অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছতে বেশ সময়সাপেক্ষ হয়ে দাঁড়ায়। জাপানে সবকিছুই ডকুমেন্টের মাধ্যমে হয়। এখানে প্রপার ওয়েতে সব ধরনের ডকুমেন্টই পাওয়া যায় দ্রুত। যেটা বাংলাদেশে কেবলই কল্পনা করা যায়। বর্তমান ডিজিটাল যুগে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন নিয়ে সরকার এগুলেও আমলাতান্ত্রিক জটিলতা সেই আগের মতোই রয়েছে। এই ব্যাপারে মন্ত্রীর পদক্ষেপ কামনা করা হয়।

প্রতিমন্ত্রী এইচ এম শাহরিয়ার আলম বলেন, অতীতের যে কোনো সময়ের চেয়ে বর্তমানে জাপান-বাংলাদেশ সম্পর্ক অনেক বেশি সুদৃঢ়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ২০১৪ সালের সফরের পর জাপান বাংলাদেশকে অত্যন্ত উচ্চ আসনে আসীন করেছে। কারণ, জাতিসংঘের সদস্য পদে বাংলাদেশ সেদিন জাপানকে ছাড় দিয়ে নিজের প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নেয়। বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার খরচ করেও তা পেত কিনা সন্দেহ। জাপান সবসময় তা কৃতজ্ঞতাচিত্তে স্মরণ করে। আপনারা এখানে যারা রয়েছেন, তারা নিজ মেধা দিয়ে স্ব স্ব ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন। একতাবদ্ধ থেকে আপনারা দু’দেশের সম্পর্ক উন্নয়নে আরও কাজ করে যাবেন বলে আমি আশা করি।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply