শ্রীনগরে অপহরণকারী সহ অপহৃত স্কুল ছাত্রী উদ্ধারের পর মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ

আরিফ হোসেন: শ্রীনগরে অপহরনের কয়েক ঘন্টা পর দশম শ্রেণীর এক স্কুল ছাত্রীকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। এসময় পুলিশ দুই অপহরণকারীকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে আসার সময় অপহরণকারীদের লোকজন পুলিশের গাড়ি প্রায় এক ঘন্টা অবরুদ্ধ করে রাখে। পরে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে তাদের উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। পুলিশের গাড়ি অবরুদ্ধের ঘটনায় আরো ২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। বুধবার সন্ধ্যায় উপজেলার তন্তর বাজার সংলগ্ন এলাকায় এঘটনা ঘটে। পরে ওইদিন রাত পৌনে বারটার দিকে মুচলেকা নিয়ে তাদেরকে ছেড়ে দেয় পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, রুসদী গ্রামের আমজাদ মোল্লার মেয়ে ও রুসদী উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্রী তামান্না আক্তার মুন (১৬) কে বুধবার বেলা ১১ টার দিকে পার্শ্ববর্তী তন্তর গ্রামের ভাষাণ শেখের ছেলে সিফাত (২৩) তার লোকজন নিয়ে অপহরণ করে। এঘটনায় তামান্নার মা রুমা বেগম বাদী হয়ে সিফাত কে প্রধান আসামী করে শ্রীনগর থানায় অপরহনের লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। ওই দিন বিকালে শ্রীনগর থানার এসআই মোদাচ্ছেরের নেতৃত্বে শ্রীনগর থানা পুলিশের একটি টিম তন্তর গ্রামে অভিযান চালিয়ে স্কুল ছাত্রী তামান্নাকে উদ্ধার করে। এসময় পুলিশ এজাহারে অভিযুক্ত সিফাতের আত্মীয় ভুট্টু (৪৫) ও রফিকুল (৫৫) কে গ্রেপ্তার করে। তাদেরকে থানায় নিয়ে আসার সময় সিফাতের লোকজন পুলিশের গাড়ি আটক করে প্রায় এক ঘন্টা অবরুদ্ধ করে রাখে। এসময় বাধা প্রদান কারীরা এসআই মোদাচ্ছেরকেও নাজেহাল করে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। পরে খবর পেয়ে ঘটনা স্থলে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে ভিকটিম সহ তাদেরকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। পুলিশের কাজে বাধা প্রদানের অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হয় নবম শ্রেণীর ছাত্র শাওন (১৫) ও অন্তর (১৫) কে। কিন্তু থানায় দীর্ঘক্ষন দেন দরবারের পর অভিযোগকারীর জিম্মায় মুচলেকা নিয়ে ভিকটিম ও অপহরণকারীদেরকে ছেড়ে দেয় শ্রীনগর থানা পুলিশ।

তন্তর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাকির হোসেন অপহরণের বিষটি স্বীকার করে বলেন, পুলিশের সাথে ঝামেলা করা ঠিক হয়নি। তার পরও বাদী পক্ষ মামলা না করায় তাদেরকে ছাড়িয়ে আনা হয়েছে। তাছাড়া ছেলে পক্ষ দাবী করছে স্কুল ছাত্রী তামান্না অপ্রাপ্ত বয়স্ক হলেও চারমাস পূর্বে সিফাতের বড় ভাই সাব্বির শেখের সাথে তার বিয়ে হয়েছে। সাব্বির বর্তমানে সিংগাপুর প্রবাসী।

শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ এসএম আলমগীর হোসেন জানান, অভিযোগের প্রেক্ষিতে স্কুল ছাত্রীকে উদ্ধারের পর অভিযোগকারী ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের জিম্মায় স্কুল ছাত্রী ও আটককৃতদেরকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

Leave a Reply