বাড়িতে আগুন ধরিয়ে সৎ ছেলেকে ফাঁসানোর চেষ্টা মহিলা মেম্বারের!

মোজাম্মেল হোসেন সজল: মুন্সীগঞ্জে এক মহিলা মেম্বার বাড়িতে আগুন ধরিয়ে সৎ ছেলেকে ফাঁসানোর চেষ্ঠার অভিযোগ পাওয়া গেছে। পঞ্চসার ইউনিয়নের বণিক্যপাড়া গ্রামের মহিলার মেম্বার (১, ২ ও ৩ নং ওয়ার্ড) শিল্পী বেগম সিঙ্গাপুর প্রবাসী সৎ ছেলের সম্পত্তি ও টাকা আত্মসাৎ এবং বিতাড়িত করার জন্য এ কাজ করা হয়েছে।

সোমবার ভোরে মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার পঞ্চসার ইউনিয়নের বণিক্যপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

সিঙ্গাপুর প্রবাসী ইউনুস জানান, ছোট বেলা থেকেই বণ্যিকপাড়া গ্রামের সাহাবুদ্দিন মোল্লা তাকে লালন পালন করে ছেলের স্বীকৃতি দেন। ইউসুফ তেলের পাম্পে এবং পরে ফেরি করে কেরোসিন বিক্রি করতেন। এসবের সঞ্চিত টাকা দিয়ে ২০০৬ সালে সিঙ্গাপুর যান। এরপর ২০০৯ সালে দেশে ফিরে কিছুদিন থেকে আবার চলে যায়। সিঙ্গাপুর থেকে মহিলা মেম্বার শিল্পীর ভাই নুরুল হক ঢালীর মাধ্যমে সৎ মা শিল্পী বেগমের কাছে টাকা পাঠাতেন ইউসুফ। তার বাবা ২০১২ সালে তাকে ২ শতাংশ জমি লিখে দিয়ে যান। এই জমির স্বাক্ষী রাখা হয় সৎ মা শিল্পী বেগমকে। তার পাঠানো টাকা দিয়ে তার ওই জমির উপর বিল্ডিং করা হয়। শিল্পী বেগমের ছেলে শাকিলকে তিনি সিঙ্গাপুরে নেন। সেখানে শাকিল ইউসুফকে দেশের বাড়িতে না যেতে বলেন।

গত ৪-৫ মাসে ইউসুফ দেশে ফিরলে তাকে শিল্পী বেগম বাড়িতে উঠতে দেয়নি। পরে ইউসুফ তার শ্বশুরবাড়ি বিনোদপুরে থাকছেন। গত মে মাসে বণিক্যপাড়ার আসলাম মোল্লার বাড়িতে ইউসুফকে ডেকে নেয়া হয়। সেখানে শিল্পী বেগমের ভাই আনোয়ার আলী মোল্লা, আসলাম মোল্লা ও জাহাঙ্গীর মাদবর গং তার কাছ থেকে জোরপুর্বক সাদা কাগজে স্বাক্ষর নেয়ার চেষ্ঠা এবং জমি বাবদ ৯ লাখ টাকা দিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত জানায়। ওই পরিমাণ টাকার বিনিময়ে জমি লিখে দেয়ার চাপ প্রয়োগ করে। এতে অসম্মতি জানায় ইউসুফ। শ্বশুরবাড়িতেই বসবাস করতে থাকেন। পরে শ্বশুরবাড়ি ছেড়ে স্ত্রীকে নিয়ে অন্য কোথাও ভাড়া থাকার সিদ্ধান্ত নেয় ইউসুফ। এর জন্য বণিক্যপাড়ায় তার বাড়ির আসবাবপত্র দিয়ে দেয়ার জন্য তার চাচা শাহজাহান মোল্লা ও চাচাতো ভাই রুবেল মোল্লাকে জানায় ইউসুফ।

এ খবরে শিল্পী বেগম ঘটনা সৎ ছেলে ইউসুফকে ফাঁসানোর জন্য সোমবার ভোরে বাড়িতে একটি রুমে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে সকাল সাড়ে ৭টার দিকে ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নেভায়।

এ ব্যাপারে মেম্বার শিল্পী বেগমের ভাই আনোয়ার ঢালী জানান, জমি লিখে দেবে বলে ইউসুফ রাজি হয়। কিন্তু পরে আর লিখে দেয়নি। ইউসুফকে দুইবার তারা টাকা খরচ করে সিঙ্গাপুরে পাঠিয়ে। সোমবার রাতে তার বোন শিল্পী বেগম বাড়িতে একা ছিলেন। বাইর দিক থেকে ইউসুফ ঘরে একটি কক্ষে আগুন ধরিয়ে দেয়। এতে রুমে থাকা টিভি, শোকেজ, আলমারি, খাট, ওয়ার ড্রপ, টেবিল পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।

মুন্সীগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার শওকত আলী জোরদার জানান, অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা রহস্য। যার বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে সে ওই বাড়িতে থাকে না এবং ভস্মিভূত রুমের দরজা তালাবন্ধ ছিল। শিল্পী বেগম ভস্মিভূত রুমে তালা লাগিয়ে অন্য একটি রুমে ঘুমিয়ে ছিলেন বলে তাদের জানিয়েছেন। ঘটনার তদন্ত চলছে।

পূর্ব পশ্চিম

Leave a Reply