ফুকুওকা হতে পারে এশিয়ার নতুন দিগন্ত বা মিলন পথ

রাহমান মনি: চারদিক সমুদ্রঘেরা দ্বীপ শহর কিয়ুশুর রাজধানী ফুকুওকা হতে পারে এশিয়ার নতুন দিগন্ত বা মিলন পথ। বিদেশি বন্ধুদেরসহ পর্যটকবৃন্দের কাছে উদাত্ত আহ্বান জানাই, আপনারা অন্তত একটিবারের জন্য হলেও প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি ফুকুওকাতে গিয়ে সেখানকার তাজা পণ্যে (ফলজ, জলজ, প্রাণিজ, কৃষিজাত) উৎপাদিত খাদ্যসামগ্রী উপভোগসহ ফুকুওকাবাসীর আতিথেয়তা গ্রহণ করুন। আপনাদের ভালো লাগবে নিশ্চয়তা দিচ্ছি।

এভাবেই পর্যটকদের দৃষ্টি আকর্ষণে উদাত্ত আহ্বান জানিয়েছেন ফুকুওকা প্রিফেকচারের গভর্নর ওগাওয়া হিরোশি। তিনি ‘দি ওন্ডারস অফ ফুকুওকা’ শীর্ষক এক সেমিনারে এ আহ্বান জানান।

২০১৯ বিশ্বকাপ রাগবী প্রতিযোগিতা এবং ২০২০ সালে টোকিওতে অনুষ্ঠিতব্য গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক ও প্যারা অলিম্পিক আসরকে সামনে রেখে জাপান সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে স্থানীয় সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় পর্যটকদের দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য বিভিন্ন প্রিফেকচার (প্রশাসনিক কাজের সুবিধার্থে স্বনির্ভর সরকার) এর পরিচিতি ক্যাম্পেইন শুরু হয় ২০১৬ সাল থেকে।

তারই ধারাবাহিকতার ১১তম আয়োজনটি ছিল জাপানের কিয়ুশু দ্বীপ অঞ্চলের রাজধানী ‘এট দি ক্রসরোডস অব এশিয়া’ খ্যাত দ্বীপ শহর ফুকুওকা প্রিফেকচার।
৩ জুলাই ২০১৭ রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন ‘ইকুরা গেস্ট হাউজ’-এ আয়োজিত দি ওন্ডারস অব ফুকুওকা শীর্ষক সেমিনারে প্রধান এবং একমাত্র বক্তা হিসেবে প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করেন ফুকুওকা প্রিফেকচারের গভর্নর ওগাওয়া হিরোশি। তিনি ২০১১ সালের মে মাস থেকে এক জনপ্রিয় এবং অভিজ্ঞ গভর্নর হিসেবে অদ্যাবধি দায়িত্ব পালন করে চলেছেন।

সেমিনারে গভর্নর ওগাওয়া ফুকুওকা প্রিফেকচারের অপরূপ সৌন্দর্যের বর্ণনাসহ সেখানকার নাগরিক সুযোগ-সুবিধা, কৃষ্টি, ইতিহাস, সংস্কৃতি (শিল্প, সাহিত্য, কৃষি, জলজ, বনজ, সামুদ্রিক, ফলজ, ক্রীড়া ও খাদ্য) সহ আধুনিক যুগের নেটওয়ার্কের যাবতীয় তথ্য তুলে ধরে ফুকুওকা প্রিফেকচারে ভ্রমণের জন্য বিদেশি বন্ধুসহ জাপানি ভ্রমণপিপাসুদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

ওগাওয়া বলেন, অর্থনৈতিকভাবে অত্যন্ত শক্তিশালী জাপানের পশ্চিমাঞ্চলে ৪৯৮৬.৪০ বর্গকিলোমিটার আয়তনবিশিষ্ট ফুকুওকা প্রিফেকচারের লোকসংখ্যা ৫১,০৭,৪৮৯ জন (মে ২০১৭ গণনায়)। আয়তনের দিক থেকে এটি জাপানের ২৯তম বৃহত্তম প্রিফেকচার। এবং জনসংখ্যার দিক থেকে ৯ম স্থান। ৬০টি মিউনিসিপল নিয়ে গঠিত ফুকুওয়াকার জিডিপি হচ্ছে ১৭১ বিলিয়ন আমেরিকান ডলার।

বছরে ১৫ লাখ ইউনিট অত্যন্ত আধুনিক প্রযুক্তির গাড়িসহ রোবোটিক এবং বায়োটেকনোলজির পণ্যসামগ্রী সরবরাহ করে জাপান অর্থনীতিকে সমৃদ্ধ করেছে এই ফুকুওকা। জাপানে কৃষিজাত, মৎস্য সম্পদ এবং বনজ সম্পদ উৎপাদনে ১৬তম স্থানটি ফুকুওকার দখলে। ৩৮টি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বছরে ২৫ হাজার শিক্ষার্থী গ্রাজুয়েশন শেষ করেন যার মধ্যে ৬ হাজার বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিদ রয়েছেন। এখানে ৬৫ হাজার বিদেশির বসবাস রয়েছে, যার মধ্যে ১৬ হাজার শিক্ষার্থী রয়েছেন। এ ছাড়াও ৫টি দেশের কনস্যুলার (আমেরিকা, কোরিয়া, চীন, অস্ট্রেলিয়া এবং ভিয়েতনাম) অফিস রয়েছে ফুকুওকাতে।

জাপানের ৪ নাম্বার বৃহত্তম বিমানবন্দর ফুকুওকাতে রয়েছে ২টি টার্মিনাল। বিশ্বের ৯টি দেশের ২০টি রুটে ৬৭০টি বিমান চলাচল করে ফুকুওকা বিমানবন্দর থেকে প্রতি সপ্তাহে। এছাড়া ২৭টি রুটে ৩৬২টি বিমান অভ্যন্তরীণ চলাচল করে প্রতি সপ্তাহে। আর কিতা কিয়ুশু বিমানবন্দর থেকেও প্রতি সপ্তাহে ২টি দেশের ৩টি রুটেই ২১টি আন্তর্জাতিক বিমানসহ অভ্যন্তরীণ রুটে সপ্তাহে ১৭টি ফ্লাইট রয়েছে।

টোকিও থেকে আকাশপথে ১.৫ ঘণ্টার পথ হলেও কোরিয়ার রাজধানী সিউল থেকে এর দূরত্ব মাত্র ১.৩ ঘণ্টা এবং সাংহাই থেকে মাত্র ১.৫ ঘণ্টা। তাছাড়া সিনকান (বুলেট ট্রেন) প্রতিঘণ্টা একাধিক ট্রেন বিভিন্ন রুটে চলাচল করে থাকে।

গভর্নর বলেন, গর্ব করার মতো ইতিহাসসমৃদ্ধ শহর ফুকুওকা। ফুকুওকার তাঁতশিল্প, বিশেষ করে হাকাতা টেক্সটাইল, কুরুমে কাসুরি টেক্সটাইল, হাকাতা নিনগিও বা হাকাতা পুতুল বিশ্বসেরা। সিরামিক শিল্পে ফুকুওকা বিশেষ স্থান দখল করে আছে।

গভর্নর আরো বলেন, ইউনেস্কো ওয়ার্ল্ড হেরিটেজে ফুকুওকার একাধিক বিষয় স্থান পেয়েছে। তার মধ্যে সংস্কৃতি হিসেবে হাকাতা গিওন ফেস্টিভ্যাল, অকিনোশিমা দ্বীপ, নাকাৎসু মিয়া। এ বছর পোল্যান্ডে অনুষ্ঠিতব্য ইউনেস্কোর বার্ষিক সভায় আরও কিছু স্থানকে ওয়ার্ল্ড হেরিটেজে স্থান দেয়ার জন্য আমরা আবেদন জানাব। আমি নিজেও পোল্যান্ড যাব আগামী সপ্তাহে।

গভর্নর ওগাওয়া বলেন, ফুকুওকার খাদ্য সংস্কৃতিরও রয়েছে ঐতিহ্য। এখানে ইয়ামে টি (গ্রিন টি) বেশ প্রসিদ্ধ। আমাওউ স্ট্রবেরি জাপানের একমাত্র ফুকুওকা প্রিফেকচারেই চাষাবাদ হয়ে থাকে। সাইজে যেমন বড়, গায়ের রং টকটকে লাল, গোলাকৃতি, মিষ্টি ও সুস্বাদু। আর এর সবগুলো গুণাবলি নিয়েই আমাওউ শব্দটি প্রচলিত।

চারদিক সমুদ্র ঘেরা হওয়ায় এখানকার জলজ অর্থাৎ মৎস্য সম্পদের ভাণ্ডার বলা হয় ফুকুওকাকে। ফুকুওকা কেবল জলজ সম্পদেই সমৃদ্ধ তা কিন্তু নয়। এখানকার কৃষিজাত দ্রব্য, ফলদ (ব্লুবেরি, নাসপাতি, পিচফল, আঙুর, কাকি (একধরনের গাব)) এখানকার প্রসিদ্ধ ফল।

কেবল ফুকুওকাতেই স্থানীয়ভাবে ৭০ প্রকারের মদ (জাপানিজ সাকে) উৎপন্ন হয়ে থাকে। আর এসব মদ যে কেবল জাপানের বাজারের চাহিদা মিটাচ্ছে তা কিন্তু নয়। জাপানের বাজারের চাহিদা পূরণ করে তা এখন ইউরোপ, আমেরিকাসহ এশিয়ায় অনেক দেশেই পাওয়া যাচ্ছে।

গভর্নর আরও বলেন, ফুকুওকা প্রিফেকচার ক্রীড়ামোদিদের জন্য স্বর্গরাজ্য। বিভিন্ন ধরনের ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজনসহ স্থানীয়ভাবেও ক্রীড়ার যথেষ্ট অনুশীলন হয়ে থাকে এখানে।

আগামী ২০১৯ সালে অনুষ্ঠিতব্য বিশ্বকাপ রাগবী টুর্নামেন্টের একাধিক খেলা এই শহর এবং আশপাশের শহরগুলোতে অনুষ্ঠিত হবে।

জাপানের ট্রাডিশনাল গেইম সুমো কুস্তি জাপানের চারটি শহর (টোকিও, ওসাকা, নাগোয়া এবং ফুকুওকা)-এ প্রতিবছর নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে সুমো কুস্তির ৬১তম আসর।

আগামী ২০২০ টোকিও অলিম্পিক এবং প্যারা অলিম্পিককে কেন্দ্র করে এখানে ৬০টি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র খোলা হয়েছে। ক্রীড়াবিদরা প্রতিদিন সেখান থেকে প্রশিক্ষণ নিচ্ছে।
এখানে ৬টি দেশের ছাত্রদের স্বীকৃত এক্সচেঞ্জ রয়েছে। চীন, থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম, ভারত, আমেরিকা ও কোরিয়ার ছাত্ররা শিক্ষা শেষে দেশে ফিরে গেলেও এসব এক্সচেঞ্জের মাধ্যমে তাদের যোগাযোগ অব্যাহত রাখেন। এছাড়া আইটি সেক্টরেও ফুকুওকা অনেকটাই এগিয়ে।

সেমিনার শেষে রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন ইকুরা গেস্ট হাউজে এক অভ্যর্থনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। জাপান সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং ফুকুওকা প্রিফেকচার স্থানীয় সরকারের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত অভ্যর্থনা অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী কিশিদা ফুমিও, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ইয়ামামোতো কোযো, গভর্নর ওগাওয়া হিরোশি, সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাবৃন্দ, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূতগণ, কূটনীতিকবৃন্দ এবং মিডিয়াকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। বাংলাদেশ দূতাবাসের পলিটিক্যাল মিনিস্টার ড. জিয়াউল আবেদীন উপস্থিত ছিলেন।

স্বাগত ও শুভেচ্ছা বক্তব্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী কিশিদা বলেন, সম্মানিত অতিথিবৃন্দ, আপনারা জানেন জাপান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ২০২০ সালে অনুষ্ঠিতব্য টোকিও অলিম্পিক এবং প্যারা অলিম্পিক পূর্ব জাপানকে পরিচিতি করানোর উদ্দেশ্যে এক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। জাপানের বিভিন্ন অঞ্চল, সেখানকার জীবনযাত্রা, বিভিন্ন সংস্কৃতি, দর্শনীয় স্থান, শিল্প, সাহিত্য, ঐতিহ্য ও কৃষ্টির সঙ্গে পরিচিত করে পর্যটক বাড়ানোই কর্মসূচির আসল উদ্দেশ্য। বিদেশি অতিথিরা যেন পূর্ব পরিচিত হয়ে স্বাচ্ছন্দ্যভাবে জাপান এবং বিশ্ব সেরা ক্রীড়া আসর উপভোগ করতে পারেন আমাদের এই প্রয়াস তারই জন্য।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় শুধু সমন্বয় করে থাকে। আর যাবতীয় ব্যবস্থাপনা করেন প্রিফেকচারের স্থানীয় সরকার। তাদেরই অক্লান্ত পরিশ্রমে এ আয়োজনটি সফল হয়ে থাকে।
সম্মানিত অতিথিবৃন্দ, আজকের এই আয়োজনটির গুরুত্ব বিবেচনা করে আমি এ বছর মার্চ মাসে ফুকুওকা সফর করি। আমি মন্ত্রী হিসেবেই বলছি না, ফুকুওকা শহর সফর করা একজন পর্যটক হিসেবে বলছি, সেখানকার লোকজনের উষ্ণ আতিথেয়তা, সিজনাল এবং ন্যাচারাল ফুড, কৃষ্টি, ইতিহাস, সংস্কৃতি, ঐতিহ্য এবং সাইট সিয়িং আমাকে মুগ্ধ করেছে। আমার বিশ্বাস আপনারাও সেখানকার যাবতীয় বিষয়ে মুগ্ধ হবেন। একবার ঘুরে আসুন ফুকুওকা।
rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply