৩ মাস ধরে এলাকাছাড়া এক পরিবার

শ্রীনগরে কৃষক লীগ নেতার হুমকি
মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলায় এক ইউনিয়ন কৃষক লীগ সভাপতির হুমকিতে তিন মাস ধরে গ্রাম ছাড়া হয়ে আছে দরিদ্র একটি পরিবার। জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে আদালতে মামলা করার কারণে পরিবারটির ওপর আরো বিপর্যয় নেমে এসেছে।

অভিযুক্ত নেতার নাম আজগর আলী ওরফে মেন্দী মাতবর (৫৫)। তিনি শ্রীনগরের বীরতারা ইউনিয়ন কৃষক লীগ সভাপতি ও দুটি হত্যা মামলার আসামি।

স্থানীয় লোকজন জানায়, ভুক্তভোগী পরিবারটির কর্তা আব্দুল হাকিম ওরফে কান্দু (৫০)। তিনি বীরতারা গ্রামের বাসিন্দা। তাঁকে ও তাঁর পরিবারের লোকজনকে গ্রাম ছাড়া করার কারণ তিনি একটি হিন্দু পরিবারের বিক্রি করা জমির দলিলে সাক্ষী হয়েছেন।

আব্দুল হাকিম কান্নাজড়িত কণ্ঠে জানান, এলাকার প্রভাবশালী নেতা আজগর আলী ও তাঁর সাঙ্গোপাঙ্গদের ক্রমাগত হুমকির কারণে তাঁরা (হাকিম) নিজের ভিটেবাড়ি ছেড়ে গেছেন। সেখানে ঈদের মতো উৎসব করা থেকে বঞ্চিত হয়েছে তাঁর সন্তানরা। দীর্ঘদিন ধরে এলাকা ছেড়ে থাকার কারণে তাঁর সন্তান ও পরিজনরা লেখাপড়ার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

আব্দুল হাকিম আরো জানান, শ্রীনগর ভূমি অফিসের নামজারি করা হিন্দু ওয়ারিশিয়ানের সম্পত্তির বিক্রি করা দলিলের সাক্ষী হয়েছেন আব্দুল হাকিম। এ কারণে আজগর আলী তাঁর লোকজন নিয়ে তিন মাসের বেশি আগে আব্দুল হাকিমকে এলাকা ছেড়ে যাওয়ার নির্দেশ দেন। কিন্তু হাকিম নিজ বাড়িতে বসবাস করতে থাকেন। তিন-চার দিন পর তাঁকে বীরতারা বাজারে প্রকাশ্য দিবালোকে পিটিয়ে হত্যা করা আওয়ামী লীগ নেতা শাহজাহানের উদাহরণ টেনে বলা হয়, এলাকা না ছাড়লে তাঁর (হাকিম) পরিণতিও শাহজাহানের মতোই হবে। দ্বিতীয়বার হুমকির পর আব্দুল হাকিম প্রাণ ভয়ে সপরিবারে রাতের আঁধারে এলাকা ছেড়ে যান। পরে ২ এপ্রিল তিনি হুমকিদাতাদের বিরুদ্ধে মুন্সীগঞ্জ আদালতে জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে মামলা করেন। আদালত মামলাটি তদন্তের জন্য উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেন। উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে যেন কেউ সাক্ষ্য না দেয় সে জন্য মামলার সাক্ষীদেরও হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। মূলত হিন্দুদের ওই সম্পত্তি গ্রাস করতে না পেরেই আজগর আব্দুল হাকিমের পরিবারকে এলাকায় ফিরতে দিচ্ছেন না। বিএনপি থেকে আওয়ামী লীগে যোগ দেওয়া আজগর বীরতারা গ্রামের শাহজাহান হত্যা মামলার আসামি। অভিযুক্ত আজগর বলেন, হুমকি দিয়েছি কি না তা তদন্তেই প্রমাণিত হবে।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply